মানববন্ধনে আমলাদের চক্রান্ত রুখে দেওয়ার আহবান
মানববন্ধনে আমলাদের চক্রান্ত রুখে দেওয়ার আহবান
সংগীতা ঘোষ
২০১৫-১২-২৩ ০৯:৪৭:০৬
প্রিন্টঅ-অ+


কৃত্য পেশাভিত্তিক মন্ত্রনালয় প্রতিষ্ঠা, সিলেকশন গ্রেড এবং টাইম স্কেল পুনর্বহাল, উপজেলা পরিষদে ইউএনওর কর্তৃত্ব বাতিল, ক্যাডার নন-ক্যাডার বৈষম্যের দাবিতে মানববন্ধন কর্মসূচি পালন করেছে প্রকৃচি-বিসিএস সমন্বয় কমিটি।

বুধবার (২৩ ডিসেম্বর) দুপুর ১২টায় জাতীয় প্রেসক্লাবের সামনে বিএমএর সভাপতি ও প্রকৃচি বিসিএস সমন্বয় কমিটির কেন্দ্রীয় স্টিয়ারিং কমিটির সদস্য মাহমুদ হাসানের সভাপতিত্বে এ মানববন্ধন অনুষ্ঠিত হয়।
মানববন্ধনে বক্তব্যে বিএমএর সভাপতি ও প্রকৃচি বিসিএস সমন্বয় কমিটির কেন্দ্রীয় স্টিয়ারিং কমিটির সদস্য মাহমুদ হাসান বলেন, সরকারী কর্মকর্তাদের রাজপথে নামিয়ে এনে আমলারা প্রমাণ করেছে তারা দেশের উন্নয়ন দেখে কষ্ট পাচ্ছে। এই বিষয়টা মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে বুঝতে হবে। আমরা যখন নিরলস পরিশ্রম করে দেশকে অগ্রযাত্রার দিকে নিয়ে যাচ্ছি ঠিক তখনই আমাদের বেতন বৈষম্য, ক্যাডার বৈষম্য সহ বিভিন্ন অনিয়মের মাধ্যমে রাস্তায় নামিয়ে আনার পেছনে আমলাদের যে এক গভীর ষড়যন্ত্র রয়েছে তা অনুধাবন করে এখনই সরকারকে যথাযথ ব্যাবস্থা গ্রহন করতে হবে। সব দাবি মেনে না নেওয়া পর্যন্ত আন্দোলন চালিয়ে যাওয়ার ঘোষণাও দেন তিনি এই মানব বন্ধন থেকে।
প্রকৌশলী মামুনুর রশিদ বলেন, ১৬ কোটি মানুষের অন্ন, বস্ত্র, বাসস্থান, চিকিৎসা নিশ্চিত করে আমরা দেশকে অগ্রগতির দিকে নিয়ে যাচ্ছি। আমাদের কর্মকাণ্ডে খুশি হয়ে সরকার একটা সুন্দর বেতন স্কেল ঘোষণা করেছিলো। কিন্তু তার পরক্ষণেই সরকারের ভেতরে সরকার হয়ে বসে থাকা আমলারা আমাদের কাজকে ক্ষক্তিগ্রস্থ করার জন্য বিভিন্ন কালো আইন পাশ করে যাচ্ছে। তিনি বলেন, আমরা নিরলস পরিশ্রমের মধ্য দিয়ে দেশকে অগ্রগতির শিখরে নিয়ে যাচ্ছি এটা বিশ্বব্যাংকের সহ্য হচ্ছে না। তাই পাকিস্তানি প্রেতাত্মাদের দিয়ে বাংলাদেশকে একটা অকার্যকর রাষ্ট্রে পরিণত করার পায়তারা চলছে। তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে এখনই এর আশু সমাধান করার আহ্বান জানান।
কৃষিবিদ এ্যাসোসিয়েশনের মহাসচিব মোবারক আলী বলেন, আমরা সবাই সরকারের অনুসারী কিন্তু তা সত্ত্বেও মর্যাদার প্রশ্নে আমলারা আমাদের সরকারের মুখোমুখি দাড় করিয়েছে। কারণ ওরা জানে আমদের কাজের গতি কমে গেলেই মুখ থুবড়ে পড়বে দেশের উন্নয়ন দেশের অগ্রযাত্রা। তিনি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীকে অনুরোধ করেন সচিবালয়ের ভেতরে ঘাপটি মেরে থাকা পাকিস্তানী এজেন্ডাদের শনাক্ত করতে। যদি তা না করা যায় তাহলে ২০২১ সালে মধ্যম আয়ের দেশ ও ২০৪১ সালে উন্নত দেশের যে স্বপ্ন আমরা দেখছি তা পুরণ হবে না।
উক্ত মানব বন্ধনে আরও উপস্থিত ছিলেন, এস এম কিবরিয়া, ফিরোজ খান, আতাউর রহমান, শেখ তাজুল ইসলাম তুহিন প্রমুখ।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

স্বদেশ এর অারো খবর