বিশ্বের বৃহত্তম প্লেনের সফল উড্ডয়ণ
বিশ্বের বৃহত্তম প্লেনের সফল উড্ডয়ণ
ডেস্ক রিপোর্ট
২০১৬-০৮-২১ ১৮:৩৬:৩৯
প্রিন্টঅ-অ+


শেষ পর্যন্ত উড়েছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় এয়ারক্রাফট। অনেক মাসের প্রস্তুতি আর অনেক বছর ধরে তহবিল সংগ্রহের পর বুধবার ‘এয়ারক্রাফট ১০’ নামের দৈত্যাকার এই প্লেন প্রায় ২০ মিনিট আকাশে ভেসে উত্তর লন্ডনের কার্ডিংটন এয়ারফিল্ড-এ নিরাপদে অবতরণ করেছে।

আংশিক এয়ারশিপ, আংশিক হেলিকপ্টার, আংশিক প্লেন – বলে অভিহিত প্রায় ৩০০ ফিট লম্বা এই এয়ারক্রাফটটি বিশ্বের বৃহত্তম যাত্রীবাহী প্লেনের চেয়ে প্রায় ৫০ ফুট দীর্ঘতর। অদ্ভুত আকৃতির জন্য পর্যবেক্ষকরা একে কৌতুক করে ‘উড়ুক্কু নিতম্ব’ বলে অভিহিত করেছেন।

সিএনএন জানিয়েছে, এয়ারক্রাফটটির উদ্বোধনী উড্ডয়ণ রোববার হওয়ার কথা থাকলেও যান্ত্রিক গোলযোগের কারণে তা স্থগিত করা হয়েছিল।

হাইব্রিড এয়ার ভেইকলস নামের ব্রিটিশ প্রতিষ্ঠান নির্মিত এই এয়ারল্যান্ডার-এর চারটি ইঞ্জিন থাকলেও কোনো অভ্যন্তরীণ অবকাঠামো নেই। নিজের কাঠামো ঠিক রাখতে এটি আলট্রালাইট কার্বন ফাইবার নির্মিত খোলকে প্রায় ৩৮,০০০ ঘনমিটার চাপে হিলিয়াম গ্যাস ধরে রাখে। এয়ারশিপের অ্যারোডায়নামিক গঠন আর বাতাসের চেয়ে কয়েকগুণ হালকা হিলিয়াম একসঙ্গে কাজ করে একে ভাসিয়ে রাখতে সাহায্য করে।

প্লেনটি মূলত মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের সামরিক নজরদারির জন্য পরিকল্পনা করা হয়েছিল। কিন্তু প্রতিরক্ষা খাতে খরচ কমানোর জন্য ২০১৩ সালে প্রকল্পটি বাতিল করে দেওয়া হয়। পরবর্তিতে হাইব্রিড এয়ার ভেহিকলস প্রচারণার মাধ্যমে দুইটি পৃথক তহবিল থেকে প্রায় ৩৪ লাখ পাউন্ড সংগ্রহ করে। এ ছাড়াও এই প্রকল্পের জন্য ইউরপিয়ান ইউনিয়ন আর যুক্তরাষ্ট্রও বিপুল পরিমাণ অর্থ সাহায্য দিয়েছে।

নির্মাতারা জানিয়েছেন, যানটি যোগাযোগ সরঞ্জাম বা অন্যান্য মালামাল বহন, অনুসন্ধান ও উদ্ধার অভিযান দায়িত্বগ্রহণসহ সামরিক ও বাণিজ্যিক জরিপ কাজ করতে ব্যবহৃত হবে।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

বিজ্ঞান প্রযুক্তি এর অারো খবর