নতুন ১০ বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনসহ ২১ প্রস্তাব অনুমোদন
নতুন ১০ বিদ্যুৎকেন্দ্র স্থাপনসহ ২১ প্রস্তাব অনুমোদন
ডেস্ক রিপোর্ট
২০১৭-০৮-১০ ০২:২০:০৩
প্রিন্টঅ-অ+


সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি ৭৮৬ কোটি ৯২ লাখ টাকা ব্যয়ে ১১টি ক্রয় প্রস্তাব এবং বেসরকারিখাতে ১০টি বিদ্যুতকেন্দ্র স্থাপনসহ মোট ২১টি প্রস্তাব অনুমোদন করেছে। এ ছাড়াও দুটি আলাদা প্রস্তাবে ৫০ হাজার টন করে মোট এক লাখ টন চাল ও গম আমদানির প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে।

বুধবার বিকেলে সচিবালয়ে অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের সভাপতিত্বে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে প্রস্তাবগুলো অনুমোদন দেওয়া হয়। বৈঠকে কমিটির সদস্য, মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের সিনিয়র সচিব, সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়ের সচিব ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। বৈঠক শেষে অনুমোদিত ক্রয় প্রস্তাবগুলোর বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন মন্ত্রিপরিষদ বিভাগের অতিরিক্ত সচিব মোস্তাফিজুর রহমান।

অতিরিক্ত সচিব বলেন, ‘আন্তর্জাতিক কোটেশনের মাধ্যমে ২০১৭-২০১৮ অর্থবছরে প্যাকেজ-১ এর আওতায় ৫০ হাজার টন গম আমদানির জন্য ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন দিয়েছে সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি। এ জন্য সরকারের ব্যয় হবে ১০৬ কোটি ৬৪ লাখ টাকা। গম সরবরাহ করবে সুইজারল্যান্ড ভিত্তিক সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স অ্যাস্টোন লিমিটেড। এছাড়াও আন্তর্জাতিক কোটেশনের মাধ্যমে ৫০ হাজার টন সেদ্ধ চাল আমদানির অপর একটি প্রস্তাবও অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এ জন্য সরকারের ব্যয় হবে ১৭৪ কোটি ৯ লাখ টাকা। সরবরাহ করবে সিঙ্গাপুর ভিত্তিক সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠান মেসার্স ওলাম লিমিটেড।’

মোস্তাফিজুর রহমান বলেন, ‘বৈঠকে শিল্প মন্ত্রণালয় কর্তৃক ডিপিএ ফার্টিলাইজার কোম্পানি লিমিটেড থেকে ৩০ হাজার টন ফসফরিক এসিড আমদানির প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এ জন্য ব্যয় হবে ৭৬ কোটি ২৫ লাখ টাকা।

বিভিন্ন দেশের রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান মেন কেপিসি, পিটিএলসিএল, ইসিওসি, পেট্রোচায়না ইউএনআইপিইসি, ভ’মি সিয়াক ও পিটিটিটি থেকে জি-টু-জি ভিত্তিতে জুলাই-ডিসেম্বর সময়ে আমদানির পরিমাণ, প্রিমিয়াম ও মূল্য (রেফারেন্স প্রাইস অনুযায়ী) অনুমোদন দিয়েছে। প্রিমিয়াম নির্ধারণ করা হয়েছে ২৬ দশমিক ৪ ডলার।

চিটাগাং পোর্ট ট্রেড ফ্যাসিলিটেশন প্রজেক্টের আওতায় সরকারি অর্থায়নে ক্রয় করা ৪টি কন্টেইনার স্ক্যানার ও ১০টি রেডিয়েশন ডিটেকশন যন্ত্রপাতির পরিচালনা ও সংরক্ষণ সংক্রান্ত চুক্তির মেয়াদ এক বছর বাড়ানোর প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এ জন্য ব্যয় হবে ১১ কোটি ৪২ লাখ ৯১ হাজার টাকা।

পূর্বাচল নতুন শহর প্রকল্পের বিভিন্ন সেক্টরে খাল ও লেকের উপর অ্যাপ্রোচ রোডসহ ব্রিজ নির্মাণ কাজ (ক) প্যাকেজ : বিআরসি-৫, লট-০৫ এবং (খ) প্যাকেজ : বিআরসি-৬, লট-১ এর ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। দুটি প্যাকেজে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করা হবে। এতে ব্যয় হবে ২০ কোটি ৩৬ লাখ ৯৭ হাজার টাকা।

জামালপুর শহরে ‘নগর স্থাপত্যের পুনঃসাংস্কৃতিক কেন্দ্র’ প্রকল্পের আওতায় বিভিন্ন স্থাপনা নির্মাণের একটি প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রকল্পটি বাস্তবায়নে মোট ব্যয় হবে ১০৫ কোটি টাকা। ঠিকাদার প্রতিষ্ঠান টিসিএল-এসটিএন-এমএম যৌথভাবে প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে।

বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি) কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন ‘জাতীয় তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি অবকাঠামো উন্নয়ন (ইনফো-সরকার-৩য় পর্যায়)’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় ১২৯৩টি ইউনিয়নে নেটওয়ার্ক টপোলজি, সার্ভে ডিজাইন, ইনস্টলেশন, টেস্টিং ও কমিশনিং অব অ্যাক্টিভ ডিভাইস, অপটিক্যাল ফাইবার ক্যাবল স্থাপন এবং পিওপি রেনোভেশন কাজের ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রকল্পে মোট ব্যয় হবে ৮৮ কোটি ৫২ লাখ টাকা। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে সামিট কনসোর্টিয়াম।’

অতিরিক্ত সচিব বলেন, ‘বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি) কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন একই প্রকল্পের আওতায় আরো ১৩০৭টি ইউনিয়নে নেটওয়ার্ক টপোলজি, সার্ভে ডিজাইন, ইনস্টলেশন, টেস্টিং ও কমিশনিং অব অ্যাক্টিভ ডিভাইস, অপটিক্যাল ফাইবার ক্যাবল স্থাপন এবং পিওপি রেনোভেশন কাজের ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রকল্পে মোট ব্যয় হবে ১৮৯ কোটি ৯৪ লাখ টাকা। প্রকল্পটি বাস্তবায়ন করবে মেসার্স ফাইবার হোমস।

বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের অধীনে বাস্তবায়নাধীন ‘লক্ষীপুর জেলার অন্তর্গত রামগতি ও কমলনগর উপজেলা এবং তৎসংলগ্ন এলাকাকে মেঘনা নদীর ভাঙ্গন থেকে রক্ষা করার জন্য নদী তীর সংরক্ষণ প্রকল্প’ শীর্ষক প্রকল্পের আওতায় বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে প্রদত্ত কার্যাদেশের ভেরিয়েশনের প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। প্রকল্পে কাজ বাড়ায় ব্যয় বেড়েছে দুই কোটি ৩৭ লাখ টাকা।

বাংলাদেশ পনি উন্নয়ন বোর্ড কর্তৃক বাস্তবায়নাধীন ‘কক্সবাজার জেলার টেকনাফস্থ শাহপরীর দ্বীপে পোল্ডার নং-৬৮ এর সি-ডাইক অংশের বাঁধ পুনঃনির্মাণ ও প্রতিরক্ষা কাজ বাস্তবায়ন’ শীর্ষক প্রকল্পের অনুমোদিত ডিপিপি’র সংস্থান অনুযায়ী ৫টি প্যাকেজের মাধ্যমে সম্পাদনযোগ্য নির্মাণ ও পূর্ত কাজসমূহ সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে বাংলাদেশ নৌবাহিনী কর্তৃক পরিচালিত ডকইয়ার্ড অ্যান্ড ইঞ্জিনিয়ারিং ওয়ার্কস লিমিটেডের মাধ্যমে বাস্তবায়নের একটি প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এজন্য ব্যয় হবে ১০৪ কোটি ৯৭ লাখ টাকা।

এছাড়া দেশের বিভিন্ন স্থানে বেসরকারি উদ্যোগে ডিজেল ও ফার্নেস ওয়েল ভিত্তিক ১০টি বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র স্থাপনের ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদন দেওয়া হয়েছে। এসব বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র থেকে মোট ১৭৬৮ মেগাওয়াট বিদ্যুৎ উৎপাদন হবে।

এর আগে অর্থমন্ত্রীর সভাপতিত্বে অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠক অনুষ্ঠিত হয়। বৈঠকে বঙ্গবন্ধু সেতুর টোল আদায় কার্যক্রম পরিচালনার জন্য সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে অন্তর্বর্তীকালীন ছয় মাসের জন্য মেইনটেন্যান্স সার্ভিসসহ বিআরটিএ- এর ডাটাবেজের মাধ্যমে রিয়েল টাইম অনলাইন ওয়েব বেজড মডার্ন টোল কালেকশন সিস্টেম ক্রয়ের প্রস্তাবসহ মোট তিনটি প্রস্তাব নীতিগত অনুমোদন দেওয়া হয়।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

স্বদেশ এর অারো খবর