স্বল্পমূল্যে ইন্টারনেটে উচ্চগতি জন্য বিশেষ কার্ড পাবে ফ্রিল্যান্সাররা
স্বল্পমূল্যে ইন্টারনেটে উচ্চগতি জন্য বিশেষ কার্ড পাবে ফ্রিল্যান্সাররা
সংগীতা ঘোষ
২০১৫-১২-০৮ ১৯:৪৭:৩০
প্রিন্টঅ-অ+


তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক এমপি জানিয়েছেন ফ্রিল্যান্সারদের স্বল্পমূল্যে উচ্চগতি সম্পন্ন ইন্টারনেট সেবার বিশেষ কার্ড দেওয়া হবে। রাজধানীর খামারবাড়ি কৃষিবিদ ইনস্টিটিউশন বাংলাদেশ (কেআইবি) মিলনায়তনে মঙ্গলবার (০৮ ডিসেম্বর) দুপুরে ফ্রিল্যান্সার সম্মেলনে তিনি এ কথা বলেন।

বিল্যান্সার ও ট্রান্স-পে’র সহযোগিতায় ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল একাডেমি (ডিআইএ) এ সম্মেলনের আয়োজন করে। সম্মেলনে এক হাজার ফ্রিল্যান্সার অংশ নেন। ডিআইটি’র পক্ষ থেকে সফটওয়্যার, গ্রাফিক ডিজাইন, মোবাইল অ্যাপস, অনলাইন ব্লগিং, কনটেন্ট, স্ট্যাট আপ কোম্পানিসহ কয়েকটি ক্যাটাগরিতে ৭৭ জন তরুণ উদ্যোক্তাকে সম্মাননা দেওয়া হয়।

তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, ইন্টারনেটের কমগতির কারণে অনেক সময় ফ্রিল্যান্সারদের কাজে অসুবিধা হয়। ইন্টারনেট প্রোভাইডারদের সঙ্গে একটি চুক্তি করা হচ্ছে। এ চুক্তির ফলে ফ্রিল্যান্সাররা স্বল্পমূল্যে উচ্চগতি সম্পন্ন ইন্টারনেট সেবার বিশেষ কার্ড পাবে।

এছাড়া, তথ্যপ্রযুক্তি খাতে উদ্যোক্তা বাড়াতে ‘আর্ন অ্যান্ড পে’ নামের একটি নতুন প্রকল্প হাতে নিয়েছে মন্ত্রণালয়। এ প্রকল্পের আওতায় সিঙ্গেল ডিজিটের ঋণ দেওয়া হবে। ফলে তথ্যপ্রযুক্তি খাতে উদ্যোক্তা তৈরি হবে।

তিনি বলেন, দেশে প্রতিবছর আড়াই লাখ গ্রাজুয়েশন (স্নাতক) পাস ছেলেমেয়ে বের হচ্ছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার প্রতিশ্রুতি ছিল প্রতিটি ঘরে একজনের কর্মসংস্থান করা। ফ্রিল্যান্সিং এর মাধ্যমে প্রতি ঘরে অন্তত একজন করে হলেও কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা হবে।

তথ্য প্রযুক্তি খাতে তরুণ-তরুণীদের কর্মসংস্থানের ব্যবস্থা করতে ২০২১ সালের মধ্যে দেশের সব শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে উচ্চ গতিসম্পন্ন ইন্টানেট সেবা পৌঁছে দেওয়ার আশ্বাস দেন পলক।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মানে আইসিটি মন্ত্রণালয় ১ লাখ তরুণ-তরুণীকে তথ্যপ্রযুক্তি নির্ভর প্রশিক্ষণ দেবে। এর মাধ্যমে আগামী ৩ বছরে ১০ লাখ তরুণ-তরুণীর কর্মসংস্থান সৃষ্টি হবে। এর মাধ্যমে শ্রম নির্ভর অর্থনীতি থেকে জ্ঞান নির্ভর অর্থনীতিতে প্রবেশ করবে বাংলাদেশ।

অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন ড্যাফোডিল গ্রুপের চেয়ারম্যান মো. সবুর খান। অনুষ্ঠানের দ্বিতীয় পর্বে টেকনিক্যাল সেশন শুরু হয়। এতে দেশের শীর্ষস্থানীয় ফ্রিল্যান্সাররা বক্তব্য রাখবেন।

সম্মেলনে বিশেষ অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন- অ্যাকসেঞ্চার জাপান এর সাবেক প্রেসিডেন্ট ক্লাইড উনো, বাংলাদেশ কম্পিউটার সমিতি (বিসিএস) সভাপতি এএইচএম মাহফুজুল আরিফ, বাংলাদেশ অ্যাসোসিয়েশন অব কলসেন্টার অ্যান্ড আউটসোর্সিং (বিএসিসিও) সভাপতি আহমেদুল হক ববি।

সম্মেলনে মুলপ্রবন্ধ উপস্থাপন করেন ওয়ার্ল্ড ইনফরমেশন টেকনোলজি সার্ভিসেস এলায়েন্স (ডব্লিউটিএসএ) প্রেসিডেন্ট সান্তিয়াগো গোতিয়ারেজ।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

বিজ্ঞান প্রযুক্তি এর অারো খবর