ভুমি ব্যবহার ছাড়পত্র ও নকশা অনুমোদন অনলাইনে
ভুমি ব্যবহার ছাড়পত্র ও নকশা অনুমোদন অনলাইনে
সংগীতা ঘোষ
২০১৫-১২-২৩ ১০:১১:২৫
প্রিন্টঅ-অ+


অনলাইনে ভুমি ব্যবহার ছাড়পত্র ও নকশা অনুমোদন সেবাসমুহ উদ্বোধন করা হয়েছে। বিশ্বব্যাংকের সহযোগী প্রতিষ্ঠান ইন্টারন্যাশনাল ফাইন্যান্স কর্পোরেশন (আইএফসি)-র সহযোগিতায় রাজউক মিলনায়তনে মঙ্গলবার (২২ ডিসেম্বর) দুপুর ১২ টায় এই সেবাসমুহ উদ্বোধন করেন গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার মোশারফ হোসেন।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে ইঞ্জিনিয়ার মোশারফ হোসেন বলেন, এই সেবাটি চালুর মধ্য দিয়ে রাজউক একটা নতুন যুগে প্রবেশ করলো।
তিনি আরও বলেন, সরকার ঘোষিত ডিজিটাল বাংলাদেশ নিয়ে মানুষ একসময় টিটকিরি করে বলতো ডিজিটাল না এনালগ বাংলাদেশ হবে। কিন্তু বর্তমান সরকার তাতে বিন্দুমাত্র বিচলিত না হয়ে বরং সবাইকে সাথে নিয়ে দ্রুততার সাথে কাঙ্খিত লক্ষ্যের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে। রাজউকের ভূমি ছাড়পত্র ও নকশা অনুমোদন অনলাইনে প্রদান তারই নমুনা।

তিনি বাড়ি মালিকদের সমালোচনা করে বলেন, বেজমেন্ট করার অনুমোদন নিয়ে মার্কেট এবং বসত বাড়ির জন্য অনুমোদন নিয়ে গেস্ট হাউস নির্মাণ করা হচ্ছে। সল্প লোকবলের কারণে রাজউক কর্তৃপক্ষ তার যথাযথ দেখভাল করতে পারছে না। সিসি টিভির মাধ্যমে প্রকল্প স্থান সার্বক্ষণিক মনিটরিং করার জন্য এটাও অনলাইনের আওতায় নিয়ে আসার পরামর্শ দেন তিনি।

উত্তরা, ঝিলমিল, পূর্বাচল প্রকল্প ঢাকাকে আরও আধুনিক করে গড়ে তুলবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।

পূর্বাচলে ১৩০ তলা আইকন টাওয়ার স্থাপন করার কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ঢাকাকে বসবাস যোগ্য শহরে পরিণত করার জন্য যে যে পদক্ষেপ নেয়ার প্রয়োজন রাজউকের পক্ষ থেকে তার সবটাই করা হবে।

গৃহায়ন ও গণপূর্ত মন্ত্রনালয়ের সচিব মইনুদ্দিন আব্দুল্লাহ সল্প লোকবল নিয়ে দ্রুততার সাথে উন্নয়ন কর্মকাণ্ড সাধন করার জন্য রাজউকের ভূয়সী প্রশংসা করেন। তিনি প্রথাগত ধ্যান ধারণা থেকে বের হয়ে এসে উন্নত প্রযুক্তির সর্বোচ্চ ব্যবহারের মাধ্যমে বিশ্বের অন্যান্য উন্নত দেশগুলোর মত বাংলাদেশকেও এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার আহবান জানান।

ইন্টারন্যাশনাল ফাইন্যান্স কর্পোরেশন (আইএফসি)-র পক্ষে মিয়া রহমত আলী বলেন, এ প্রজেক্টে সহযোগিতার মাধ্যমে সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার অংশীদার হতে পেরে আমরা গর্বিত।

সভাপতির বক্তব্যে রাজউকের চেয়ারম্যান জয়নাল আবেদীন বলেন, অনলাইনে ভুমি ব্যবহার ছাড়পত্র ও নকশা অনুমোদন সেবাসমুহ উদ্বোধনের মাধ্যমে সরকারের ডিজিটাল বাংলাদেশ গড়ার অঙ্গীকার বাস্তবায়িত হতে যাচ্ছে। এই সেবা নাগরিককে আরও আধুনিক করে তুলবে। এই সেবাটি আপাতত ধানমন্ডি ও লালবাগ অঞ্চলে চালু হলেও দুই তিনমাস অন্তর অন্তর পরিধি বৃদ্ধি করা হবে। ক্রমান্বয়ে সমস্ত ঢাকা শহরকেই এই সেবার আওতায় আনার প্রত্যাশাও ব্যক্ত করেন তিনি।

প্রযুক্তিগত সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠান টেকনোহেভেনের পক্ষ থেকে রুহুল আমিন বলেন, আগে যে সমস্ত সেবা নিতে মানুষকে রাজউকে আসতে হত এখন সেই সেবাগুলো তারা ঘরে বসেই অনলাইনের মাধ্যমে পেয়ে যাবে। আবেদন থেকে অনুমোদন সবই এখন অনলাইনে হবে।

ধানমণ্ডির বায়তুল রউফ মসজিদের ছাড়পত্র প্রদানের মাধ্যমে উদ্বোধন করা হয় এই কর্মসূচীর।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

বিজ্ঞান প্রযুক্তি এর অারো খবর