পদ্মা সেতুতে রেল সংযোগ প্রকল্পে পরামর্শক হচ্ছে সেনাবাহিনী
পদ্মা সেতুতে রেল সংযোগ প্রকল্পে পরামর্শক হচ্ছে সেনাবাহিনী
ডেস্ক রিপোর্ট
২০১৬-১১-৩০ ০৭:৪৭:২৮
প্রিন্টঅ-অ+


বাস্তবায়নাধীন পদ্মা সেতুতে রেল সংযোগ প্রকল্পের ভূমি অধিগ্রহণ ও সাইট ক্লিয়ারেন্স সহায়তা, রি-সেটেলমেন্ট প্ল্যান বাস্তবায়ন, ডিজাইন রিভিউ ও নির্মাণ কাজ সুপারভিশনে সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে পরামর্শক হিসেবে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীকে নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে।

প্রকল্পটিতে অর্থায়ন করবে চীন। ব্যয় হবে ৯৪১ কোটি টাকা।

এ সংক্রান্ত একটি ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদনের জন্য বুধবার সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে উপস্থাপন করা হবে বলে রেল মন্ত্রণালয় সূত্রে জানা গেছে। বৈঠকে মোট সাতটি ক্রয় প্রস্তাব অনুমোদনের জন্য উপস্থাপন করা হবে বলে সূত্র জানিয়েছে।

সূত্র জানায়, ‘ব্যুরো অব রিসার্চ টেস্টিং অ্যান্ড কনসালটেশন’ (বিআরটিসি) ও বুয়েট-এর সহযোগিতায় সেনাবাহিনীর ‘কর্পস অব ইঞ্জিনিয়ার্স’-এর ‘কনস্ট্রাকশন সুপারভিশন কনসালটেন্ট সেল’ এ কাজের মূল পরামর্শক হিসেবে দায়িত্ব পালন করবে।

সূত্র জানায়, ক্রয় প্রস্তাবটি অনুমোদনের জন্য গত ১৯ অক্টোবর রেল মন্ত্রণালয় সচিব মো. ফিরোজ সালাহ্ উদ্দিন স্বাক্ষরিত একটি প্রস্তাব ‘সরকারি ক্রয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটি’-তে পাঠানো হয়েছে। এর আগে ৩০ মার্চ অনুষ্ঠিত অর্থনৈতিক বিষয় সংক্রান্ত মন্ত্রিসভা কমিটির বৈঠকে এ কাজের জন্য সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে পরামর্শক নিয়োগের বিষয়টি নীতিগত অনুমোদন দেওয়া হয়।

সূত্র জানায়, প্রকল্পের পরামর্শক নিয়োগে কারিগরি ও আর্থিক প্রস্তাব পাঠানোর জন্য গত ২১ এপ্রিল বাংলাদেশ সেনাবাহিনী বরাবর কার্যবিধি প্রেরণ করে রেল মন্ত্রণালয় থেকে চিঠি দেওয়া হয়। জবাবে ১৯মে সেনাবাহিনীর সশস্ত্র বিভাগ থেকে কারিগরি ও আর্থিক প্রস্তাব দাখিল করা হয়।

সূত্র জানায়, সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে পরামর্শক নিয়োগের কারণে সেনাবাহিনীর পাঠানো কারিগরি প্রস্তাবটি নম্বর ভিত্তিক মূল্যায়ন করা হয়নি। দরপত্র মূল্যায়ন কমিটি এটি রেসপনসিভ হিসেবে বিবেচনা করেছে। তবে পদ্মা সেতুতে রেল সংযোগ প্রকল্পের মূল নির্মাণ সংস্থা ‘চায়না রেলওয়ে গ্রুপ লিমিটেড’ (সিআরইসি)- এর সঙ্গে সম্পাদিত বাণিজ্যিক চুক্তির সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে কার্যপরিধির স্কোপ অব ওয়ার্ক, টেকনিক্যাল অ্যাপ্রোচ, মেথডলজি, ওয়ার্ক প্ল্যান ও পার্সোনেল ইত্যাদি কিছু বিষয় সংশোধন করা হয়েছে বলে সূত্র জানায়।

পদ্মা সেতুতে রেল সংযোগ প্রকল্পের মূল কাজটি করছে চায়না সরকারের মনোনীত প্রতিষ্ঠান ‘চায়না রেলওয়ে গ্রুপ লিমিটেড’ (সিআরইসি)। এটিও সরাসরি ক্রয় পদ্ধতিতে নিয়োগ দেওয়া হয়েছে। এ কাজের জন্য চীনা প্রতিষ্ঠানটিকে দিতে হবে ৩১৩ কোটি ৮৭ লাখ ৫০ হাজার ডলার। বাংলাদেশি টাকায় এর পরিমাণ হচ্ছে ২৪ হাজার ৭৪৯ কোটি টাকা।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

স্বদেশ এর অারো খবর