অদ্ভুত এক আউট শেষ করে দিল সব
অদ্ভুত এক আউট শেষ করে দিল সব
২০১৬-০২-০৩ ০২:৪৬:১৯
প্রিন্টঅ-অ+


হাতছানি দিচ্ছে দ্বিতীয় রাউন্ড, বাঁচা-মরার ম্যাচে শেষ ৬ বলে মাত্র ৩টি রানের অপেক্ষায় জিম্বাবুয়ে। হাতে মোটে একটি উইকেট থাকলেও টান টান উত্তেজনাপূর্ণ ম্যাচে জয়ের পাল্লাটা হেলে ছিল তাদেরই দিকে। কিন্তু অদ্ভুত এক আউট শেষ করে দিল সব!

বল ওয়েস্ট ইন্ডিজের বোলার কিমো পলের হাত ছেড়ে বের হয়নি, তার আগেই রান আউটের আবেদন! মাঠের দুই আম্পায়ার সিদ্ধান্তের জন্য দ্বারস্থ হলেন তৃতীয় আম্পায়ারের। কেউ কিছু বোঝার আগেই অগত্যা ঘটে গেল বিষয়টা। নন স্ট্রাইকিং প্রান্তে থাকা জিম্বাবুয়ের ব্যাটসম্যান রিচার্ড এনগাভারা ক্রিজ ছেড়ে বেরিয়ে এসেছিলেন, বিষয়টা লক্ষ করে বল না ছুড়ে স্ট্যাম্প ভেঙে দিয়েছেন পল। সমস্বরে আবেদন। রান আউট হয়ে গেলেন এনগাভারা! জয়ের সুবাস পাওয়া ম্যাচটা জিম্বাবুয়ে হেরে গেল ২ রানে, অদ্ভুত আউটের সৌজন্যে পাওয়া জয়ে কোয়ার্টার ফাইনালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ।

সি গ্রুপে দুই দলেরই পয়েন্ট ছিল ২। জয়ী দল কোয়ার্টার ফাইনালে উঠে যাবে, এমন সমীকরণ সামনে রেখে টসে জিতে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে ব্যাট করতে পাঠিয়েছিল জিম্বাবুয়ে। বোলারদের সৌজন্যে ক্যারিবীয়দের ২২৬ রানেই বেঁধে ফেলেছিল তারা। দলের পক্ষে সর্বোচ্চ ৬১ রানের ইনিংসটি খেলেছেন সামার স্প্রিংগার। ২৮ রানে ৩ উইকেট নিয়ে জিম্বাবুয়ের সফল বোলার ছিলেন রুগারে মাগারিরা। ২২৭ রানের জয়ের লক্ষ্যে খেলতে নেমে ওপেনার শান স্নাইডারের ৫২ আর জেরেমি ইভিসের ৩৭ রানে ভর করে ৪৯ ওভারে ৯ উইকেটে ২২৪ রান করেছিল জিম্বাবুয়ে। এরপরই এই বিতর্ক, অদ্ভুত আউট। জিম্বাবুয়ের ইনিংস থেমেছে ওই ২২৪ রানেই।

আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে এমন আউটের ঘটনা বিরল। ক্রিকেটের পরিভাষায় এটাকে বলা হয় মানকাডেড। তবে ক্রিকেটের আইন বহির্তূত কোনো বিষয় নয় এটি। তবে এই ধরনের আউট ক্রিকেটীয় চেতনার সঙ্গে ঠিক যায় কিনা, সেটা নিয়ে বিতর্ক আছে বেশ। বিতর্ক হচ্ছে জিম্বাবুয়ে বলি হওয়া মঙ্গলবারের আউটটা নিয়েও। এমন অদ্ভুত উপায়ে অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপ থেকে বাদ পড়ে যাওয়ায় জিম্বাবুয়ে দল ম্যাচ শেষে ওয়েস্ট ইন্ডিজের খেলোয়াড়দের সঙ্গে হাতও মেলায়নি। হু হু কান্নায় ভেঙে পড়েছে অনেকে। বিদায়টা মেনে নিতে পারছিলেন না তাদের কেউ।

ম্যাচ শেষে দুই ভাষ্যকার ইয়ান বিশপ আর মপু মবঙ্গওয়া ঝাঁজালো বিতর্কেই নেমে পড়েছিলেন। সারা বিশ্বে ক্রিকেট তারকরাও টুইট করছেন। আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে সর্বশেষ এমন আউটের শিকার হওয়া ইংল্যান্ডের জস বাটলার টুইট করে লিখেছেন, যা দেখলাম তা বিশ্বাস হচ্ছে না। এটা লজ্জাজনক। দক্ষিণ আফ্রিকার আলভিরো পিটারসন লিখেছেন, অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে যা হলো এটিকে সমর্থন করতে পারছি না। সম্ভবত কোনো চিন্তা ভাবনা ছাড়াই সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

এদিকে প্রথম দুই ম্যাচে হেরে আগেই দ্বিতীয় রাউন্ডের আশা শেষ হয়ে যাওয়া বর্তমান চ্যাম্পিয়ন দক্ষিণ আফ্রিকা অবশেষে জয় দেখেছে গ্রুপের শেষ ম্যাচে। এ গ্রুপের খেলায় স্কটল্যান্ডকে ১০ উইকেটের বড় ব্যবধানে হারিয়েছে তারা। কক্সবাজারের শেখ কামাল আন্তর্জাতিক স্টেডিয়ামের একাডেমি মাঠে আগে ব্যাট করে ১২৭ রানে অলআউট হয়ে যায় স্কটল্যান্ড। জবাবে কোনো উইকেট না হারিয়েই জয়ের জন্য প্রয়োজনীয় ১২৮ রান তুলে নিয়েছে প্রোটিয়ারা। দুই ওপেনার লিয়াম স্মিথ আর কাইল ভেরেনে সমান ৬৪ রানের ইনিংস খেলে অপরাজিত ছিলেন।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

ক্রীড়া এর অারো খবর