চিরতরে চলে গেলেন লেখক ও মানবাধিকার কর্মী মহাশ্বেতা দেবী
চিরতরে চলে গেলেন লেখক ও মানবাধিকার কর্মী মহাশ্বেতা দেবী
স্টাফ রিপোর্টার
২০১৬-০৭-২৯ ০৪:১৯:২৩
প্রিন্টঅ-অ+


লেখক ও মানবাধিকার কর্মী মহাশ্বেতা দেবী মারা গেছেন। বৃহস্পতিবার ভারতের কলকাতার বেল ভিউ ক্লিনিকে চিকিৎসাধীন অবস্থায় শেষ নিঃশ্বাস ত্যাগ করেন ৯০ বছর বয়সী এই লেখক।

গত দুই মাস ধরে বেল ভিউ ক্লিনিকে তার চিকিৎসা চলছিলো।সেই হাসপাতালের চিকিৎসকরা জানান, তাকে বার্ধক্যজনিত জটিলতায় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। পরে রক্তে ইনফেকশন ও কিডনি অকেজো হয়ে পড়ার কারণে তার মৃত্যু হয়।

মহাশ্বেতা তার প্রাতিষ্ঠানিক লেখাপড়া শেষ করেন শান্তিনিকেতনে, বিশ্বভারতীতে। তিনি সাহিত্য আকাদেমি, পদ্ম বিভূষণ ও ম্যাগসেসেসহ আরও বিভিন্ন পুরস্কারে ভূষিত হন। ঝাঁসির রাণী লক্ষ্মীবাইকে নিয়ে লিখে তিনি প্রথম সাহিত্য জগতের নজর কাড়েন। এ ছাড়াও মানবাধিকার ও নারী অধিকার প্রশ্নে সর্বদা সরব ছিলেন সদ্যপ্রয়াত এই লেখক।

মহাশ্বেতা ১৯২৬ সালে কলকাতার এক মধ্যবিত্ত পরিবারে জন্মগ্রহণ করেন। তার পিতা মনীশ ঘটক ছিলেন কল্লোল যুগের প্রখ্যাত সাহিত্যিক।তার কাকা ঋত্বিক ঘটক ছিলেন শক্তিশালী চলচ্চিত্র পরিচালক। মহাশ্বেতা বিয়ে করেছিলেন প্রখ্যাত নাট্যকার বিজন ভট্টাচার্যকে। মহাশ্বেতার পুত্র নবারুণ ভট্টাচার্যও অত্যন্ত শক্তিশালী লেখক ছিলেন। নবারুণ ২০১৪ সালে অন্ত্রে ক্যান্সারে মৃত্যুবরণ করেন।

মহাশ্বেতার গুরুত্বপূর্ণ ও জনপ্রিয় সাহিত্যকর্মের মধ্যে রয়েছে, হাজার চুরাশির মা, তিন কড়ির সাধ, অরন্যের অধিকার, হারানের নাতজামাই, চোট্টিমুন্ডা ও তার তীর, অগ্নিগর্ভ ইত্যাদি।

সূত্র: স্ক্রল ডট ইন, আনন্দবাজার পত্রিকা

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

বিদেশ এর অারো খবর