ইয়াসির শাহের ঘূর্ণিতে ২০ বছর পর লর্ডস জয়ের স্বাদ পেল পাকিস্তান
ইয়াসির শাহের ঘূর্ণিতে ২০ বছর পর লর্ডস জয়ের স্বাদ পেল পাকিস্তান
স্টাফ রিপোর্টার
২০১৬-০৭-১৮ ০৪:৫৩:১৫
প্রিন্টঅ-অ+


দারুণ এক জয়ের হাতছানি পাকিস্তানের সামনে। এই মুহূর্তে খেলার পরিস্থিতি, ইতিহাস—সবই তাদের পক্ষে। জয়ের জন্য ইংল্যান্ডের সামনে ২৮৩ রানের লক্ষ্য দিয়েছে পাকিস্তান। লর্ডসে এর আগে চতুর্থ ইনিংসে ২৮২ রানের বেশি রান তাড়া করে জয়ের রেকর্ড মাত্র দুটি। বরং হেরে যাওয়ার রেকর্ডই আছে ছয়বার। ড্র হয়েছে চারটি। দ্বিতীয় ইনিংসের শুরুতেই ইংল্যান্ডের ৩ উইকেট ফেলে দিয়ে অতীত রেকর্ডটাকেই যেন মনে করাচ্ছে পাকিস্তান। মধ্যাহ্ন বিরতি পর্যন্ত ৩ উইকেটে ৯০ করেছে ইংল্যান্ড।

তিনটি উইকেটই রাহাত আলীর। নিজের সপ্তম ও ইনিংসে ১৪ ওভারের মধ্যেই তিনি সাজঘরে ফিরিয়েছেন কুক, হেলস ও রুটকে। ৪৭ রানে ৩ উইকেট হারানোর পর পাল্টা আক্রমণে দলকে পথ দেখাচ্ছিলেন ভিন্স। অথচ ভিন্সকেও প্রায় ফিরিয়েই দিয়েছিলেন রাহাত। ইউনুস দ্বিতীয় চেষ্টাতেও ​নিতে পারেননি ক্যাচ। অথচ ভিন্স তখন ব্যাট করছিলেন ৯ রানে। ততক্ষনে ভিন্স ও ব্যালান্স কিছুটা প্রতিরোধ গড়ে তোলেন। কিন্তু ওয়াহাব রিয়াজের বলে ইউনিস খানের কাছে ক্যাচ দিয়ে ভিন্স সাজ ঘরে ফিরে গেলে পাকিস্তান পরম আকাঙ্ক্ষিত জয়ের আরও কাছে পৌঁছে যায়। কিন্তু পাকিস্তানের জয়ের প্রতিক্ষা বাঁড়ায় ব্যালান্স-বেয়ারস্টো জুটি। ইয়াসির শাহ হয়ত একটু তাড়াহুড়োতেই ছিলেন। কেননা তার ঘূর্ণিতেই তো লণ্ডভণ্ড হয়ে গেল ইংল্যান্ডের টেল এন্ড।
অবশ্য ইংল্যান্ডের কফিনে শেষ পেরেক দুটি ঠোকেন এই সিরিজের সবচেয়ে আলোচিত সমালোচিত মোহাম্মদ আমির। সংবাদ সম্মেলনে অধিনায়ক মিসবাহর প্রশংসার বৃষ্টিতে তাই ইয়াসির শাহের পাশাপাশি ভিজলেন ঐ মোহাম্মদ আমিরও। সূত্র : ইএসপিএন।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

ক্রীড়া এর অারো খবর