তথ্য অধিকার আইন ব্যবহারে পিছিয়ে সাংবাদিকেরা
তথ্য অধিকার আইন ব্যবহারে পিছিয়ে সাংবাদিকেরা
স্টাফ রিপোর্টার
২০১৬-০৯-২৯ ০৩:০৩:৩৬
প্রিন্টঅ-অ+




জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের নবনিযুক্ত কমিশনার অধ্যাপক মেঘনা গুহঠাকুরতা বলেছেন, বাংলাদেশে মানবাধিকার রক্ষার আইনের দুর্বলতা থাকলেও তথ্য অধিকার আইন (আরটিআই) শক্তিশালী। সাংবাদিকেরা তথ্য অধিকার আইন ব্যবহারে পিছিয়ে আছেন। এ কারণে সাংবাদিকসহ সচেতন সবার তথ্য জানতে আরটিআইয়ের সহযোগিতা নেওয়া উচিত।

আজ বুধবার রাজধানীর গুলশানের লেকশোর হোটেলে তথ্য অধিকার আইন নিয়ে কাজ করা যুক্তরাজ্যভিত্তিক সংগঠন ‘আর্টিক্যাল ১৯’ আয়োজিত এক আলোচনা সভায় মেঘনা গুহঠাকুরতা এসব কথা বলেন।

মানবাধিকার কমিশনার মেঘনা গুহঠাকুরতা বলেন, দীর্ঘসূত্রতার কারণে অনেক সময় সাংবাদিকেরা তথ্য অধিকার আইন ব্যবহার করতে চান না। তবে দীর্ঘমেয়াদে অনুসন্ধানমূলক প্রতিবেদন তৈরিতে তাঁরা তথ্য অধিকার আইন ব্যবহার করতে পারেন। এ আইনটিকে তাঁরা তথ্য জানার অস্ত্র হিসেবে ব্যবহার করে প্রতিষ্ঠানগুলোর জবাবদিহি নিশ্চিত করতে পারেন। তিনি বলেন, দেশে মানবাধিকার রক্ষার আইন যথেষ্ট শক্তিশালী নয়। মানবাধিকার কমিশনকে শক্তিশালী করতে হলে তথ্য অধিকার আইনের ব্যবহার বাড়াতে হবে। যে কেউ যেকোনো তথ্য জানতে প্রশ্ন করতে পারেন। মানবাধিকার রক্ষা আইনের দুর্বলতা কাটাতে কমিশন সংশ্লিষ্ট ব্যক্তিদের সঙ্গে কথা বলছে।

বাংলাদেশে নিযুক্ত ব্রিটিশ হাইকমিশনার অ্যালিসন ব্লেক বলেন, যুক্তরাজ্যের সরকার বাংলাদেশকে অর্থনৈতিক দিক থেকে সহযোগিতা করছে। তবে তিনি মনে করেন, আইনের শাসন ছাড়া অর্থনেতিক উন্নয়ন টেকসই হবে না। তিনি বলেন, তথ্য অধিকারকে কাজে লাগাতে হলে প্রতিষ্ঠানগুলোকে শক্তিশালী করে এর দুর্নীতি দূর করতে হবে।

অনুষ্ঠানে সাংবাদিক সোহরাব হাসান বলেন, মানুষের অধিকার প্রতিষ্ঠার মতোই জরুরি তথ্য অধিকার প্রতিষ্ঠা করা। তথ্য অধিকার প্রতিষ্ঠার জন্য যে সুশাসন দরকার, দেশে তার ঘাটতি আছে। নাগরিক মানবাধিকার পূরণ হলেই তথ্য অধিকার প্রতিষ্ঠিত হবে।

অনুষ্ঠানে আর্টিক্যাল ১৯-এর পক্ষ থেকে নিহত প্রকাশক ও লেখক ফয়সল আরেফিন দীপনের বাবা অধ্যাপক আবুল কাশেম ফজলুল হক ও নিহত লেখক ও ব্লগার অভিজিৎ​ রায়ের বাবা অজয় রায়কে ‘স্মরণীয় যাঁরা’ নামের একটি ডিভিডি উপহার দেওয়া হয়। এ ছাড়াও তথ্য সহযোগিতার ওয়েবসাইট nirbhoy.org-এর উদ্বোধন করা হয়।

‘আওয়ার রাইট টু নো; দেয়ার রাইট টু সেফটি: দ্যা রাইট টু ইনফরমেশন; থ্রেটেনড কমিউনিকেটরস অ্যান্ড দ্য এসডিজিস’ শীর্ষক উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের স্বাগত বক্তব্য দেন আর্টিক্যাল ১৯-এর বাংলাদেশ ও দক্ষিণ এশিয়ার পরিচালক তাহমিনা রহমান। অনুষ্ঠানে আরও বক্তব্য দেন সাউথ এশিয়ান ইনস্টিটিউট অব অ্যাডভান্সড লিগ্যাল অ্যান্ড হিউম্যান রাইটস স্টাডিজের (সেইলস) নির্বাহী পরিচালক মঞ্জুর হাসান।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

বিবিধ এর অারো খবর