জঙ্গি সন্দেহে গুলশানে অভিযান, জানা গেল তারা চোর!
জঙ্গি সন্দেহে গুলশানে অভিযান, জানা গেল তারা চোর!
স্টাফ রিপোর্টার
২০১৬-০৯-০৬ ১৮:৪৮:৫৭
প্রিন্টঅ-অ+


রাজধানীর গুলশান ১ নম্বরে মঙ্গলবার সকাল থেকে আতঙ্ক সৃষ্টি হয়। এক নম্বর গোলচত্বর এলাকায় সকাল থেকেই অনেক পুলিশ মোতায়েন করা হয়। ওই এলাকার একটি ভবন ঘিরে রেখেছিল আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। সকাল সকাল এত পুলিশ দেখে গুলশানবাসী ফের আতঙ্কিত হয়ে পড়েন। তাদের মনে একটাই আতঙ্ক উঁকি দিচ্ছিল, আবারও কী কোনও অপ্রীতিকর ঘটনা ঘটতে চলেছে। অবশেষে সব জল্পনা-কল্পনা আর আতঙ্কের অবসান হলো। জানা গেল ঘিরে রাখা ওই ভবনে কয়েকজন চোর ঢুকেছিল। তবে ভবনের ভেতর কাউকে পাওয়া যায়নি।

ঢাকা মহানগর পুলিশের কূটনৈতিক জোনের ডিসি জসিম উদ্দিন বলেন, ‘গ্রিল কেটে কয়েকজন ওই ভবনের ভেতরে ঢুকেছে খবর পেয়ে পুলিশ ঘেরাও করেছিল। পরে দেখা গেলো চোর চুরি করতে ঢুকেছিল।’
৫১ নম্বর ওই পাঁচ তলা ভবনের দ্বিতীয় ও তৃতীয় তলায় এলজির শোরুম রয়েছে। চতুর্থ ও পঞ্চম তলায় ইউনিরয়্যাল সিকিউরিটি লি. ও নেক্সিম নামে দুটি সিকিউরিটি কোম্পানির অফিস রয়েছে। ভবনের পেছনের জানালার এবং পাঁচতলার গ্রিলকাটা। ধারণা করা হচ্ছে এখান দিয়েই চোর পালিয়েছে।

র‌্যাব-১ এর উপ- অধিনায়ক মেজর আজম বলেছেন, ‘আমরা খবর পেয়ে সকালে ভবনটির চার ও পাঁচতলায় অভিযান চালাই। ভবনের ভেতর কাউকে পাওয়া যায়নি। পেছনের গ্রিলকাটা।’
তিনি আরও বলেন, ‘ধারণা করছি তারা পালিয়েছে। একটি সিকিউরিটি কোম্পানির অফিসের কাগজপত্র এলোমেলো পেয়েছি। এছাড়াও দুটি ব্যাগ পেয়েছি, সেগুলোতে তেমন কিছু নেই।’ ভবনের ভেতরে পাওয়া ব্যাগ থেকে ১৭টি মোবাইল ফোন সেট উদ্ধার করা হয়েছে। এর মধ্যে এলজির ১৬টি নতুন সেট পাওয়া গেছে।

এই ঘটনায় ভবনের কেউ জড়িত কিনা- এমন প্রশ্নের জবাবে মেজর আজম বলেন, ‘এটা তদন্তের বিষয়। তদন্ত করে দেখা হচ্ছে। ভবনের ভেতরে কোনও সিসি ক্যামের আছে কিনা? তবে ভবনের ভেতন কোনও সিসি ক্যামেরা পাওয়া যায়নি।’
এ অভিযান প্রসঙ্গে বিষয়ে তিনি বলেন, ‘যেহেতু এটি গুরুত্বপূর্ণ এলাকা। তাই যখন খবর পাই চার পাঁচজন সন্ত্রাসী ভবনের ভেতরে আছে তখন আমরা বিলম্ব না করে অভিযান চালাই।’

ডিএমপির ভারপ্রাপ্ত কমিশনার শাহবুদ্দিন কোরেশি বলেন, ‘কয়েকজন দুর্বৃত্ত এই ভবনে ঢুকেছিল বলে আমরা খবর পেয়ে পুলিশ পাঠাই। পুলিশে এসে পুরো ভবন নিজেদের নিয়ন্ত্রণে নিয়ে নেয় এবং তল্লাশি চালায়। কিন্তু ভবনের ভেতরে কাউকে পাওয়া যায়নি।’ তবে ভবনের পঞ্চম তলায় দুটি ব্যাগ ও একটি মোবাইল ফোন পাওয়া গেছে বলে তিনি জানান।
তিনি আরও বলেন, ‘সার্বিক পরিস্থিতি বিবেচনা করে মনে হচ্ছে এটা একটা চুরির ঘটনা হতে পারে। কিন্তু পুলিশ আসার আগে দুর্বৃত্তরা জানালার গ্রিল কেটে পালিয়ে গেছে বলে ধারণা করা হচ্ছে।’

গুলশান থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা ( ওসি) সিরাজুল ইসলাম বলেন, ‘আরও কিছু খোয়া গেছে কিনা তা নিশ্চিত নই। তবে জিনিসপত্র এলোমেলো আছে। অফিসের লোকজন আসলে জানা যাবে আরও কিছু খোয়া গেছে কিনা।’

পুলিশ ধারণা করছে, ভবনটির পাশের নির্মাণাধীন ভবন থেকে তারা উঠছিল।
ভবনের নিচে থাকা ব্র্যাক ব্যাংকের এটিএম বুথের নিরাপত্তারক্ষী সবুর মোল্লা বলেন, ‘সকাল ৬টা ৫০ মিনিটের দিকে বুথ ঝাড়ু দেওয়ার সময় ভবনের নিচের কেচি (কলাপসিবল) গেটে শব্দ পেয়ে বের হয়ে দেখি একজন তালা কাটার চেষ্টা করছে। আমি তাকে বলি আপনি তালা কাটছেন কেন? চাবি নেই আপনার কাছে? সে আমার কথা শুনে সিঁড়ি দিয়ে ওপরে চলে যায়।’ এরপর তিনি পুলিশকে বিষয়টি জানান। পরে পুলিশ দ্রুত ওই ভবন ঘিরে ফেলে। ভবনটির পেছনের দুটি লোহার এবং সামনের দুটি কলাপসিবল গেট রয়েছে।
ভবনের মালিকের লোক বুলুর বরাত দিয়ে সবুর জানান, বুলু ওপরে আরও তিনজনকে দেখছে। তারা বুলুকে চিল্লাচিল্লি করলে মেরে ফেলার হুমকি দেয়।

সংশ্লিষ্ট সূত্রে জানা গেছে, সোমবার রাতে এলজি শোরুমে তিন থেকে চারজন ব্যক্তি ঢুকে পড়ে। পরে ওই শোরুমের সিকিউরিটির লোকজন তাদের আটক করে পুলিশে খবর দেন।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

স্বদেশ এর অারো খবর