ঢাকায় আন্তর্জাতিক স্বল্পদৈর্ঘ্য ও মুক্ত চলচ্চিত্র উৎসব শুরু
ঢাকায় আন্তর্জাতিক স্বল্পদৈর্ঘ্য ও মুক্ত চলচ্চিত্র উৎসব শুরু
ডেস্ক রিপোর্ট
২০১৬-১২-০৪ ০৫:১২:৩৯
প্রিন্টঅ-অ+


বাংলাদেশ শর্ট ফিল্ম ফোরামের উদ্যোগে শনিবার ঢাকায় শুরু হয়েছে ১৪তম আন্তর্জাতিক স্বল্পদৈর্ঘ্য ও মুক্ত চলচ্চিত্র উৎসব।
‘মুক্ত চলচ্চিত্র মুক্ত প্রকাশ’ স্লোগানে আট দিনের এ উৎসবের উদ্বোধন করেন অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিত।

শনিবার বিকাল ৪টায় রাজধানীর জাতীয় গ্রন্থাগারের শওকত ওসমান মিলনায়তনে উৎসবের এই উদ্বোধনীতে অতিথি ছিলেন তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনু ও চীনা চলচ্চিত্রকার বেইজিং ফিল্ম একাডেমির অধ্যাপক শি ফি।

অর্থমন্ত্রী বলেন, “বাঙালি সমাজ একটি সংস্কৃতিমনস্ক সমাজ। এ ধরনের উৎসবে মানুষের সাড়া দেখে খুব ভাল লাগে।”

হাসানুল হক ইনু বলেন, “আমরা জঙ্গি দমনে যুদ্ধের মুখোমুখি। চলচ্চিত্র এক ধরনের আন্দোলন, যা আমাদের মানবিক সমাজ গঠনে পথ দেখায়। আমার প্রত্যাশা এ ধরনের উৎসব দর্শকদের জঙ্গিবাদবিরোধী, দারিদ্র্যমুক্ত সমাজ গঠনে পথ দেখাবে।”

উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে এবার ‘হীরালাল সেন স্মারক সম্মাননা’ প্রদান করা হয় চিত্রগ্রাহক আফজাল এইচ চৌধুরীকে।

স্বাগত বক্তব্যে উৎসব কমিটির চেয়ারম্যান নাট্যব্যক্তিত্ব নাসির উদ্দিন ইউসুফ একটি ফিল্ম সেন্টার নির্মাণের দাবি জানান।

তিনি বলেন, “এখানে স্বাধীনভাবে চলচ্চিত্র প্রদর্শনের ব্যবস্থা থাকবে। অনেকগুলো হল থাকলে সেখানে নিয়মিত চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হবে। মুক্ত চলচ্চিত্র নির্মাণের ক্ষেত্র সৃষ্টিতে এই রকম একটি উন্মুক্ত প্রদর্শন ক্ষেত্র থাকা জরুরি।”

এছাড়া প্রতি বছর সরকারি পৃষ্ঠপোষকতায় ১০টি চলচ্চিত্র নির্মাণে অর্থ বরাদ্দ দেওয়ার দাবির পাশাপাশি দেশের টেলিভিশনগুলোতে সপ্তাহে একটি নির্দিষ্ট সময় স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র প্রদর্শনের ব্যবস্থা করার অনুরোধ জানান এই নাট্যব্যক্তিত্ব।

উৎসবে ‘হীরালাল সেন স্মারক সম্মাননা পেয়ে’ আফজাল এইচ চৌধুরী রাষ্ট্রীয় কোনো স্বীকৃতি না মেলায় ক্ষোভ প্রকাশ করেন।
এবারের উৎসবের ভেন্যু ছয়টি। জাতীয় গণগ্রন্থাগারের শওকত ওসমান মিলনায়তন ছাড়াও জাতীয় জাদুঘরের প্রধান মিলনায়তন ও সুফিয়া কামালের মিলনায়তন, বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির সঙ্গীত ও নৃত্যকলা মিলনায়তন, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় মিলনায়তন এবং বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্র মিলনায়তনে প্রদর্শিত হবে উৎসবের চলচ্চিত্রগুলো।

এছাড়া উৎসব চলাকালীন সময়ে ৩-৬ ডিসেম্বর রাজশাহীর লালন মঞ্চ ও বড়কুঠি মঞ্চে চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হবে।

আয়োজকরা জানান, এবারের আসরে ১০৯টি দেশ থেকে ২৫৬৭টি চলচ্চিত্র জমা পড়েছে। উৎসবে প্রদর্শনের জন্য ৫০০টি চলচ্চিত্র নির্বাচিত হয়েছে। এছাড়াও উৎসবে অস্কার, কান, সানড্যান্স, টিফ, ওবারহাওজেন, বার্লিন, লোকারনো, বুসানের মতো আলোচিত আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসবের বেশকটি নির্বাচিত স্বল্পদৈর্ঘ্য ও প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শিত হবে।

ডক-লিপজিক অ্যানিমাডক , পোলিশ অ্যানিমেশন চলচ্চিত্র, ভারতের সেভেন সিস্টারস ও সিকিমের ‘নো ইউর নেইবার’, বেইজিং ফিল্ম একাডেমির স্টুডেন্টস চলচ্চিত্রগুলো প্রদর্শিত হবে বিশ্বসাহিত্য কেন্দ্র ভেন্যুতে। উৎসব পর্ষদ আর মুক্তিযুদ্ধ জাদুঘরের যৌথ উদ্যোগে নির্মিত চলচ্চিত্র ‘ট্রুথ, জাস্টিস অ্যান্ড জেনোসাইড’ ও প্রদর্শিত হবে এ উৎসবে।

৬ ডিসেম্বর থেকে জাতীয় জাদুঘরের প্রধান মিলনায়তনে শুরু হবে রেট্রোস্পেকটিভ পর্ব। এ সেশনে আন্তর্জাতিক খ্যাতিসম্পন্ন ইন্দোনেশিয়ান চলচ্চিত্রকার–গ্যারিন নুগ্রহর ৫টি পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হবে।

চীনা চলচ্চিত্রকার শি ফির ‘ওমেন ফ্রম দ্য লেক অব সেন্টেড সোল’, ‘ব্লাক স্নো ’ ও ‘মঙ্গোলিয়ান টেল’ চলচ্চিত্রগুলোও প্রদর্শিত হবে এবারের উৎসবে।

৬ ডিসেম্বর শিল্পকলা একাডেমির সেমিনার রুমে আলমগীর কবির মেমোরিয়াল লেকচার দেবেন ড. শি ফি। শিল্পকলা একাডেমিতে ৫ ও ৭ ডিসেম্বর থাকছে চলচ্চিত্রবিষয়ক সেশন ‘মাস্টার ক্লাস’। তিন ঘণ্টাব্যাপী দুটি সেশন পরিচালনা করবেন ভারতের নীলৎপল মজুমদার ও ইন্দোনেশিয়ার গ্যারিন নুগ্রহ।

৯ ডিসেম্বর বিকাল ৪টায় এই ভেন্যুতে ‘সরকার ও মুক্ত চলচ্চিত্র’ শিরোনামে সেমিনারে মূল বক্তা হিসেবে থাকবেন চলচ্চিত্র বিষয়ক শিক্ষক জাকির হোসেন রাজু।

এছাড়া সাম্প্রতিক সময়ে নির্মিত বেশকটি বাংলাদেশি পূর্ণদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্র প্রদর্শিত হবে, প্রিমিয়ার হবে বেশকটি স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রের।

প্রতিবারের ন্যায় এবারে উৎসবে প্রদর্শিত স্বল্পদৈর্ঘ্য চলচ্চিত্রগুলোর মধ্যে শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্রগেুলোকে মোট চারটি ক্যাটাগরিতে পুরস্কার দেওয়া হবে।

ক্যাটাগরিগুলো হলো- ‘ইন্টারন্যাশনাল কম্পিটিশন- ফিকশন’, ‘ ইন্টারন্যাশনাল কম্পিটিশন- ডকুমেন্টারি’, ‘নেটপ্যাক- নেটওয়ার্ক ফর এশিয়ান সিনেমা’, ‘তারেক শাহরিয়ার বেস্ট ইন্ডিপেনডেন্ট শর্ট’।

উৎসবের সমাপনী হবে ১০ ডিসেম্বর। সেদিনের প্রধান অতিথি সংস্কৃতিমন্ত্রী আসাদুজ্জামান নূর প্রতিযোগিতায় বিজয়ী শ্রেষ্ঠ চলচ্চিত্রগুলোর নির্মাতাদের পুরস্কৃত করবেন।

১৪তম আন্তর্জাতিক স্বল্পদৈর্ঘ্য ও মুক্ত চলচ্চিত্র উৎসব উৎসর্গ করা হচ্ছে উপমহাদেশের প্রথম চলচ্চিত্রকার হীরালাল সেন ও প্রয়াত কথাসাহিত্যিক সৈয়দ শামসুল হককে।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

বিনোদন এর অারো খবর