খুলনায় আইইবি-র ৫৮তম কনভেশনের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী
খুলনায় আইইবি-র ৫৮তম কনভেশনের উদ্বোধন করলেন প্রধানমন্ত্রী
২০১৮-০৩-০৪ ১৩:১৮:২০
প্রিন্টঅ-অ+


প্রকৌশলীদের পেশাগত দক্ষতা, সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে সক্রিয় ভূমিকা পালনের আহবান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি বলেন, মহান স্বাধীনতার এ মাসেই আমরা স্বল্পোন্নত দেশ থেকে উন্নয়নশীল দেশে পরিণত হচ্ছি। বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাবে। বাংলাদেশের এই অগ্রযাত্রা কেউ ব্যাহত করতে পারবে না।

শনিবার সকালে খুলনা নগরীর খালিশপুর ঈদগাহ ময়দানে ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশন, বাংলাদেশ (আইইবি)-র ৫৮তম কনভেশনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে তিনি এ সব কথা বলেন। এর আগে সকাল ১০টা ৪৮ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী খুলনার খালিশপুরস্থ বানৌজা তিতুমীরের নেভাল হেলিপ্যাডে অবতরণ করেন।

প্রকৌশলীদের উদ্দেশে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা এমন একটি বাংলাদেশ চাই, যেটি হবে ক্ষুধা, দারিদ্র্য, সন্ত্রাস, জঙ্গীবাদ ও দুর্নীতিমুক্ত। আধুনিক, সমৃদ্ধ ও নিরাপদ বাংলাদেশ। জ্ঞান বিজ্ঞান ও তথ্যপ্রযুক্তির বাংলাদেশ। এ কাজে আপনারাই হচ্ছেন অগ্রসৈনিক। আমরা উন্নত, সমৃদ্ধ দেশ হিসেবে বিশ্বের বুকে মাথা তুলে দাঁড়াতে চাই। উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ে তুলতে আপনারা পেশাগত দক্ষতা, সততা ও নিষ্ঠার সঙ্গে আরও সক্রিয় ভূমিকা পালন করুন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৭ মার্চের ঐতিহাসিক ভাষণের মধ্য দিয়ে বাঙালি জাতিকে গেরিলা যুদ্ধের প্রস্তুতি নেওয়ার নির্দেশ দিয়েছেন ‘ঘরে ঘরে দুর্গ গড়ে তোলো’। তিনি উদ্বুদ্ধ করেছিলেন এই বাঙালি জাতিকে অস্ত্র তুলে নিয়ে শত্রুর মোকাবেলা করবার জন্য। তারই নির্দেশে বাঙালি জাতি অস্ত্র তুলে নিয়ে শত্রুর মোকাবেলা করেছিল এবং ছিনিয়ে এনেছিল আমাদের বিজয়।

তিনি বলেন, পৃথিবীর যে কোনো দেশে আপনারা দেখবেন যখন মিত্র শক্তিরা সহায়তা করেছে তারা কিন্তু সেই দেশ ছেড়ে ফেরত যায়নি। তারা সেই দেশেই ঘাঁটি করে থেকে গিয়েছিল। একমাত্র বাংলাদেশ ছিল ব্যতিক্রম। বঙ্গবন্ধু স্বাধীনচেতা একজন নেতা ছিলেন বলেই তিনি যখন পাকিস্তানের কারাগার থেকে মুক্তি পেয়ে ফিরে আসেন তখনই ভারতের প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধিকে বলেছিলেন আপনার সেনাবাহিনী কবে ফেরত নেবেন? তিনি বলেছিলেন, যেদিন আপনি বলবেন সেদিনই ফেরত যাবে। মাত্র ৩ মাসের মধ্যে এই সেনাবাহিনী ফেরত যায়। ইতিহাসে এর দৃষ্টান্ত বিরল।

বিভিন্ন খাতে সরকারের উন্নয়নের কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিশ্বে বাংলাদেশ আজ উন্নয়নের রোল মডেল। গত বছরে আমাদের প্রবৃদ্ধি ছিল ৭ দশমিক ২৮ শতাংশ। দারিদ্র্যের হার ২২ শতাংশে নেমে এসেছে। বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ ৩৩ বিলিয়ন ডলারের ওপরে। মাথাপিছু আয় এক হাজার ৬১০ মার্কিন ডলার। সব ক্ষেত্রে আমরা ব্যাপক উন্নয়ন করতে সক্ষম হয়েছি।

শেখ হাসিনা বলেন, বাংলাদেশকে ২০২১ সালের মধ্যে মধ্যম আয়ের দেশ এবং ২০৪১ সালের মধ্যে উন্নত-সমৃদ্ধ দেশে পরিণত করতে আমরা বদ্ধপরিকর। বিদ্যুৎকে উন্নয়নের পূর্বশর্ত হিসেবে বিবেচনা করে আমরা এ খাতের উন্নয়নে সর্বোচ্চ আন্তরিকতা নিয়ে কাজ করছি। বিদ্যুৎ উৎপাদন ক্ষমতা এখন ১৬ হাজার ৩৫০ মেগাওয়াট।

তিনি বলেন, আমরা কয়লাভিত্তিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ, পরমাণু বিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণ, ভারতের সঙ্গে আন্তঃগ্রিড নেটওয়ার্ক গড়ে তোলা, ভূটান ও নেপালের সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে জলবিদ্যুৎকেন্দ্র নির্মাণের উদ্যোগ নিয়েছি। যার মাধ্যমে আঞ্চলিক জ্বালানি নিরাপত্তা বলয় গড়ে উঠবে। আমরা ভারত থেকে ৫০০ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ আমদানি করছি। পর্যায়ক্রমে এ আমদানির পরিমাণ একহাজার মেগাওয়াট হবে। নেপাল ও ভূটান থেকে জলবিদ্যুৎ আমদানির পরিকল্পনা করছি।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, এখন বিশ্ব একটি গ্লোবাল ভিলেজে পরিণত হয়েছে। এ বৈশ্বিক গ্রামে এককভাবে উন্নতি করা প্রায় দুঃসাধ্য। অর্থনৈতিকভাবে উন্নতি লাভ করতে হলে আন্তঃমহাদেশীয়, আন্তঃদেশীয় এবং আঞ্চলিক সংযোগ ও সহযোগিতা বাড়াতে হবে।

‘সাসটেইনেবল ডেভেলপমেন্ট ফর হিউম্যান নেচার’ এবং ‘ডিজিটাল টেকনোলজি ফর ট্রান্সফরমিং বাংলাদেশ ইনটু মিডল ইনকাম কান্ট্রি’ শীর্ষক চার দিনব্যাপী কনভেনশনের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ইঞ্জিনিয়ার্স ইনস্টিটিউশনের (আইইবি) প্রেসিডেন্ট প্রকৌশলী মো. কবির আহমেদ ভূইয়া। স্বাগত বক্তৃতা করেন সংগঠনের খুলনা কেন্দ্রের চেয়ারম্যান প্রকৌশলী মো. আব্দুল্লাহ, পিইঞ্জ। বক্তৃতা করেন সংগঠনের কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক প্রকৌশলী মো. আব্দুস সবুর এবং ধন্যবাদ জ্ঞাপন করেন খুলনা কেন্দ্রের সম্পাদক প্রকৌশলী এসএম মনিরুজ্জামান পলাশ।

অনুষ্ঠানে প্রকৌশলী অধ্যাপক ড. এম শামীমুজ্জামান, প্রকৌশলী ড. মো. আবুল কাশেম, প্রকৌশলী খালেদ মাহমুদ অঞ্জন ও প্রকৌশলী মেজর জেনারেল আবুল হোসেনকে ‘আইইবি স্বর্ণ পদক-২০১৭’ এবং শ্রেষ্ঠ কেন্দ্র হিসেবে আইইবি’র চট্টগ্রাম কেন্দ্র ও শ্রেষ্ঠ প্রকৌশল বিভাগ হিসেবে কেমিক্যাল বিভাগকে পুরস্কৃত করা হয়।

এছাড়া অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী ২০১৭ সালের এপ্রিল ও অক্টোবর মাসের প্রকৌশল শিক্ষার্থীদের এএমআইই সনদপাঠ, ৫২ থেকে ৫৬তম পিইঞ্জ ব্যাচের (প্রফেশনাল ইঞ্জিনিয়ার) নিবন্ধন স্বীকৃতি পাঠ এবং মাল্টিমিডিয়ায় আইইবি’র কেন্দ্রীয় কনভেনশন সেন্টারের থ্রিডি মডেল উদ্বোধন করেন। এ সময় শুভেচ্ছা প্রতীক হিসেবে আইইবি’র পক্ষ থেকে প্রধানমন্ত্রীকে কনভেনশন ক্রেস্ট উপহার দেওয়া হয়।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

প্রকৌশল সংবাদ এর অারো খবর