ব্রেকিং নিউজ বিজয় দিবসে দি ইঞ্জিনিয়ার্স-এর সকল পাঠক-পাঠিকা, গ্রাহক-অনুগ্রাহক, বিজ্ঞাপনদাতা, দেশবাসী এবং মুক্তিযোদ্ধাদের জানাই আন্তরিক অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা।
রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর জন্য আলাদা বিমান কেনার সম্ভাবনা নাকচ প্রধানমন্ত্রীর
রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর জন্য আলাদা বিমান কেনার সম্ভাবনা নাকচ প্রধানমন্ত্রীর
স্টাফ রিপোর্টার
২০১৬-১২-০৪ ০৬:৫৭:০৮
প্রিন্টঅ-অ+


রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর জন্য আলাদা বিমান কেনার সম্ভাবনা নাকচ করে দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। নির্দিষ্ট কারও জন্য নয়, যাত্রীদের জন্যই বিমান আধুনিকায়নের প্রতি গুরুত্ব দেন প্রধানমন্ত্রী।

আজ শনিবার গণভবনে হাঙ্গেরি সফর নিয়ে সংবাদ সম্মেলনে এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী এ কথা বলেন। সংবাদ সম্মেলনে প্রধানমন্ত্রী তাঁর সাম্প্রতিক হাঙ্গেরি সফরের নানা দিক তুলে ধরেন। জবাব দেন গণমাধ্যমকর্মীদের নানা প্রশ্নের।

প্রাসঙ্গিকভাবেই হাঙ্গেরি সফরের সময় তাঁকে বহনকারী বিমানের যান্ত্রিক গোলযোগের বিষয়টিও উঠে আসে। প্রধানমন্ত্রীর কাছে প্রশ্ন ছিল, বিমানে যে ঘটনা ঘটেছে, সেটি নিছকই দুর্ঘটনা নাকি অন্য কোনো কিছু? কবিতায় উঠে আসে প্রধানমন্ত্রীর জবাব, ‘জীবন-মৃত্যু পায়ের ভৃত্য, বুঝেছে দুর্বৃত্ত।’ তিনি আরও বলেন, ‘এটা একটা যান্ত্রিক দুর্যোগ ছিল, আর কিছু না। হয়তো যান্ত্রিক কিছু একটা হয়েছে। সহি-সালামতে বেঁচে আছি, আপনাদের সামনে আছি। দেশবাসীর কাছে দোয়া চাই।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘অ্যাক্সিডেন্ট তো হয়ই। ব্রাজিলে কী হলো। ফুটবল প্লেয়ারসহ প্লেন ক্র্যাশ করল। অ্যাক্সিডেন্ট, অ্যাক্সিডেন্টই। এটাতে উদ্বিগ্ন হওয়ার কিছু নেই।’ নিজের জীবনের ওপর নানা হামলার কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তবে অ্যাক্সিডেন্ট যান্ত্রিক ত্রুটিতেও হতে পারে, আবার মনুষ্যসৃষ্ট কারণেও হতে পারে।’ তিনি আরও বলেন, ‘যে দেশে বঙ্গবন্ধুকে হত্যা করা হয়, সপরিবারে হত্যা করা হয়, যুদ্ধাপরাধীদের বিচার হয় না, মন্ত্রী করা হয়, সেখানে আর কী বলব?’

রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর জন্য নতুন বিমান কেনার বিষয়টিও নাকচ করে দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, প্রধানমন্ত্রী ও রাষ্ট্রপতির জন্য নতুন বিমান কেনার মতো বিলাসিতা করার সময় আসেনি। প্রধানমন্ত্রী আরও বলেন, ‘গরিবের ঘোড়ারোগ বলা হয় না! ঘোড়া পালতেও অনেক খরচ, সেটা আমরা চাই না। সাধারণ মানুষ যেটাতে চড়ে, আমরাও সেটাতেই চড়ব।’ নির্দিষ্ট কারও জন্য নয়, যাত্রীদের জন্যই বিমানকে আধুনিকায়নের গুরুত্ব দেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বিমানের উন্নয়নে তাঁর সরকারের নেওয়া নানা পদক্ষেপের তথ্য তুলে ধরেন।

এ সময় বাংলাদেশে মধ্যবর্তী নির্বাচনের সম্ভাবনা নাকচ করে দেন শেখ হাসিনা। এক সাংবাদিকের প্রশ্ন ছিল, ‘বিভিন্ন টক শোতে অনেকেই মধ্যবর্তী নির্বাচনের সম্ভাবনা দেখতে পান। আপনি পান কি না?’ জবাবে শেখ হাসিনা বলেন, ‘এখন আর মধ্য নেই, মধ্য পার হয়ে গেছে। আমরা তিন বছর পার করছি। মধ্যবর্তী যদি বলেও থাকেন, সেটা পরবর্তীর বিষয়ে বলেছেন।’ তিনি আরও বলেন, ‘স্বপ্ন দেখা ভালো।’

নির্বাচন কমিশন (ইসি) নিয়ে বিএনপি চেয়ারপারসন খালেদা জিয়ার প্রস্তাব প্রসঙ্গে আরেক প্রশ্নের জবাবে শেখ হাসিনা বলেন, ‘ওনার প্রস্তাব উনি দিয়েছেন। রাষ্ট্রপতিকে বলুক, তিনিই (রাষ্ট্রপতি) ব্যবস্থা নেবেন।’

বিএনপির সমালোচনা করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘২০১৩, ১৪ ও ১৫ সালে কত মানুষ পুড়িয়ে হত্যা করা হয়েছে, তা হিসাব করে দেখুন। বিএনপি নেত্রী নির্বাচন করেননি। একটি দলের প্রধান হিসেবে ভুল সিদ্ধান্ত নিয়েছেন। নির্বাচন থেকে বিরত থেকেছেন।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘তাঁর (খালেদা জিয়া) নির্দেশে দেশব্যাপী মানুষকে পুড়িয়ে হত্যা, বাসে আগুন দেওয়া হয়েছে। এখন তিনি প্রস্তাব দিচ্ছেন। আগে মানুষ হত্যার জবাব দেন, পরে প্রস্তাব নিয়ে কথা হবে।’ শেখ হাসিনা আরও বলেন, তারা যখন নির্বাচনে জয়ী হয়েছে তখন ভালো, আর হারলেই ভালো না। নির্বাচনে অংশ নেবে না, বলবে ভালো না।

খালেদা জিয়ার প্রস্তাব প্রসঙ্গে আরেক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘তিনি চান ’৭২-এর পর থেকে যত পার্টি সংসদে ছিল, তাদের সবাইকে নিয়ে কথা বলতে। এর মাধ্যমেই তো তাঁর মনোভাব বোঝা গেল। তিনি আরও বলেন, যে স্বাধীনতায় বিশ্বাস করে না, তার প্রস্তাব নিয়ে তোলপাড়ের কী আছে?’

মিয়ানমারে রোহিঙ্গাদের ওপর হামলা এবং রোহিঙ্গা শরণার্থীদের বাংলাদেশে আশ্রয় নেওয়া প্রসঙ্গে আরেক প্রশ্নের জবাবে শেখ হাসিনা বলেন, এ বিষয়ে বিশ্বনেতাদের আরও সোচ্চার হওয়া উচিত ছিল। মিয়ানমারে সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালিয়ে এসে বাংলাদেশে কেউ ঠাঁই পাবে না বলেও সতর্ক করে দেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি আরও বলেন, ‘সেখানে ক্যাম্পে হামলা চালিয়ে নয়জনকে হত্যা করা হয়েছে। এই ধরনের সন্ত্রাসী কর্মকাণ্ড চালিয়ে বাংলাদেশে এসে কেউ আশ্রয় পাবে না।’ প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমি গোয়েন্দা সংস্থার লোকজনদের বলে দিয়েছি, তাদের কেউ যদি বাংলাদেশে ঢুকে থাকে, তাহলে তাদেরকে যেন গ্রেপ্তার করা হয়।’

জলবায়ু পরিবর্তনে দূষণকারী দেশগুলোর অবস্থান প্রসঙ্গে এক প্রশ্নের জবাবে শেখ হাসিনা বলেন, উন্নত দেশগুলোর অনেকেই প্রতিশ্রুতি দেন, কিন্তু সেভাবে হাত খোলেন না। জলবায়ু পরিবর্তনজনিত সমস্যা মোকাবিলায় সবার আগে নিজেদের উদ্যোগে তহবিল গঠনের কথা তুলে ধরেন প্রধানমন্ত্রী।

আসন্ন ভারত সফর নিয়ে আরেক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, নদীর পানি বিষয়ে কথা হতে পারে।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

স্বদেশ এর অারো খবর

top
ব্রেকিং নিউজ বিজয় দিবসে দি ইঞ্জিনিয়ার্স-এর সকল পাঠক-পাঠিকা, গ্রাহক-অনুগ্রাহক, বিজ্ঞাপনদাতা, দেশবাসী এবং মুক্তিযোদ্ধাদের জানাই আন্তরিক অভিনন্দন ও শুভেচ্ছা।
facebook
Advertisement