দেশজুড়ে প্রোগ্রামিং নিয়ে নানা আয়োজন
দেশজুড়ে প্রোগ্রামিং নিয়ে নানা আয়োজন
সংগীতা ঘোষ
২০১৫-১২-০৬ ০৭:১৩:০৬
প্রিন্টঅ-অ+


কম্পিউটার বিজ্ঞান শিক্ষা সপ্তাহ পালন উপলক্ষে দেশজুড়ে প্রোগ্রামিং নিয়ে নানা ধরনের আয়োজনের উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ ওপেন সোর্স নেটওয়ার্ক (বিডিওএসএন)। এর মধ্যে আছে নারীদের জন্য প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা ‘ন্যাশনাল গার্লস প্রোগ্রামিং কনটেস্ট’, এক ঘণ্টার প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা ‘আওয়ার অব কোড’ এবং অনলাইন প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা।

এসব প্রতিযোগিতা ছাড়াও প্রোগ্রামিং নিয়ে আড্ডা, সভা-সেমিনার ও বিভিন্ন বিষয়ে কর্মশালাও করবে বিডিওএসএন। সপ্তাহব্যাপী বিডিওএসএনের এই আয়োজনের সাথে সহ-আয়োজক হিসেবে থাকছে বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি)। শনিবার রাজধানীর আগারগাওয়ের বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিল (বিসিসি) ভবনে সংবাদ সম্মেলনে এসব আয়োজন নিয়ে বিস্তারিত তুলে ধরা হয়।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ইতোমধ্যে ন্যাশনাল গার্লস প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতায় ৫৩টি দল নিবন্ধন করেছে। এখানে মোট ৬৫টি দল অংশ নেওয়ার সুযোগ পাবে। আর অনলাইন প্রতিযোগিতায় ৮০০ এর বেশি শিক্ষার্থী অংশগ্রহণ করবে।

দেশের ৪০টি মাধ্যমিক বিদ্যালয় ও ১০টি বিশ্ববিদ্যালয়ে এই প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়াও বাংলাদেশ কম্পিউটার কাউন্সিলের ছয়টি আঞ্চলিক কার্যালয়েও প্রোগ্রামিং নিয়ে বিভিন্ন আয়োজন থাকবে।

তবে সপ্তাহব্যাপী আয়োজনের কথা বলা হলেও এর কার্যক্রম সারা বছর জুড়েই অব্যাহত থাকবে। যেখানে প্রত্যন্ত গ্রামের বিদ্যালয়গুলোতেও প্রোগ্রামিং শেখানো হবে। আয়োজনের পর্দা উঠছে রবিবার রাজধানীর আইডিয়াল স্কুল অ্যান্ড কলেজে প্রোগ্রামিং নিয়ে আয়োজনের মধ্য দিয়ে। এছাড়াও ৭ ডিসেম্বর চট্টগ্রাম, ৯ ডিসেম্বর বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্রে থাকছে আয়োজন।

আর ডিআইইউতে অনলাইন প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতা হবে ১১ ডিসেম্বর ও ন্যাশনাল গার্লস প্রোগ্রামিং কনটেস্ট ১২ ডিসেম্বর অনুষ্ঠিত হবে।

সংবাদ সম্মেলনে বিডিওএসএনের সাধারণ সম্পাদক মুনির হাসান বলেন, দেশে এখন প্রায় ৪০ হাজার শিক্ষার্থী কম্পিউটার বিজ্ঞান নিয়ে পড়াশোনা করে। কিন্তু তাদের মধ্যে প্রোগ্রামিংয়ে আসে মাত্র ৭ শতাংশ ছেলে আর এক শতাংশ মেয়ে। যা খুবই হতাশাজনক। অথচ ২০২০ সালের দিকে বিশ্বে প্রায় এক কোটি ১০ লাখ নলেজ ওয়ার্কার প্রয়োজন হবে, যাদের অধিকাংশ হবে প্রোগ্রামার।

তিনি বলেন, আসলে প্রোগ্রামিং ছোটবেলা থেকে শেখানো দরকার। বিশেষ করে, মেয়েদের প্রোগ্রামিংয়ে আগ্রহী করতে আমাদের কাজ করতে হবে। এটা এমন একটা বিষয় যা বর্তমান সময়ের ও ভবিষ্যতের সবচেয়ে দামী পেশা হতে যাচ্ছে।

বিডিওএসএনের সহ-সভাপতি ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের কম্পিউটার বিজ্ঞান ও প্রকৌশল বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক লাফিফা জামান বলেন, দেশে এখন পর্যন্ত আইসিটিতে নারীদের আগ্রহ খুব কম। এখনো নারী প্রোগ্রামার তৈরি করতে নানা প্রকার বাধা আছে। এসব বাধা দূর করার জন্য দেশব্যাপী এই আয়োজন। বিসিসির নির্বাহী পরিচালক আশরাফুল ইসলাম বলেন, দেশে প্রোগ্রামার তৈরিতে আমরা সর্বোচ্চ চেষ্টা করছি। কেননা এরাই আগামীর বাংলাদেশ গড়ে তুলবে।

সংবাদ সম্মেলনে আরও উপস্থিত ছিলেন ড্যাফোডিল বিশ্ববিদ্যালয়ের সিএসই বিভাগের প্রধান অধ্যাপক সৈয়দ আখতার হোসেন, কোড মার্শালের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. মাহমুদুর রহমান।

মাধ্যমিক পর্যায়ে ন্যাশনাল গার্লস প্রোগ্রামিং কনটেস্টে নিবন্ধন ফি দল পিছু ৫০০ এবং বিশ্ববিদ্যালয় পর্যায়ে এক হাজার টাকা। বিজয়ীদের জন্য থাকবে আর্থিক পুরস্কারের ব্যবস্থা। আর অনলাইনে প্রোগ্রামিং প্রতিযোগিতায় অংশগ্রহণকারীদের দেওয়া হবে ডিজিটাল সনদ।

এবারের আয়োজনে সহযোগিতা করছে ড্যাফোডিল ইন্টারন্যাশনাল ইউনিভার্সিটি, কোডমার্শাল, ইন্টারনেট সোসাইটি বাংলাদেশ, গুগুল ডেভেলপার গ্রুপ বাংলা, গুগল ওম্যান টেকমেকার্স ও দ্বিমিক কম্পিউটিং স্কুল এবং ম্যাগাজিন পার্টনার হিসেবে রয়েছে কিশোর আলো।

এছাড়া পৃষ্ঠপোষক হিসেবে থাকছে ইজিপেওয়ে, দোহাটেক, বর্ণ, ডাইনামিক সলিউশন্স ইনোভেটর, শিওরক্যাশ ও রকমারি ডটকম।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

শিক্ষা এর অারো খবর