মার্কিন নির্বাচনের ফল পাল্টে দেবে রুশ হ্যাকাররা!
মার্কিন নির্বাচনের ফল পাল্টে দেবে রুশ হ্যাকাররা!
ডেস্ক রিপোর্ট
২০১৬-০৯-১৮ ২১:২০:২৬
প্রিন্টঅ-অ+


মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের দুই মাসেরও কম সময় বাকি। প্রধান দুই দলের প্রেসিডেন্ট প্রার্থীদের নিয়ে যে পরিমাণ আলোচনা হচ্ছে সে তুলনায় রাশিয়াকে নিয়ে কোনো অংশেই কম কথা হচ্ছে না। কিন্তু মার্কিন নির্বাচনের সঙ্গে রাশিয়ার সম্পর্ক কি? মার্কিন মুলুকের অনেক কর্মকর্তাই মনে করেন যে, এই নির্বাচনকে প্রভাবিত করার চেষ্টায় আছে রাশিয়ার হ্যাকাররা। এমনকি সাইবার হামলার মাধ্যমে নির্বাচনের ফল পর্যন্ত বদলে দেয়ার চেষ্টা করবে তারা। সম্প্রতি মার্কিন ভোটার নিবন্ধন-সংক্রান্ত তথ্যভাণ্ডারে দুই দফা সাইবার হামলা চালিয়েছে রাশিয়াভিত্তিক হ্যাকাররা। যুক্তরাষ্ট্রের গোয়েন্দা সংস্থা এফবিআই জানায়, হামলাকারীরা রাশিয়ার ভৌগলিক সীমার মধ্যে থেকে হামলা চালায়। তবে তা অস্বীকার করেছে রুশ সরকার। খবর দ্য ওয়াশিংটন পোস্ট, আল-জাজিরা, সিবিএস নিউজ এ দ্য হেরাল্ডের। সিভিল রাইটস গ্রুপ অব ইলেকশান জাস্টিস ইউএসএ-এর সহপ্রতিষ্ঠাতা শাইলা নেলসন বলেন, ‘বাইরে থেকে হ্যাকিংয়ের মাধ্যমে আমাদের নির্বাচনের ফল পরিবর্তনের ধারণাটা খুবই বেপরোয়া। এটি একটি বাজে প্রপাগান্ডা।’

তবে দেশটির প্রতিরক্ষা সচিব অ্যাশ কার্টার গত সপ্তাহে এ ব্যাপারে কঠোরভাবে হুশিয়ার করে দিয়েছেন মস্কোকে। ইউরোপ ভ্রমণকালে রাশিয়াকে উদ্দেশ করে তিনি বলেন, ‘আমাদের গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়ায় কারও হস্তক্ষেপ সহ্য করা হবে না। দেশের ইন্টারনেট ব্যবস্থার ওপর অন্য কারও খবরদারিকে যুদ্ধের শামিল বলে গণ্য করা হবে।’ মার্কিন প্রেসিডেন্ট বারাক ওবামার হোমল্যান্ড সিকিউরিটি উপদেষ্টা লিসা মোনাকো জানান, আমেরিকার ভোটিং সিস্টেম হ্যাক করা খুব কঠিন একটি কাজ। সুতরাং ভোটের ফলাফল পরিবর্তন করা অত সোজা নয়। লিসা আরও বলেন, ‘নির্বাচনী প্রক্রিয়াটা ইন্টারনেটের সঙ্গে সংযুক্ত নয়। পুরো ব্যবস্থাটা রাজ্য এবং স্থানীয় সরকারের মাধ্যমে পরিচালনা করা হয়। এ কারণেই বাইরে থেকে হ্যাকিং বা অন্য কোনো প্রযুক্তি খাটিয়ে এই সিস্টেমের প্রক্রিয়াকে প্রভাবিত করা সম্ভব না।’ তবে মার্কিন গোয়েন্দাদের দাবি, ভোটের সময় ইন্টারনেট বা ভোটিং সিস্টেমের মধ্যে বাইরে থেকে যে কোনো ধরনের হস্তক্ষেপের সম্ভাবনা উড়িয়ে দেয়া যায় না। কারণ ইলিনয় অঙ্গরাজ্যে সম্প্রতি সাইবার হামলার চালিয়ে দুই লাখ ভোটারের তথ্য হাতিয়ে নেয়া হয়। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক মার্কিন কর্মকর্তা বলেন, ‘হোয়াইট হাউসের উত্তরসূরি নির্বাচন প্রক্রিয়ায় মস্কো অনিশ্চয়তা সৃষ্টি করতে চাইছে। এমন ধারণা সৃষ্টি হওয়ায় মারাত্মক উদ্বেগ দেয়া দিয়েছে মার্কিন প্রশাসনে।’

এফবিআইয়ের অভিযোগ, সাম্প্রতিক সময়ে ডেমোক্রেটিক পার্টির জাতীয় কনভেনশন ও ডেমোক্রেটিক পার্টি নিয়ে যেসব তথ্য হ্যাক বা ফাঁস হয়েছে তা রাশিয়ায় বসে করা হয়েছে। যুক্তরাষ্ট্রে সাইবার হামলার পেছনে রাশিয়ার হাত আছে বলে দাবি করেন তারা। কিন্তু সব ধরনের সাইবার হামলা বা এর পেছনে মদদ দেয়ার অভিযোগ প্রত্যাখ্যান করে রাশিয়া।

এদিকে রাশিয়া বা অন্য দেশের হ্যাকাররা ৮ নভেম্বর অনুষ্ঠিতব্য মার্কিন প্রেসিডেন্ট নির্বাচনের তথ্য-উপাত্ত হ্যাক করতে পারে বলে আশংকা প্রকাশ করেছে যুক্তরাষ্ট্রের কর্মকর্তারা। এ কারণে হ্যাকিংয়ের হাত থেকে নির্বাচনী ব্যবস্থা নিরাপদ রাখতে নিজস্ব সাইবার প্রতিরক্ষা ব্যবস্থা জোরদার করছে তারা। এ হামলাগুলোকে কেন্দ্র করে গোটা আমেরিকার নির্বাচনী কর্মকর্তাদের উদ্দেশে সতর্কতা জারি করেছে এএফবিআই। ভবিষ্যতে আরও সাইবার হামলা হতে পারে এমন আশংকা প্রকাশ করে তাদের সতর্ক থাকার আহ্বান জানায় গোয়েন্দারা। কারণ ইতিপূর্বে মার্কিন পররাষ্ট্র দফতর ও হোয়াইট হাউসে সাইবার হামলা চালায় হ্যাকাররা। মার্কিন পররাষ্ট্র দফতরের কম্পিউটার নিরাপত্তা ব্যবস্থা অনেক মাস ধরে হ্যাকারদের নিয়ন্ত্রণে ছিল বলে স্বীকার করেন এক কর্মকর্তা। গত জুনে রিপাবলিকান পার্টির প্রেসিডেন্ট প্রার্থী ডোনাল্ড ট্রাম্পকে নিয়ে করা ডেমোক্রেটদের যাবতীয় গবেষণাপত্রও হাতিয়ে নেয় তারা। এর জন্যও রাশিয়াকে দায়ী করেন ডেমোক্রেট প্রচারণা কর্মীরা। এছাড়াও মার্কিন শীর্ষ সফটওয়্যার নির্মাতা কোম্পানি মাইক্রোসফটের উইন্ডোজ অপারেটিং সিস্টেম এবং আরও বেশ কয়েকটি সফটওয়্যারের বাগ বা ত্রুটির সুযোগ কাজে লাগিয়ে নর্থ আন্টলান্টিক ট্রিটি অর্গানাইজেশন (ন্যাটো), ইউরোপিয়ান ইউনিয়ন (ইইউ), ইউক্রেন এবং বিশ্বব্যাপী জ্বালানি ও টেলিযোগাযোগ খাতের বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের ওপর রাশিয়ান হ্যাকাররা গুপ্তচর কার্যক্রম চালাচ্ছে বলে জানায় যুক্তরাষ্ট্রের সাইবার নিরাপত্তাবিষয়ক প্রতিষ্ঠান আইসাইট পার্টনার্স। রুশ হ্যাকারদের এই গুপ্তচরবৃত্তি পাঁচ বছর ধরে চলছে বলে জানিয়েছে সাইবার নিরাপত্তা প্রতিষ্ঠানটি।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

বিদেশ এর অারো খবর