বিদ্যুৎ-চালিত সেরা গাড়ির জন্য বাংলাদেশি প্রকৌশলীরা পুরস্কৃত
বিদ্যুৎ-চালিত সেরা গাড়ির জন্য বাংলাদেশি প্রকৌশলীরা পুরস্কৃত
ডেস্ক রিপোর্ট
২০১৭-০১-১৯ ২১:৫৪:২০
প্রিন্টঅ-অ+


নয়া প্রযুক্তির শেভ্রোলেট ‘বোল্ট’ উত্তর আমেরিকার (২০১৭) সেরা গাড়ি নির্বাচিত হয়েছে। জেনারেল মোটরসের বোল্ট পুরোপুরি বিদ্যুৎ​–চালিত (ইলেকট্রিক) গাড়ি। এ গাড়ি একবার চার্জ করলে ২৩৮ মাইল (৩৮৩ কিলোমিটার) যাবে। বর্তমানে ইলেকট্রিক গাড়ির জগতে এত কম মূল্যে এত দূরত্বের রেকর্ড আগে কোনো গাড়ি প্রস্তুতকারী ছুঁতে পারেনি। দামের দিক দিয়েও এ গাড়ি মধ্যবিত্তের ক্রয়সীমার মধ্যে।

গত ৯ জানুয়ারি ডেট্রোয়েটে উত্তর আমেরিকা অটো শো থেকে বোল্টের ‘কার অব দ্য ইয়ার’ নির্বাচিত হওয়ার ঘোষণা আসে। ইতিপূর্বে বোল্ট ‘মোটর ট্রেন্ড কার অব দ্য ইয়ার’ ও লস অ্যাঞ্জেলস অটো শোতে ‘গ্রিন কার অব দ্য ইয়ার’ টাইটেল পায়।

শেভি বোল্টের ইন্টেরিয়রপুরস্কারপ্রাপ্ত এ গাড়ির ডিজাইন, ডেভেলপমেন্ট, ম্যানুফ্যাকচারিং ও লঞ্চে উল্লেখযোগ্যসংখ্যক বাংলাদেশি প্রকৌশলীরা কাজ করেছেন। তাদের আবদান উল্লেখ করার মতো। সেরা গবেষণাপত্রের পুরস্কারও জিতেছেন বাংলাদেশি প্রকৌশলীরা। মালিক হয়েছেন পেটেন্টের, যা গর্ব করার মতো।

জেনারেল মোটরসের টেকনিক্যাল ফেলো ড. খাজা রাহমান ও ড. ফয়েজুল মোমেন যৌথভাবে কাজ করেছেন মোটর ডিজাইনে। ড. নাজমুল আনোয়ার ও ড. সৈয়দ জাফরি আল কাদরী যৌথভাবে করেছেন পাওয়ার ইলেকট্রনিক ও ইনভার্টার ডিজাইন। গাড়ি চার্জের টেস্ট ও ভেলিডেশনে ছিলেন করবী বাশার, মোহাম্মদ শহিদুল খান রুবেল ও নিপা দে।
খাজা রাহমান ও সৈয়দ জাফরি আল কাদরীগাড়ির নির্মাণ ও বাজারজাতকরণের বিভিন্ন স্তরেও আছে বাংলাদেশি প্রকৌশলীদের হাতের ছোঁয়া। নতুন ইলেকট্রিক গাড়ির প্রযুক্তি তাই আলোর দিশারি হিসেবে পেটেন্টের মালিক হয়েছেন খাজা রাহমান ও জাফরী আল কাদরীসহ বেশ কয়েকজন। আইইইই কনফারেন্সে মোটর ডিজাইনের জন্য বেষ্ট গবেষণাপত্রের পুরস্কার জিতেছেন ফয়েজুল মোমেন ও খাজা রাহমান। গবেষণাপত্রের বিষয়বস্তু ছিল উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন ইলেকট্রিক মোটর ও ইনভার্টারসহ বেশ কিছু যন্ত্রাংশ। যা একবার চার্জে ২৪০ মাইলের বেশি চলতে পারে।

বর্তমান বাজারে সম্পূর্ণ ইলেকট্রিক গাড়ির মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে জার্মান কোম্পানির বিএমডব্লিউ আই-৩। এই গাড়ি ফুল চার্জ দিলে চলে ৮১ মাইল। দাম কর বাদে ৪৩ হাজার ৩০০ ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৩৫ লাখ টাকা)। বিএমডব্লিউ আই-৮ চলে ২৫ মাইল। দাম কর বাদে ১ লাখ ৩৭ হাজার ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ১ কোটি ৮ লাখ টাকা)। ইতালির ফিয়াট ৫০০–ই চলে ৮৪ মাইল। দাম কর বাদে ৩২ হাজার ৬০০ ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ২৬ লাখ টাকা)। ফোর্ড ফোকাস ইলেকট্রিক চলে ১৯ মাইল। দাম কর বাদে ২৯ হাজার ২০০ ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ১৮ লাখ টাকা)। দক্ষিণ কোরিয়ার কিয়া সউল যায় ৯৩ মাইল। দাম কর বাদে ৩৪ হাজার ৫০০ ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ২২ লাখ টাকা)।

সৈয়দ জাফরি আল কাদরী (বাঁয়ে)। ডানে তাঁর পদকদূরত্বের দিক দিয়ে তৃতীয় অবস্থানে নিশান লিফ। চলে ১০৭ মাইল। দাম ২৯ হাজার ডলার। দ্বিতীয় টেস্লা মডেল এস। চলে ১১৫ মাইল। কিন্তু দাম ৭১ হাজার ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ৫৬ লাখ টাকা)। অন্যদিকে শেভি বোল্ট যায় ২৩৮ মাইল এবং দাম ৩৭ হাজার ৫০০ ডলার (বাংলাদেশি মুদ্রায় প্রায় ২৯ লাখ ৫০ হাজার টাকা)। এর মধ্যে মার্কিন সরকার পরিবেশবান্ধব গাড়ির জন্য ৭ হাজার ৫০০ ডলার ভর্তুকি দেবে।

শেভি বোল্টের বিভিন্ন নতুন প্রযুক্তি উদ্ভাবনে পেটেন্টের অধিকারী জাফরী জানালেন, ইলেকট্রিক গাড়ি কেনার ক্ষেত্রে সাধারণত ভোক্তাদের দুটি ভীতি কাজ করে। প্রথমত দূরত্ব ভীতি (রেঞ্জ অ্যাংজাইটি)। দ্বিতীয়ত উচ্চমূল্য। দূরত্ব ভীতি হলো ব্যাটারির চার্জ পথের মাঝে ফুরিয়ে গেলে কি হবে? এ জন্য সবাই একবার চার্জ করলে যেন গাড়ি অনেক দূরত্বে যেতে পারে সেরকম গাড়ি কিনতে চান।

কারণ উচ্চক্ষমতাসম্পন্ন গাড়ির ব্যাটারি চার্জ করতে অনেক সময় লাগে (৮ ঘণ্টা)। যেখানে পেট্রলচালিত গাড়ির ট্যাংক ভরতে পাঁচ মিনিটের বেশি লাগে না। প্রতিদিন বাসাবাড়ির সাধারণ প্লাগ ব্যবহার করে চার্জ করে প্রতি ঘণ্টায় ২৫ মাইল রেঞ্জ পাওয়া গেলেও ডিলারের কাছে দ্রুত চার্জ করার একটি যন্ত্র থাকে (ফাস্ট ডিসি চার্জ)। সেখানে মাত্র ৩০ মিনিটে ৯০ মাইল রেঞ্জ পাওয়া যেতে পারে।

বোল্টের সাফল্যের কারণ এই দুটি ক্ষেত্রেই বোল্ট ভালো সমাধান দিয়েছে। দূরপাল্লার ব্যাটারি সত্ত্বেও এর দাম কিন্তু প্রতিদ্বন্দ্বীর (টেসলা) চেয়ে অর্ধেক।

সাধারণ মানুষের জন্য ইলেকট্রিক গাড়ি বানানোর জন্য সবাই কাজ করছে। কিন্তু পারফরমেন্স (দূরত্ব ও উপভোগ্য ড্রাইভিং) আর কম দাম দুটো একসঙ্গে এখন পর্যন্ত কেউ দিতে পারেনি। এ ক্ষেত্রে একমাত্র বাস্তবসম্মত ব্যতিক্রম বোল্ট। এটাই বোল্টের প্রতি মানুষের আগ্রহের মূল কারণ।
ফয়েজুল মোমেন (বাঁয়ে)। ডানে তাঁর পদকআগামী বছর বা তারপরে আরও অনেকেই এ ধরনের গাড়ি বাজারজাত শুরু করবে কিন্তু তার আগ পর্যন্ত এই মার্কেটে বোল্ট একাই আধিপত্য করবে।

অন্যদিকে বোল্টের ব্যাটারি (এলজি কেমিক্যাল) এবং পাওয়ার ইলেকট্রনিকসে জেনারেল মোটরসের বেশ কিছু উদ্ভাবন ইলেকট্রিক গাড়ির জগৎটাকেই ভবিষ্যতে পরিবর্তন করে দিতে পারে। একটা সময় ছিল ইলেকট্রিক গাড়ি ছিল উচ্চবিত্তদের শখের বস্তু, পরিবারের তৃতীয় বা দ্বিতীয় গাড়ি। কিন্তু বোল্ট হতে পারে মধ্যবিত্ত পরিবারের একমাত্র গাড়ি। বিক্রয় বেড়ে গেলে যন্ত্রাংশের দাম আরও কম হতে পারে ভবিষ্যতে।
ফয়েজ মোমেনের সাফল্যে বাংলাদেশি কমিউনিটির সকলে অভিনন্দন জানিয়েছেন। এ সম্পর্কে জেনারেল মোটরসের প্রকৌশলী ব্যবস্থাপক কুদরাত ইলাহি ফয়সাল জানালেন, বোল্টের সাফল্যে জিএম পরিবার এবং বাংলাদেশি প্রকৌশলী যারা জিএম এ চাকরিরত সকলকে গর্বিত করেছে।

স্পোর্ট লুক ২০০ হর্স পাওয়ার ক্ষমতার মাত্র ৬.৩ সেকেন্ডে ০ থেকে ৬০ মাইল পার আওয়ার স্পিড তোলা যায়। ইন্টেরিয়র এক কথায় অসাধারণ। মসৃণ, স্পোর্টিং ও নিঃশব্দ ফিল পেতে এ গাড়ি অপ্রতিদ্বন্দ্বী। ইতিমধ্যে ক্যালিফোর্নিয়া ও অরিগনসহ বেশ কিছু অঙ্গরাজ্যে এ গাড়ি বাজারজাত হয়েছে। চলতি বছরের মাঝামাঝি সময়ে এ গাড়ি সবখানে পাওয়া যাবে বলে জানা যায়।
(সাইফুল আজম সিদ্দিকী: গাড়ি প্রকৌশলী, মিশিগান, যুক্তরাষ্ট্র)

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

ফিচার এর অারো খবর