ফেইসবুকের সৌরচালিত প্লেন নিয়ে জাকারবার্গ
ফেইসবুকের সৌরচালিত প্লেন নিয়ে জাকারবার্গ
২০১৬-০৭-২৪ ১৭:৫২:১১
প্রিন্টঅ-অ+


চলতি বছর ২৮ জুন সফলভাবে নিজেদের প্রথম সৌরচালিত মনুষ্যবিহীন প্লেন উড়িয়েছে বিশ্বের সবচেয়ে বড় সামাজিক মাধ্যমে ফেইসবুক, নিজের অ্যাকাউন্ট থেকে এক পোস্টে এমনটা জানান প্রতিষ্ঠান প্রধান মার্ক জাকারবার্গ।

২১ জুলাই ফেইসবুকে ওই পোস্ট-এর মাধ্যমে অ্যাকুইলা নামের নতুন প্লেন-এর উড্ডয়ন সাফল্য বর্নণা করেন মার্ক। এই প্লেন সৌরশক্তিতে চালে এবং এটি মনুষ্যবিহীন প্লেনগুলোর সর্বোচ্চ ভ্রমণের রেকর্ড ভেঙ্গে ফেলে। এই প্লেনটির মূল লক্ষ্য হচ্ছে- পৃথিবীর প্রান্তিক অঞ্চলগুলোতে ইন্টারনেট সরবরাহ করা।

তিনি বলেন, “অ্যারিজোনা’র ইউমা এলাকায় সন্ধ্যার আগে প্লেনটির যাত্রা শুরু হয়। আমাদের মূল অভিযান ছিল প্লেনটিকে আধাঘণ্টা উড়ানো, কিন্তু সব কিছু এত ঠিকঠাকভাবে ছিল যে, আমরা একে ৯৬ মিনিট উপরে রাখার সিদ্ধান্ত নেই। আমরা আমাদের মডেল আর এয়ারক্রাফট কাঠামো নিয়ে অনেক তথ্য সংগ্রহ করেছি– আর দুই বছর কাজের পর, অ্যাকুইলা-কে সত্যিই মাটির উপড়ে উঠতে দেখা ছিল আবেগময়।”

জাকারবার্গ ব্যাখা করেন, তারা যে মাইলফলক-কে লক্ষ্য হিসেবে নিয়েছেন, আর এজন্য তাদের এখনও অনেক কাজ করতে হবে। তিনি জানান, তাদের লক্ষ্য এই প্লেনকে ৬০ ফুট উড়ানো, এক মাস পর্যন্ত একে ভাসমান রাখা এবং লেজার এর সঙ্গে এর যোগাযোগ ঠিক রাখা, যা আগে কখনও হয়নি।
মার্ক জানান, এই ধরনের লক্ষ্যকে সফল করতে তাদের প্রকৌশলগত অনেক সমস্যার সমাধান করতে হবে। এই সমস্যাগুলো নিয়ে বর্তমানে কাজ করছেন তারা, কয়কটির কথা উল্লেখও করেছেন তিনি।

একটি সমস্যা হচ্ছে ওজন। প্লেন-এর একো ডানা বোয়িং ৭৩৭-এর ডানার চেয়েও চওড়া, কিন্তু একে বেশিক্ষণ উড়াতে হলে এর ওজন কমিয়ে আনতে হবে। এ কারণে এর বডি বানানো হয়েছে কার্বন ফাইবার দিয়ে যেন পুরো প্লেনের ওজন এক হাজার পাউন্ড-এর কম হয়। তারা একে আরও হালকা বানানোর চেষ্টা করছেন।

ক্ষমতা– অ্যাকুইলা দিনের বেলা যে পরিমাণ সৌরশক্তি সংগ্রহ করবে তা এর প্রপেলার, যোগাযোগ ব্যবস্থা, আলোক ব্যবস্থা, হিটার আর এভিওনিক্স পরিচালনায় যথেষ্ট হতে হবে। এ কারণে এতে ব্যবহার করতে হয় পাঁচ হাজার ওয়াট ক্ষমতা, যা প্রায় ৩টি হেয়ার ড্রায়ার চালনার শক্তির সমান। এ ক্ষেত্রে আরও কার্যকরী ব্যবস্থা আনতে আগ্রহ প্রকাশ করেছেন জাকারবার্গ।
নিয়ন্ত্রণের ক্ষেত্রেও কিছু সমস্যার মুখোমুখি হওয়ার কথা জানিয়েছেন জাকারবার্গ। তিনি জানান, অ্যাকুইলা অনেকাংশেই স্বনির্ভর কিন্তু এটি এখনও প্রায় এক ডজন প্রকৌশলী, পাইলট আর যন্ত্রকারিগর নিয়ে বানানো একটি ‘গ্রাউন্ড ক্রু’-এর উপর নির্ভরশীল। এই দলটি নিচ থেকে প্লেনটি পরিচালনা ও পর্যবেক্ষণ করে। তারা এয়ারক্রাফটটির দিক নির্দেশনা, উচ্চতা, বাতাসে এর গতি নিয়ন্ত্রণ করেন বা প্লেনটিকে একটি জিপিএসভিত্তিক রুট ঠিক করে দেন। ভূমি ত্যাগ এবং ভূমিতে নেমে আসার কাজ একাই করতে পারে প্লেনটি।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

বিজ্ঞান প্রযুক্তি এর অারো খবর