ক্রাউন সিমেন্টের ২০ বছর পূর্তির অনুষ্ঠান: বিস্মিত,উদ্বেলিত দর্শক
ক্রাউন সিমেন্টের ২০ বছর পূর্তির অনুষ্ঠান: বিস্মিত,উদ্বেলিত দর্শক
সংগীতা ঘোষ
২০১৫-১২-০৫ ০৭:০৮:৫৮
প্রিন্টঅ-অ+


ক্রাউন সিমেন্টের ২০ বছর পূর্তির অনুষ্ঠান। বাজনা শুরুর আগে দাঁড়িয়ে পড়লেন অর্কেস্ট্রার যন্ত্রীদল। ফ্লুট, বেহালা, ট্রাম্পেট, বিগ বেজ, সিম্বালম, ক্ল্যারিনেট, চেলো ও ভিয়েলা হাতে মোৎসার্ট বা বেটোফেনের সুর বাজানোর বদলে সাদা শার্টের ওপর কালো স্যুট পরিহিত চৌকস দলটি বাজালেন সুমধুর একটি রবীন্দ্রসংগীতের সুর। দর্শকরাও দাঁড়িয়ে পড়লেন। শুক্রবার সন্ধ্যায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের হল অব ফেম মিলনায়তনে এই ব্যতিক্রম সাংস্কৃতিক আয়োজনে বিস্মিত ও উদ্বেলিত হয়েছেন উপস্থিত সবাই।

অর্কেস্ট্রার যন্ত্রীদলের একাংশ বসে এবং বাকিরা দাঁড়িয়ে বাজান। ‘বুদাপেস্ট জিপসি ফিল হারমোনিক’ নামে হাঙ্গেরির দলটির ক্ষেত্রেও ব্যতিক্রম হয়নি। শুরুতে নিজেদের বসা ও দাঁড়ানোর অবস্থান নির্ধারণ করে নিলেও বাজনা শুরুর আগে দাঁড়িয়ে পড়লেন তাঁরা। শুধু চেলো ও সিম্বালম বাদককে বসেই বাজাতে হলো।

শুক্রবার সন্ধ্যায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের হল অব ফেম মিলনায়তনের সব দর্শক আগেই দাঁড়িয়ে পড়েছিলেন। সাদা শার্টের ওপর কালো স্যুট পরিহিত চৌকস দলটিও প্রস্তুত। ফ্লুট, বেহালা, ট্রাম্পেট, বিগ বেজ, সিম্বালম, ক্ল্যারিনেট, চেলো ও ভিয়েলা হাতে মোৎসার্ট বা বেটোফেনের সুর বাজানোর বদলে তাঁরা বাজাবেন সুমধুর একটি রবীন্দ্রসংগীতের সুর। দলটির সঙ্গে কথা বলে আমরা আগেই জানিয়েছিলাম, একটি দেশের জাতীয় সংগীতের প্রথম পূর্ণাঙ্গ স্টাফ নোটেশন তৈরির সঙ্গে থাকা ও সেটি বাজানোর সুযোগ পেয়ে নিজেদের সৌভাগ্যবান মনে করছেন দলটির সদস্যরা।

শিল্পী সানী জুবায়েরের পরিচালনায় (কন্ডাটিং)শুক্রবার সন্ধ্যায় তাঁরা তিন মিনিট আট সেকেন্ড বাজালেন বাংলাদেশের জাতীয় সংগীত ‘আমার সোনার বাংলা’র সুরটি। শুধু এই দলটিই নয়, এখন থেকে পৃথিবীর যেকোনো যন্ত্রীদল স্টাফ নোটেশন দেখে নির্ভুলভাবে বাজাতে পারবে বাংলাদেশের জাতীয় সংগীতের সুর। এই স্টাফ নোটেশন তৈরির কাজটি করেছেন পাশ্চাত্যের উচ্চাঙ্গসংগীতের শিক্ষার্থী শিল্পী সানী জুবায়ের। এর আগে সংগীতজ্ঞ সমর দাস যুক্তরাজ্য থেকে ব্রাসব্যান্ডের একটি অর্কেস্ট্রেশন করিয়ে এনেছিলেন। এবার তৈরি হলো আমাদের জাতীয় সংগীতের একটি পূর্ণাঙ্গ স্টাফ নোটেশন। সানী বলেন, ‘কাজটি আমার জন্য চ্যালেঞ্জিং ছিল। দেশের প্রতি দায়বদ্ধতা থেকেই আমি জাতীয় সংগীতের স্টাফ নোটেশন তৈরির কাজটি করেছি। লিরিক ও সুরের সঙ্গে সম্পৃক্ততা রেখে যে যন্ত্রগুলো ব্যবহার করা উচিত, সেগুলোই ব্যবহারের চেষ্টা করেছি।’
বাংলাদেশের বৃহৎ সিমেন্ট নির্মাতাপ্রতিষ্ঠান ক্রাউন সিমেন্ট এবং ব্লুজ কমিউনিকেশন্সের উদ্যোগে এই অর্কেস্ট্রেশনটি করা হয়েছে। ক্রাউন সিমেন্টের ২০ বছর পূর্তির অনুষ্ঠানে এই ব্যতিক্রম সাংস্কৃতিক আয়োজনে বিস্মিত ও উদ্বেলিত হয়েছেন উপস্থিত সবাই।
ব্লুজ কমিউনিকেশন্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক ফরহাদুল ইসলাম বলেন, ‘এমন একটি আয়োজনের সঙ্গে থাকতে পেরে আমরা গর্বিত।’

জাতীয় সংগীতের অর্কেস্ট্রেশন ছাড়াও সানী জুবায়ের প্রতুল মুখোপাধ্যায়ের ‘আমি বাংলায় গান গাই’ এবং আইয়ুব বাচ্চুর ‘সেই তুমি’ গান দুটির স্টাফ নোটেশন তৈরি করেছেন। অনুষ্ঠানে মাহমুদুজ্জামান বাবু ‘আমি বাংলায় গান গাই’ এবং আইয়ুব বাচ্চু ‘সেই তুমি’ গানটি গাওয়ার সময় হাঙ্গেরির অর্কেস্ট্রা দলটি বাজিয়েছে এই দুই শিল্পীর সঙ্গে। এ ছাড়া অর্কেস্ট্রা দলটি জিপসি ঢঙের পাঁচটি ভিন্ন ভিন্ন সুরাংশও বাজিয়ে শোনায়।
বৈচিত্র্যপূর্ণ এই অনুষ্ঠানে নৃত্যশিল্পী ওয়ার্দা রিহাবের পরিচালনায় একটি মণিপুরি নাচ করেন ওয়ার্দা রিহাব ও তাঁর দল, গান করেন শিল্পী অর্ণব ও মমতাজ।

অনুষ্ঠানের শুরুতে ক্রাউন সিমেন্টের পথচলার শুরু থেকে ২০ বছর পর্যন্ত অগ্রযাত্রার একটি অডিও ভিজ্যুয়াল এবং একটি মনোমুগ্ধকর লেজার শো দেখানো হয়। পরে মঞ্চে এসে এই দীর্ঘযাত্রার সঙ্গে থাকার জন্য সবাইকে ধন্যবাদ জানান ক্রাউন সিমেন্টের চেয়ারম্যান মো. জাহাঙ্গীর আলম। প্রতিষ্ঠানটির ওপর আস্থা রাখার জন্য তিনি সংশ্লিষ্ট সবার কাছে কৃতজ্ঞতা জ্ঞাপন করেন। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, ‘অনেকে ভেবেছিল এই দেশ স্বাধীনতা পেয়েছে কিন্তু টিকবে না। অথচ বাংলাদেশের অগ্রগতি দেখে তাঁরা এখন বিস্মিত। আমাদের রিজার্ভ এখন ২৭ বিলিয়ন মার্কিন ডলার।’

অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন ক্রাউন সিমেন্টের অন্যতম ব্যবস্থাপনা পরিচালক আলমগীর কবির, মো. খবিরউদ্দিন মোল্লা এবং মোল্লা মোহাম্মদ মজনু। আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় সংগীতের স্টাফ নোটেশনের মোড়ক উন্মোচন করেন অতিথিরা। তাঁদের প্রত্যাশা, শিগগির এটি হস্তান্তর করবেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার হাতে।
(রাসেল মাহমুদ)

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

বিশেষ প্রতিবেদন এর অারো খবর