বিতর্কিত দ্বিস্তর টেস্ট কাঠামো আবারও আসছে!
বিতর্কিত দ্বিস্তর টেস্ট কাঠামো আবারও আসছে!
২০১৭-০১-২৯ ১৮:৪৯:২৭
প্রিন্টঅ-অ+


গত বছর সেপ্টেম্বরে ভারতীয় ক্রিকেট বোর্ডের বিরোধিতার কারণে দ্বিস্তর বিশিষ্ট টেস্ট কাঠামো স্থগিত করেছিল আইসিসি। তবে ছয় মাস যেতে না যেতেই আবার সেই শঙ্কা দানা বাঁধতে শুরু করেছে। জানা গেছে, আইসিসির আগামী বৈঠকে বিতর্কিত দ্বিস্তর টেস্ট কাঠামো নতুন করে টেবিলে তোলা হবে। বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ড (বিসিবি) কর্মকর্তাদের কাছে দ্বিস্তর টেস্ট কাঠামোর নতুন খসড়া প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে বলেও জানা গেছে।

২ ও ৩ ফেব্রুয়ারি দুবাইয়ে আইসিসির পূর্ণাঙ্গ সদস্য দেশগুলোর বোর্ডের প্রধান নির্বাহীদের সভা হবে। এরপর ৪ ও ৫ ফেব্রুয়ারি মধ্যপ্রাচ্যের এ শহরেই আইসিসির বোর্ডসভা। দুই সভাতেই নতুন দ্বিস্তর টেস্ট কাঠামো নিয়ে আলোচনা হতে পারে। বিসিবি কর্তারা নতুন প্রস্তাবনা নিয়ে এখনও ভালোভাবে ওয়াকিবহাল নন। প্রস্তাবনাটি সম্পূর্ণভাবে খতিয়ে দেখার পরই তারা বুঝতে পারবেন। তাই এ বিষয়ে এখনই কোনো মন্তব্য করতে তারা রাজি নন বিসিবির প্রধান নির্বাহী নিজামউদ্দিন চৌধুরী, প্রস্তাবনার খসড়া আমরা হাতে পেয়েছি মাত্র। তবে আমি এখনও প্রস্তাবনাটি পুরোপুরি পড়ে দেখিনি। তবে সামান্য চোখ বুলিয়ে যেটা বুঝতে পেরেছি তা হলো, ১০টি টেস্ট খেলুড়ে দেশকে দুই ভাগে ভাগ করে আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ আয়োজন করতে চাইছে। তবে এখানে অনেক বিষয় নিয়ে আলোচনা করতে হবে। বৈঠকে প্রেজেন্টশন পর্যন্ত আমাদের অপেক্ষা করতে হবে। এর আগে বিষয়টি নিয়ে কোনো মন্তব্য করা সমীচীন হবে না বলেই আমি মনে করি।

তবে প্রধান নির্বাহী নতুন দ্বিস্তর নিয়ে কোনো মন্তব্য না করলেও বিসিবির এক কর্মকর্তা জানিয়েছেন, প্রস্তাবনাটি আগের চেয়েও ভয়ানক। র‌্যাংকিংয়ের শীর্ষে থাকা নয় দলকে নিয়ে প্রথম টেস্ট টায়ার এবং দশ নম্বর টেস্ট খেলুড়ে দেশের সঙ্গে আইসিসির দুই সহযোগী সদস্যকে নিয়ে হবে দ্বিতীয় টায়ার। প্রথম টায়ারে যারা নবম স্থানে থাকবেন তারা রেলিগেটেড হয়ে যাবে। আর তিন দলের দ্বিতীয় টায়ারের চ্যাম্পিয়ন দল প্রথম টায়ারে প্রমোশন পাবে। বাংলাদেশ বর্তমানে টেস্ট র‌্যাংকিংয়ে নবম স্থানে রয়েছে। এ প্রস্তাব কার্যকর হলে বাংলাদেশ রেলিগেটেড হয়ে যাবে বলেই ভয়টা পাচ্ছেন বিসিবি কর্মকর্তারা। আগের প্রস্তাবে শীর্ষ সাত দলকে নিয়ে প্রথম টায়ার এবং পরের পাঁচ দলকে নিয়ে দ্বিতীয় টায়ার করার পরিকল্পনা ছিল আইসিসির। তবে বাংলাদেশ, ভারত, শ্রীলংকা ও জিম্বাবুয়ের বিরোধিতায় স্থগিত হয়েছিল প্রস্তাবনাটি।

অবস্থাদৃষ্টে মনে হচ্ছে, নতুন দ্বিস্তর টেস্ট প্রস্তাবেরও বিরুদ্ধে দাঁড়াতে হবে বিসিবিকে। এরই মধ্যে বিসিবি সভাপতি নাজমুল হাসান পাপনের কথায় সে ইঙ্গিত মিলেছে। তিনি স্পষ্টতই বলেছেন, বাংলাদেশের ক্রিকেটের জন্য ক্ষতিকর কোনো কিছুই তারা মেনে নেবেন না। তিনি বলেন, দ্বিস্তরের মতো কোনো পরিকল্পনার সঙ্গেই আমরা একমত হবো না। দেখা যাক, নতুন প্রস্তাবনায় কী আসে, এরপর আমরা সিদ্ধান্ত নেব। আগে কেউই আমাদের সঙ্গে টেস্ট খেলতে চাইত না। তবে এখন পরিস্থিতি পাল্টেছে। যদি র‌্যাংকিংয়ে আমাদের চেয়ে এগিয়ে থাকা দলগুলোর সঙ্গে আমরা টেস্ট খেলতে পারি তাহলেই কেবল আমরা প্রস্তাবনাটি নিয়ে ভাবব। যার মানে দাঁড়ায়, বাংলাদেশের ক্রিকেটের জন্য আবারও কঠিন সময় আসছে।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

ক্রীড়া এর অারো খবর