"ষষ্ঠ ইন্দ্রিয়ের" জিন আবিষ্কারের দাবী
"ষষ্ঠ ইন্দ্রিয়ের" জিন আবিষ্কারের দাবী
ডেস্ক রিপোর্ট
২০১৬-১০-১২ ১৭:০৫:১৮
প্রিন্টঅ-অ+


একটি নরম ব্রাশের আঘাত থেকে কাটার মতো খোঁচা অনুভূত হয়। আবার একটি কম্পমান শলাকার কম্পনে শরীরের জোড়াগুলো কোনদিকে নড়াচড়া করছে সেটা না দেখে বলতে পারছেন। গবেষকের কাছে এরকম অদ্ভুত অনুভূতির কিছু অংশ বর্ণনা করছিলেন ৯ বছর বয়সী মেয় এবং ১৯ বছর বয়সী নারী।

গবেষকগণ বলেন, এই দুজন যে অনুভূতির কথা ব্যক্ত করেছেন তা অত্যন্ত বিরল একটি জেনেটিক পরিবর্তনের ফলে ঘটতে পারে। যা কথিত ‘ষষ্ঠ ঈন্দ্রিয়’ নামে মানুষের যে উপলব্ধি রয়েছে তার উপর আলোকপাত করতে পারে। এমনকি এই গবেষণার মাধ্যমে হয়তো আমরা জানতে পারবো কেন কিছু কিছু মানুষ অন্য সকলের থেকে আলাদা অনুভূতি প্রকাশ করে থাকে।

রোগীদের যন্ত্রণাদায়ক অনুভূতির কোন নাম নেই। যা মেরিল্যান্ডের ন্যাশনাল হেলথ ইনস্টিটিউট (NIH) পেডিয়াট্রিক নিউরোলজিস্ট বনম্যান কারস্টেন এক গবেষণায় আবিষ্কার করেছেন। তিনি তরুণদের অজানা জেনেটিক রোগ নির্ণয়ের জন্য বিশেষভাবে পারদর্শী।

তিনি লক্ষ্য করেন যে, অংশগ্রহণকারী দুজন তাদের নিতম্ব, আঙ্গুল এবং পা সহ শারীরের মাধ্যমে কিছু উপসর্গ প্রকাশ করেছে যার কোণগুলো অস্বাভাবিক আকারে বাঁকানো। এমনকি তাদের স্কলিয়োসিস বা মেরুদণ্ডে একটি অস্বাভাবিক রকমের বক্রতাও ছিল। এবং তাদের চলাফেরার মাঝে উল্যেখযোগ্য রকমের অসুবিধা দৃশ্যমাণ ছিলো। যার মাধ্যমেই বোঝা গেলো তারা শারীরিকভাবে তাদের ত্বকের বিরুদ্ধে কোন বস্তু প্রদত্ত সাড়া প্রদান করতে ব্যার্থ হচ্ছে।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

স্বাস্থ্য এর অারো খবর