কক্সবাজার স্টেডিয়াম দেখে মুগ্ধ আইসিসি প্রতিনিধিদল
কক্সবাজার স্টেডিয়াম দেখে মুগ্ধ আইসিসি প্রতিনিধিদল
২০১৫-১১-০৭ ১৫:৩৯:৩১
প্রিন্টঅ-অ+


শুধু যুব বিশ্বকাপ নয়, সব ধরনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট আয়োজনে সক্ষম নবনির্মিত কক্সবাজার স্টেডিয়াম। যুব বিশ্বকাপ উপলক্ষ্যে শুক্রবার ভেন্যু পরিদর্শন শেষে সন্তুষ্টি প্রকাশ করে এমন মূল্যায়ন করলেন আইসিসি প্রতিনিধি দলের প্রধান ডেভিড রিচার্ডসন। আর অন্যদিকে নিরাপত্তা ইস্যুতেও কোন ধরনের শঙ্কার কারণ দেখছে না বিসিবি।

২০১৬ সালের জানুয়ারিতে যুব বিশ্বকাপ আসরের আয়োজক বাংলাদেশ। এই আসরের ১৮টি ম্যাচ অনুষ্ঠিত হবে কক্সবাজার শেখ কামাল আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে। তিন ভেন্যু, ৩৬ উইকেট। গ্যালারী আর মাঠ তৈরীর প্রস্তুতিও প্রায় শেষ। এবার শেষ মুহুর্তের খুটিনাটি পরখ করার পালা। শুক্রবার বেলা ১২টার দিকে দু’টি বিশেষ হেলিকপ্টারে সাগর পাড়ের এই ভেন্যু পরিদর্শনে নামেন আইসিসি প্রতিনিধি। একে একে ঘুরে দেখেন ভেনুর পিচ, আউটফিল্ড, ড্রেসিং রুম সহ সবকিছুই। আর প্রথম দেখাতেই মুগ্ধ হন আইসিসি প্রতিনিধি দলের প্রধান ডেভিড রিচার্ডসন ও তার দল।

পরে সাংবাদিকদের আইসিসি প্রতিনিধি দলের প্রধান ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ডেভিস রিচার্ডসন বলেন, ‘প্রথমবারের মতো কক্সবাজার শেখ কামাল আন্তর্জাতিক স্টেডিয়াম পরিদর্শনে আসি। প্রথম পরিদর্শনেই আমি মুগ্ধ। এখানকার সুযোগ-সুবিধা আর সবকিছু দেখার পর মনে হচ্ছে এটি একটি প্রথম শ্রেণির স্টেডিয়াম।’

তিনি আরো বলেন, ‘কক্সবাজার স্টেডিয়ামটি একটি খুব সুন্দর স্থানে অবস্থিত। এখানে বিশ্বের প্রতিটি দলই ক্রিকেট খেলতে এসে সৌন্দর্য্য উপভোগ করতে পারবে। এটি শুধু যুব বিশ্বকাপের জন্য নয়, এই স্টেডিয়ামটি সব ধরনের আন্তর্জাতিক ক্রিকেট আয়োজনে সক্ষম এবং এটি একটি আন্তর্জাতিক মানের স্টেডিয়াম। সবকিছু দেখে আমরা সন্তুষ্ট।’

এদিকে নিরাপত্তা ইস্যুতে সম্প্রতি বেশ ক’টি বিদেশি দলের বাংলাদেশ সফর ঝুলে আছে। তাই কক্সবাজার শেখ কামাল ষ্টেডিয়ামের নিñিদ্র নিরাপত্তায় কোন খাত রাখতে চায় না আয়োজক বিসিবি।

বাংলাদেশ ক্রিকেট বোর্ডের সহ-সভাপতি মাহবুব আনাম বলেন, ‘আমরা অন্যান্য ভেন্যুতে যাইনি। কারণ, ওইসব ভেন্যু টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপের খেলা হয়েছে। এটি অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপের জন্য নতুন ভেন্যু। তাই বিসিবি এবং সরকার চায় ক্রিকেট সারা দেশে ছড়িয়ে যাক। তার অধ্যায় হিসেবে আগামী বছরে অনূর্ধ্ব ১৯ বিশ্বকাপের অনেকগুলো ম্যাচ এখানে অনুষ্ঠিত হবে। আমরা চাই এখানকার লোকজন আমাদেরকে সহযোগিতা করুক।’

আইসিসির প্রতিনিধি দলের বিষয়ে বিসিবির সহ-সভাপতি মাহবুব আনাম বলেন, ‘বিশ্বের সব জায়গায় নিরাপত্তা ঝুঁকি থাকে। ঝুঁকিটা নিয়ে আমরা আলাপ করছি না, আমরা আলাপ করছি আমাদের নিরাপত্তা ব্যবস্থাটা কতটুকু মজবুত এবং সেটাতে তারা সন্তুষ্ট কিনা। ইতিমধ্যে তাদেরকে আমাদের প্ল্যান দিয়েছি এবং অন্যান্য এজেন্সির সাথে তারা আলাপ করবে। তবে একটি বিষয় বলতে চাই, এর আগেও আমরা এর চেয়ে প্রতিকূল অবস্থার মধ্যে টি-টোয়েন্টি বিশ্বকাপ করেছি। সে বিষয়টি চিন্তা করলে দেখা যাবে বাংলাদেশে এ ধরণের ইভেন্ট আয়োজনের ক্ষেত্রে কোন সমস্যা কিংবা কোন অসুবিধা নেই।’

এসময় আইসিসি প্রতিনিধি দলের সাথে ছিলেন আইসিসির ইভেন্ট প্রধান ক্রিস টেটলি, নিরাপত্তা উপদেষ্টা শন নরিস ও রেগ ডিকাসন।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

ক্রীড়া এর অারো খবর