মোবাইল হ্যান্ডসেটের আইএমইআই নম্বর নিবন্ধন ফেব্রুয়ারি থেকে
মোবাইল হ্যান্ডসেটের আইএমইআই নম্বর নিবন্ধন ফেব্রুয়ারি থেকে
২০১৫-১২-১৬ ২১:১৮:৪৮
প্রিন্টঅ-অ+


ফেব্রুয়ারি ২০১৫ থেকে গ্রাহকদের হ্যান্ডসেটের ইন্টারন্যাশনাল মোবাইল ইক্যুইপমেন্ট আইডেনটিটি (আইএমইআই) নম্বর নিবন্ধনের কার্যক্রম শুরু হবে।

তিন বছর আগে মোবাইল ফোন অপারেটরদের এই যন্ত্রটি স্থাপন করতে বিটিআরসি থেকে নির্দেশনা দেওয়া হলেও তা বাস্তবায়ন করেনি কোনো অপারেটর কোম্পানি। মোবাইল সিমের ব্যায়োম্যাট্টিক পদ্ধতির (আঙ্গুলের ছাপ) নিবন্ধনের পর হ্যান্ডসেটের আইএমইআই নম্বর নিবন্ধন হলে একজন নাগরিকের সম্পূর্ণ ডিজিটাল আইডেনটিটি নিশ্চিত হবে বলে মনে করছে সরকার। এক্ষেত্রে এক বা একাধিক সিম ও মোবাইল ফোন ব্যবহারকারীকে নিজ নামেই সিম ও হ্যান্ডসেট নিবন্ধন করে নাগরিক নিরাপত্তা নিশ্চিত করতে হবে।

আগামী এপ্রিল পর্যন্ত আঙ্গুলের ছাপে মোবাইল সিম নিবন্ধনের সময়সীমা বেঁধে দেওয়া হয়েছে। বুধবার টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রক সংস্থা বিটিআরসির কার্যালয়ে সিম নিবন্ধনে আঙ্গুলের ছাপ পদ্ধতির আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন ডাক ও টেলিযোগাযোগ প্রতিমন্ত্রী তারানা হালিম।

গত ২১ অক্টোবর আঙ্গুলের ছাপ দিয়ে পরীক্ষামূলকভাবে এ পদ্ধতির নিবন্ধন শুরু করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়।

সরকারি হিসেব মতে অক্টোবর পর্যন্ত দেশে মোবাইল ফোনের গ্রাহক ১৩ কোটি ১৯ লাখ। সিম ও হ্যান্ডসেটের আইএমইআই নম্বর নিবন্ধন হলে ডিজিটাল আইডেন্টিফিকেশন অনেক সহজ হবে। মোবাইল ফোন ব্যবহার করে যে কোনো ধরনের অপরাধ অনেকাংশে কমে যাবে। যে কোনো ব্যক্তি মোবাইল ফোনের সিম পরিবর্তন করে কথা বলেও তাকে হ্যান্ডসেটের আইএমইআই নম্বর দিয়ে প্রয়োজনে সনাক্ত করা যাবে। যা হবে জাতীয় নিরাপত্তার জন্য মাইলফলক।

আঙ্গুলের ছাপে সিম নিবন্ধন কার্যক্রমের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করে প্রতিমন্ত্রী বলেন, সিম নিবন্ধনের এই পদ্ধতির মাধ্যমে নাগরিকদের ডিজিটাল পরিচয়ের পথে যাত্রা শুরু হলো। আজ থেকে নতুন গ্রাহকদের সিম কেনার সময়ই আঙ্গুলের ছাপ দিতে হবে। পাশাপাশি পুরনো সিমের পুনঃনিবন্ধন চলবে। আগামী এপ্রিল মাসের পর যে কোনো অনিবন্ধিত সিম থাকলে তা বন্ধ করে দেওয়া হবে।

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে বিটিআরসি চেয়ারম্যান শাহজাহান মাহমুদ বলেন, উন্নত দেশের মত ডিজিটাল পদ্ধতিতে নাগরিকদের পরিচয় নিশ্চিত করার কার্যক্রম শুরু করলাম আমারা। আঙ্গুলের ছাপ পদ্ধতিতে সিম নিবন্ধনে সমস্যা হলে ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে সমাধান করা হবে বলেও অপারেটরদের আশ্বাস দেন বিটিআরসির চেয়ারম্যান।

আঙ্গুলের ছাপে নিবন্ধন কার্যক্রমের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে গ্রামীণফোনের সিইও রাজীব শেঠি, বাংলালিংকের সিইও এরিক অস, রবির সিইও সুপুন বীরাসিংহেসহ অপারেটর কোম্পানির জ্যেষ্ঠ কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।

বর্তমানে অপারেটর কোম্পানির হাতে বায়োমেট্রিক সিম নিবন্ধনের জন্য ৮১ হাজার ৫০০ ডিভাইস রয়েছে। এ সংখ্যা বাড়িয়ে এক লাখ দুই হাজার করা হবে বলে জানিয়েছেন বিটিআরসির মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এমদাদ উল বারী।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

বিবিধ এর অারো খবর