বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার শুভেচ্ছা দূত হলেন সায়মা ওয়াজেদ
বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার শুভেচ্ছা দূত হলেন সায়মা ওয়াজেদ
২০১৭-০৭-০৬ ২০:২৩:০৫
প্রিন্টঅ-অ+


প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কন্যা সায়মা ওয়াজেদ হোসেন দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া অঞ্চলে বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার (ডব্লিউএইচও) অটিজম বিষয়ক শুভেচ্ছা দূত হিসেবে দায়িত্ব পেয়েছেন। বৃহস্পতিবার ডব্লিউএইচও এর দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার আঞ্চলিক শাখা থেকে এক বিবৃতিতে বিষয়টি জানানো হয়েছে।
সায়মা ওয়াজেদ বাংলাদেশের অটিজম বিষয়ক জাতীয় উপদেষ্টা পরিষদের সদস্য। অটিজম সেবার প্রচারণায় বিশ্বজুড়েই তিনি পরিচিত।

বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ার আঞ্চলিক পরিচালক ড. পুনম ক্ষেত্রপাল সিং বিবৃতিতে বলেন, ‘অটিজম মোকাবিলার ক্ষেত্রে সায়মা হোসেনের উৎসাহ ও ধারাবাহিক চেষ্টা প্রশংসনীয়। তিনি অটিস্টিক মানুষের দুর্ভোগের বিষয়ে সচেতনতা সৃষ্টি ও তা লাঘবের জন্য পদক্ষেপ গ্রহণে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখছেন।’

ডব্লিউএইচও এর সঙ্গে সায়মা ওয়াজেদের এ সহযোগিতার ক্ষেত্র বাড়াতে আগামী দুই বছরের জন্য এ অঞ্চলে ‘শুভেচ্ছা দূত’ হিসেবে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে বলে বিবৃতিতে উল্লেখ করেছেন ড. পুনম।

এর আগে বাংলাদেশে অটিজম বিষয়ক সচেতনতা সৃষ্টির জন্য সায়মা ওয়াজেদকে ২০১৪ সালের সেপ্টেম্বরে ডব্লিউএইচও’র দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়া আঞ্চলিক কার্যালয় ‘এক্সেলেন্স ইন পাবলিক হেলথ অ্যাওয়ার্ড’ প্রদান করে। আর ২০১৬ সালের মে মাসে অটিজম বিষয়ক বিশ্বস্বাস্থ্য সংস্থার আঞ্চলিক চ্যাম্পিয়ন হিসেবে স্বীকৃতি দেওয়া হয়।

এছাড়া, ২০১৬ সালে সায়মা ওয়াজেদের গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকায় ভুটানের থিম্পুতে অটিজমসহ মানসিক রোগের ওপর একটি সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়। এটি ‘থিম্পু ঘোষণা’ হিসেবে পরিচিতি। এতে স্বাস্থ্য, শিক্ষা ও সামাজিক সুরক্ষা খাতে কার্যকর সেবা ও অটিজমসহ অন্যান্য নিউরো ডিসঅর্ডারে আক্রান্তদের সহায়তায় জাতীয় সক্ষমতা জোরদার করার অগ্রাধিকার রেখে সমাজ ও সরকারের ভূমিকার দাবি করা হয়েছে।

বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার আঞ্চলিক পরিচালক জানান, শুভেচ্ছা দূত হিসেবে সায়মা ওয়াজেদ ‘থিম্পু ঘোষণা’র প্রসারে কাজ করবেন। থিম্পু ঘোষণার পাশাপাশি সায়মা ডব্লিউএইচও’র অটিজম বিষয়ক আঞ্চলিক কৌশল বাস্তবায়নে ফ্রেমওয়ার্ক গড়ে তোলা, মানসিক স্বাস্থ্য সেবা ও মানসিক-সামাজিক সহযোগিতার ক্ষেত্রে জাতীয় অ্যাকশন প্ল্যান তৈরির কাজে অবদান রাখবেন।

বিবৃতিতে বলা হয়েছে, নিম্ন ও মধ্য আয়ের দেশগুলোতে প্রতি দশ হাজারে ১৬০ জন শিশু অটিজম দ্বারা প্রভাবিত। অটিজম দ্বারা প্রভাবিত শিশুরা প্রয়োজনীয় চিকিৎসা সেবা পায় না। বিভিন্ন ক্ষেত্রে বৈষম্য ও প্রতিবন্ধকতার মুখে পড়তে হয় তাদের।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

স্বাস্থ্য এর অারো খবর