দেশের দ্বিতীয় নভোথিয়েটার রাজশাহীতে
দেশের দ্বিতীয় নভোথিয়েটার রাজশাহীতে
২০১৫-১১-০১ ১২:২৪:৫৬
প্রিন্টঅ-অ+


দেশের দ্বিতীয় নভোথিয়েটার হচ্ছে রাজশাহীতে। এটির নামকরণও হচ্ছে প্রথমটির মতো জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের নামে। দেশের প্রতিটি বিভাগীয় শহরে নভোথিয়েটার স্থাপন পরিকল্পনার অংশ হিসেবে এটি প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নিয়েছে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক মন্ত্রণালয়।
সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গত বছরের এপ্রিলে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিবিষয়ক মন্ত্রণালয় পরিদর্শনকালে দেশের প্রতিটি বিভাগে একটি করে নভোথিয়েটার প্রতিষ্ঠার নির্দেশনা প্রদান করেন। এর পরিপ্রেক্ষিতে রাজধানীর বাইরে প্রথম নভোথিয়েটার রাজশাহীতে প্রতিষ্ঠার উদ্যোগ নেওয়া হয়। সম্প্রতি অনুষ্ঠিত পরিকল্পনা কমিশনের প্রকল্প মূল্যায়ন কমিটির (পিইসি) সভায় ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নভোথিয়েটার, রাজশাহী স্থাপন’ প্রকল্প অনুমোদিত হয়েছে। এটির প্রকল্প ব্যয় ধরা হয়েছে ২২২ কোটি তিন লাখ টাকা আর মেয়াদকাল ২০১৫-২০১৮।
প্রস্তাবিত নভোথিয়েটারে আধুনিক প্রযুক্তির ডিজিটাল প্রজেক্টর সিস্টেমসহ প্ল্যানেটরিয়াম, সায়েন্টিফিক ও ডিজিটাল এক্সিবিটস, ৫ডি সিমিউলেশন থিয়েটার, টেলিস্কোপ, কম্পিউটারাইজড অটোমেটিক টিকেটিং অ্যান্ড ডেকোরেটিং সিস্টেম প্রভৃতি সুবিধা থাকবে। বিশ্বমানের আধুনিক প্রযুক্তির নভোথিয়েটার নির্মাণের জন্য কারিগরি কমিটিকে অভিজ্ঞতা লাভের জন্য দক্ষিণ কোরিয়ায় নভোথিয়েটার পরিদর্শনে যাওয়ার প্রস্তাব পিইসির সভায় অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। নভোথিয়েটারটি প্রতিষ্ঠার লক্ষ্যে মন্ত্রণালয়ে একটি টেকনিক্যাল কমিটি গঠন করা হয়েছে। এ ছাড়া নভোথিয়েটারের নকশা, যন্ত্রপাতির স্পেসিফিকেশন, কমিশনিং, ইনস্টলেশন ইত্যাদির জন্য কনসাল্টিং ফার্ম নিয়োগ দেওয়া হবে বলে জানা গেছে। রাজশাহীর নভোথিয়েটারটি ঢাকার ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নভোথিয়েটার’-এর শাখা হিসেবে পরিচালিত হবে।
এই নভোথিয়েটার প্রতিষ্ঠা প্রসঙ্গে ঢাকার বঙ্গবন্ধু নভোথিয়েটারের মহাপরিচালক আরশাদ হোসেন বলেন, বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি শিক্ষা বিশেষত স্পেস সম্পর্কিত জ্ঞান সর্বসাধারণ ও শিক্ষার্থীদের মধ্যে জনপ্রিয় করা, বিনোদনের মাধ্যমে শিক্ষার সুযোগ সৃষ্টি এবং বিজ্ঞান-সংশ্লিষ্ট কুসংস্কার দূর করার জন্য প্রকল্পটি গ্রহণ করা হয়েছে। এ জন্য প্রধানমন্ত্রীরও গাইডলাইন রয়েছে। প্রধানমন্ত্রী চান বিজ্ঞানমনস্ক আধুনিক নাগরিক তৈরির জন্য বিজ্ঞানের সুযোগ-সুবিধা রাজধানীর মধ্যে সীমাবদ্ধ না রেখে সারা দেশে ছড়িয়ে দিতে।
রাজশাহীতে নভোথিয়েটার হলে এটি হবে দেশের দ্বিতীয় নভোথিয়েটার। দেশের প্রথম ও বর্তমানে একমাত্র নভোথিয়েটার হচ্ছে ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নভোথিয়েটার’। রাজধানীর বিজয় সরণির সামরিক জাদুঘরের পাশে এটি অবস্থিত। ২০০০ সালে নির্মাণ শুরু হয়ে এটি ২০০৪ সালে আনুষ্ঠানিকভাবে চালু হয়। বঙ্গবন্ধু নভোথিয়েটারে প্রতিদিন ছয়টি করে প্রদর্শনী অনুষ্ঠিত হয়। প্রতিটি প্রদর্শনীতে মহাকাশ ও বাংলাদেশের পরিচিতিমূলক পৃথক দুটি চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হয়ে থাকে। প্রতিটি প্রদর্শনীতেই দর্শক সমাগম লক্ষ করা যায়। গত অর্থবছরে নভোথিয়েটারে এক লাখ ৫৫ হাজার দর্শক সমাগম ঘটে এবং এ থেকে প্রায় এক কোটি ২০ লাখ টাকা আয় হয়।
এদিকে প্ল্যানেটেরিয়ামে বঙ্গবন্ধুর জীবনসংগ্রামের ওপর প্রদর্শনীর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে জানা গেছে। এ জন্য নভোথিয়েটার কর্তৃপক্ষ বঙ্গবন্ধুর ওপর ৩০ মিনিটের একটি ডিজিটাল চলচ্চিত্র নির্মাণ করতে যাচ্ছে। ২৭৫ আসনের প্ল্যানেটেরিয়ামেও ডিজিটাল প্রজেকশন সিস্টেম স্থাপন করা হচ্ছে। এই চলচ্চিত্র নির্মিত হলে ঢাকার নভোথিয়েটারের পাশাপাশি রাজশাহীর নভোথিয়েটারেও তা প্রদর্শনের সুযোগ তৈরি হবে।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

স্বদেশ এর অারো খবর