দেশের প্রতিটি জলাশয় মাছ চাষের আওতায় আনার আহবান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী
দেশের প্রতিটি জলাশয় মাছ চাষের আওতায় আনার আহবান জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী
২০১৬-০৭-২০ ০৫:৫৩:৪৩
প্রিন্টঅ-অ+


প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের মৎস্য খাতের সার্বিক উন্নয়নে সংশ্লিষ্ট সবাইকে আরো নিষ্ঠার সঙ্গে কাজ করার আহবান জানিয়ে বলেন, বাংলাদেশের অভ্যন্তরীণ বদ্ধ জলাশয়ে মাছ চাষে বিশ্বে পঞ্চম স্থান অধিকার করেছে। এ ধারা অব্যাহত রাখার জন্য প্রতিটি জলাশয়কে মাছ চাষের আওতায় আনা একান্তভাবে প্রয়োজন।

তিনি ১৯-২৫ জুলাই ‘জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ-২০১৬’ উদ্যাপন উপলক্ষে আজ দেয়া এক বাণীতে এ আহবান জানান।

তিনি বলেন, দেশের আর্থ-সামাজিক উন্নয়নে মৎস্য খাত অত্যন্ত সম্ভাবনাময় একটি খাত। বর্ধিত জনগোষ্ঠীর প্রাণিজ আমিষের চাহিদা পূরণের পাশাপাশি কর্মসংস্থান সৃষ্টি, দারিদ্র্য বিমোচন, বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন ও নারীর ক্ষমতায়নের মাধ্যমে দেশের অর্থনীতিতে মৎস্য খাত তাৎপর্যপূর্ণ অবদান রেখে চলেছে। প্রত্যক্ষ বা পরোক্ষভাবে প্রায় ১৪ লাখ নারীসহ দেশের ১১ শতাংশের বেশি মানুষের জীবন-জীবিকা মৎস্য খাতের ওপর নির্ভরশীল।

তিনি বলেন, সরকার মৎস্য খাতের উন্নয়নে ব্যাপক কার্যক্রম বাস্তবায়ন করছে। লাগসই ও পরিবেশবান্ধব প্রযুক্তি ব্যবহার করে মাছ, চিংড়ি, কাঁকড়া ও কুচিয়াসহ সকল প্রকার মৎস্যসম্পদের উৎপাদন বাড়াতে উদ্যোগ গ্রহণ করা হয়েছে।

প্রাকৃতিক জলাশয়ের সুষ্ঠু ব্যবহার, জলজ জীববৈচিত্র্য সংরক্ষণ এবং পরিবেশবান্ধব ও উন্নত প্রযুক্তি মৎস্য চাষ ব্যবস্থাপনার সম্প্রসারণের ফলে দেশের মৎস্য উৎপাদন বৃদ্ধি পেয়ে ২০১৪-২০১৫ অর্থবছরে ৩৬ লাখ ৮৪ হাজার মেট্রিক টনে উন্নীত হয়েছে।

তিনি বলেন, মিয়ানমার ও ভারতের সঙ্গে সমুদ্রসীমা বিরোধ নিষ্পত্তির মাধ্যমে আমরা গভীর সমুদ্রে ১ লাখ ১৮ হাজার ৮১৩ বর্গকিলোমিটার এলাকার মালিকানা অর্জন করেছি।

বিশাল এই সমুদ্র এলাকার মৎস্য সম্পদের উন্নয়নে আমরা বঙ্গোপসাগরে গবেষণা ও জরিপ কার্য পরিচালনার জন্য ‘আর ভি মীন সন্ধানী’ নামে একটি সর্বাধুনিক প্রযুক্তিসম্পন্ন গবেষণা ও জরিপ জাহাজ ক্রয় করেছি। এই জাহাজের মাধ্যমে আমরা সমুদ্র এলাকায় মৎস্য আহরণ ক্ষেত্র চিহ্নিতকরণ, বিভিন্ন প্রজাতির মৎস্য সম্পদের মজুদ নির্ণয় ও সর্বোচ্চ সহনশীল আহরণমাত্রা নির্ধারণ করতে সক্ষম হব।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা বিশাল সমুদ্র এলাকায় সামুদ্রিক মৎস্যসম্পদ ব্যবস্থাপনার লক্ষ্যে একটি পূর্ণাঙ্গ স্বল্প, মধ্য ও দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনা প্রণয়ন করেছি। এ সকল পদক্ষেপ বাংলাদেশের অর্থনৈতিক উন্নয়ন তথা মৎস্য আহরণ, বৈদেশিক মুদ্রা অর্জন ও জীবিকা নির্বাহের ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে বলে আমার বিশ্বাস।

প্রধানমন্ত্রী এ উপলক্ষে দেশের মৎস্য চাষি ও মৎস্যজীবীসহ মৎস্য খাত সংশ্লিষ্ট সকলকে শুভেচ্ছা জানান এবং জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ ২০১৬ এর প্রতিপাদ্য ‘জল আছে যেখানে, মাছ চাষ সেখানে’ অত্যন্ত সময়োপযোগী হয়েছে বলে উল্লেখ করেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমাদের সরকার রূপকল্প ২০২১ ও ২০৪১ বাস্তবায়নের মাধ্যমে বাংলাদেশকে সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙালি, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের স্বপ্নের সোনার বাংলায় পরিণত করতে কাজ করে যাচ্ছে। বিপুল সম্ভাবনাময় মৎস্যখাত এ লক্ষ্য অর্জনে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে। তিনি জাতীয় মৎস্য সপ্তাহ ২০১৬ উপলক্ষে আয়োজিত সকল কর্মসূচির সাফল্য কামনা করেন।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

বিবিধ এর অারো খবর