ফেসবুকে স্ট্যাটাসের জের ধরে চুয়েট ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে জখম
ফেসবুকে স্ট্যাটাসের জের ধরে চুয়েট ছাত্রলীগ নেতাকে কুপিয়ে জখম
ডেস্ক রিপোর্ট
২০১৬-০৯-৩০ ০৫:০৩:৫৭
প্রিন্টঅ-অ+


চট্টগ্রাম প্রকৌশল ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে (চুয়েট)- ফেসবুকের স্ট্যাটাসে কথা-কাটাকাটির জের ধরে ছাত্রলীগ নেতা মুক্তাদির শাওনকে পিটিয়ে মারাতœকভাবে আহত করেছে অপরপক্ষের ছাত্রলীগ কর্মীরা। আহত শাওন কম্পিউটারকৌশল বিভাগের শেষ বর্ষের(’১১ ব্যাচ) শিক্ষার্থী। তিনি শাহ হলের আবাসিক ছাত্র ।

প্রত্যক্ষদর্শী ও আহত শিক্ষার্থীর সহপাঠী সূত্রে জানা যায়, গতকাল সন্ধ্যা ৭ টার দিকে অপরপক্ষের ছাত্রলীগ কর্মী রিসাদ হোসাইন ,সুস্ময় বড়ুয়া, সৈকত দত্ত, ফারহান সহ ৮-১০ জন হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার কথা বলে শাওনকে কুদরত-ই-খুদা হলের ৩৬৪নং কক্ষ থেকে জোড়পূর্বক তুলে নিয়ে যায়। এরপর তাঁকে সিএনজিতে করে চুয়েটের পাশে অবস্থিত ইমাম গাজ্জালি বিশ্ববিদ্যালয় কলেজের মাঠে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানে তাকে রড ও ধারালো অস্ত্র দিয়ে গুরতরভাবে জখম করা হয়। পরে আহত অবস্থায় তাকে চুয়েট মেডিকেল সেন্টারের সামনে পাওয়া যায়। গতকালকে আহত শাওনকে চুয়েট মেডিকেল সেন্টার নেয়া হলে, সেখানে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার জন্য বলেন, পরে আহত অবস্থায় আনুমানিক রাত ৯ টার দিকে তাকে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করানো হয়। আজ সকালে চট্টগ্রাম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের কর্তব্যরত চিকিৎসক আহতের অবস্থা আশঙ্কাজনক বলে ধারনা করেন। চিকিৎসকরা ধারনা করতেছেন, আহত শিক্ষার্থীর অভ্যন্তরীণ রক্তক্ষরণ হচ্ছে। ফলে জরুরি ভিত্তিতে তাকে লাইফ সার্পোটে (আইসিইউ) নেয়ার জন্য বলেন। এরপর বেলা সাড়ে ১০ টার দিকে চট্টগ্রামের জিইসি মোড়ে অবস্থিত চট্টগ্রাম মেডিকেল সেন্টারে লাইফ সার্পোটে (আইসিইউ) রাখা হয়। এখন আহত মুক্তাধির শাওন অজ্ঞান অবস্থায় ঢাকার এ্যাপোলো হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আছে।

এই ঘটনা সম্পর্কে চুয়েট ছাত্রকল্যানের উপ-ছাত্রকল্যাণ পরিচালক ড. জি. এম. সাদিকুল ইসলামের সাথে কথা হলে, তিনি জানান, আজ সকাল থেকেই আমরা আহত শিক্ষার্থীর সাথেই ছিলাম, পরে তাকে এয়ার এ্যাম্বুলেন্সে করে ঢাকায় পাঠানো হয়। তবে এই ব্যাপারে কোনো লিখিত অভিযোগ না পাওয়ার কারনে কোনো এখন পর্যন্ত তদন্ত কমিঠি গঠন করা হয়নি।

তবে প্রতিপক্ষের কর্মী রিসাদ হোসাইন সংশ্লিষ্টতা অস্বীকার করে বলেন, আমার বিপক্ষে আনা অভিযোগ সম্পূর্ণভাবে মিথ্যা, সুস্ময় বড়ুয়া, ফারহান ও সৈকত দত্তের বিরুদ্ধেও ভিত্তিহীনভাবে এ অভিযোগ আনা হয়েছে।

জানা যায়, ২৬ সেপ্টেম্বর রাতে শাওনের দেয়া ফেসবুক স্ট্যাটাসের জের ধরে এ ঘটনার সূত্রপাত। শাওনের পক্ষে তাঁর এক সহপাঠী জানান, এ স্ট্যাটাসের দেয়ার পর থেকেই তাকে বিপক্ষদল হুমকি দিয়ে আসছিল ।

এ ব্যাপারে ১১ ব্যাচের ছাত্রলীগ নেতা নাহিদ পারভেজ লাভসু জানান, এ স্ট্যাটাসের জন্য ক্ষমাও চাওয়া হয়েছিল এবং পোস্ট ফেসবুক থেকে মুছে ফেলাও হয়েছিল ,তারপর এমন কিছু হবে তা কখনো আশা করিনি।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

শিক্ষা এর অারো খবর