গোপালগঞ্জ আওয়ামী লীগের সম্মেলন ঘিরে উজ্জীবিত নেতাকর্মীরা
গোপালগঞ্জ আওয়ামী লীগের সম্মেলন ঘিরে উজ্জীবিত নেতাকর্মীরা
২০১৫-১১-০৭ ১৫:২২:০৫
প্রিন্টঅ-অ+


প্রায় এক যুগ পর ১১ নভেম্বর গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে। সম্মেলনকে কেন্দ্র করে ঝিমিয়েপড়া দলীয় নেতাকর্মীরা উজ্জীবিত হয়ে উঠেছে। দলের বিভিন্ন পদপ্রত্যাশী নবীন-প্রবীণ নেতাকর্মীদের মধ্যে প্রতিযোগিতা শুরু হয়েছে। তারা স্থানীয় তৃণমূল নেতাকর্মী ও হাইকমান্ডের সঙ্গে জোর লবিং চালিয়ে যাচ্ছেন। ইতোমধ্যে হাইকমান্ডের নির্দেশনা অনুযায়ী উপজেলা, পৌর ও জেলা সম্মেলনের দিন ঠিক করা হয়েছে। জেলা ও উপজেলা কমিটির পদপ্রত্যাশীরা যে যার মতো কাজ করছেন। অনেক নেতা জেলা বা উপজেলা শহরে প্রচারণা মিছিল বের করছেন। উল্লেখ্য, সর্বশেষ ২০০৪ সালে জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হয়েছিল।

৬ নভেম্বর মুকসুদপুর উপজেলা, ৭ নভেম্বর কাশিয়ানী, ৮ নভেম্বর কোটালীপাড়া, ৯ নভেম্বর টুঙ্গিপাড়া, ১০ নভেম্বর গোপালগঞ্জ সদর উপজেলা ও পৌর আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হওয়ার তারিখ নির্ধারিত হয়েছে। সর্বশেষ ১১ নভেম্বর গোপালগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে।

জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক সালাউদ্দিন পান্না জানিয়েছেন, সম্মেলন সফল করতে নানা ধরনের প্রস্তুতি চলছে। ইতোমধ্যে বর্ধিতসভা অনুষ্ঠিত হয়েছে। সভায় জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রাজা মিয়া বাটুকে আহ্বায়ক করে কমিটি গঠন করা হয়েছে। শেখ ফজলুল হক মনি অডিটরিয়াম মূল ভেন্যু নির্ধারণ করা হয়েছে। জেলা সম্মেলনে কেন্দ্রীয় সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ আশরাফুল ইসলাম উপস্থিত থাকবেন।

এছাড়া প্রেসিডিয়াম সদস্য ও গোপালগঞ্জ-২ আসনের এমপি শেখ ফজলুল করিম সেলিম, গোপালগঞ্জ-১ আসনের এমপি লে. কর্নেল (অব.) মুহাম্মদ ফারুক খান, অ্যাডভোকেট উম্মে রাজিয়া কাজল এমপি, উপদেষ্টাম-লীর অন্যতম সদস্য কাজী আকরাম উদ্দিন আহমদ, কেন্দ্রীয় ধর্মবিষয়ক সম্পাদক শেখ মোহাম্মদ আব্দুল্লাহসহ বেশ কয়েকজন কেন্দ্রীয় নেতার উপস্থিত থাকার কথা রয়েছে।
জেলা সভাপতি পদে ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রাজা মিয়া বাটু, সাধারণ সম্পাদক ও গোপালগঞ্জ জেলা পরিষদের প্রশাসক চৌধুরী এমদাদুল হক, সিনিয়র সহ-সভাপতি রুহুল আমিন শেখ, সহ-সভাপতি শিকদার নূর মোহাম্মদ দুলু এবং সাধারণ সম্পাদক পদে যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মাহাবুব আলী খান, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান শেখ লুৎফর রহমান বাচ্চু, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক এসএম আক্কাস আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক সালাউদ্দিন পান্না, সদর উপজেলা সভাপতি শেখ মোহম্মদ ইউসুফ আলী, সাংগঠনিক সম্পাদক অ্যাডভোকেট এসএম মুনির হিটলার, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক বদরুল আলম বদরের নাম শোনা যাচ্ছে।

নেতৃত্বপ্রত্যাশী প্রায় সব নেতা এখন কেন্দ্রীয় নেতাসহ হাইকমান্ডে লবিংয়ে ব্যস্ত সময় পার করছেন। সম্মেলন কেন্দ্র করে দলের কাউন্সিলর ও ডেলিগেটদের কদর বেড়েছে। বিশেষ করে যারা দলের সভাপতি ও সাধারণ সম্পাদক পদে প্রার্থী হচ্ছেন_ তারা কাউন্সিলর ও ডেলিগেটদের সঙ্গে যোগাযোগ বাড়িয়ে দিয়েছেন। সব মিলিয়ে জেলায় এখন উৎসবের আমেজ বিরাজ করছে। সম্মেলন প্রস্তুত কমিটির আহ্বায়ক ও জেলা ভারপ্রাপ্ত সভাপতি রাজা মিয়া বাটু জানান, নির্দিষ্ট তারিখে সম্মেলন অনুষ্ঠিত হবে। সম্মেলনে সব ধরনের প্রস্তুতিমূলক কাজ চলছে।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

রাজনীতি এর অারো খবর