সাগরে তেল-গ্যাস খুঁজবে বাপেক্স
সাগরে তেল-গ্যাস খুঁজবে বাপেক্স
২০১৬-০৬-২৮ ১৯:১৯:০৮
প্রিন্টঅ-অ+


বঙ্গোপসাগরে তেল-গ্যাস অনুসন্ধানে যাচ্ছে রাষ্ট্রীয় কোম্পানি বাপেক্স। তাদের এই কর্মযজ্ঞে সহায়তা করবে অস্ট্রেলিয়ার তেল কোম্পানি স্যান্তোস। বঙ্গোপসাগরের ১৬ নম্বর ব্লকের মগনামা নামক স্থানে এই দুই কোম্পানি যৌথ উদ্যোগে কূপ খনন করবে।

কোনো বিদেশি কোম্পানির সঙ্গে যৌথ উদ্যোগের অংশীদার হওয়া এবং সমুদ্রবক্ষে তেল-গ্যাস অনুসন্ধানে অংশ নেওয়াÍ দুটিই বাপেক্সের জন্য এই প্রথম। এই কাজের মাধ্যমে বাপেক্সের জনবল নতুন ধারার কাজ ও অভিজ্ঞতায় সমৃদ্ধ হওয়ার সুযোগ পাবে। আরও দু-একটি বিদেশি কোম্পানির সঙ্গে বাপেক্সের যৌথ উদ্যোগ গড়ে তোলার কথাবার্তা অনেক দিন ধরেই চলে আসছে।

সোমবার বেলা ১১টায় কারওয়ান বাজারের বাপেক্স ভবনে দুই কোম্পানির মধ্যে এ-সংক্রান্ত চুক্তি সই হচ্ছে। বাপেক্সের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মো. আতিকুজ্জামান এ খবর জানিয়েছেন।

জ্বালানি মন্ত্রণালয় ও বাপেক্সের সংশ্লিষ্ট সূত্রগুলো জানায়, বাপেক্স মগনামায় অনুসন্ধানে ৪০ থেকে ৫০ শতাংশ অংশীদারত্ব নিতে পারে। এ কারণে গ্যাস উন্নয়ন তহবিল থেকে বাপেক্সকে প্রয়োজনীয় অর্থ সহায়তা দেওয়ার জন্য সরকারের উচ্চপর্যায়ে সিদ্ধান্ত হয়েছে।

মগনামায় কূপ খননের একটি কর্মপরিকল্পনাও বাপেক্সকে দিয়েছে স্যান্তোস। এরপর বাপেক্স বিদেশি কোম্পানির সঙ্গে যৌথ উদ্যোগে আরও বৃহত্তর ক্ষেত্রে তেল-গ্যাস অনুসন্ধানে যাবে। সম্ভাবনাময় মগনামা থেকে তার সূচনা হবে। এরপর পর্যায়ক্রমে তা আরও সম্প্রসারিত হবে।

বাপেক্সের সূত্র জানায়, মগনামা জায়গাটি ১৬ নম্বর ব্লকের সাঙ্গু গ্যাসক্ষেত্রের অদূরে। উৎপাদন অংশীদারত্ব চুক্তির (পিএসসি) অধীনে যুক্তরাজ্যের কোম্পানি কেয়ার্ন এনার্জি পিএলসির জরিপে সেখানে তেল-গ্যাস পাওয়ার সম্ভাবনা (লিড) চিহ্নিত হয়েছিল। কিন্তু তারা সেখানে কূপ খনন করেনি। একপর্যায়ে কেয়ার্ন ১৬ নম্বর ব্লক স্যান্তোসের কাছে হস্তান্তর করে চলে যায়।

ইতিমধ্যে উত্তোলনযোগ্য মজুত শেষ হয়ে যাওয়ায় সাঙ্গু গ্যাসক্ষেত্রটি বন্ধ করে দেওয়া হয়। এরপর স্যান্তোস মগনামার জরিপ প্রতিবেদন আরও বিশ্লেষণ করে সেখানে অনুসন্ধান কূপ খননের সিদ্ধান্ত নেয়। তবে এ জন্য তারা একটি সহ-অংশীদার কোম্পানি নিতে আগ্রহ প্রকাশ করে। এই পর্যায়ে সরকার সিদ্ধান্ত নেয় বাপেক্সকে স্যান্তোসের সহ-অংশীদার করার। মন্ত্রণালয় সূত্র বলেন, মগনামায় গ্যাস পাওয়া গেলে সাঙ্গু ক্ষেত্রের গ্যাস উত্তোলন ও সরবরাহের জন্য ব্যবহৃত অবকাঠামোর মাধ্যমেই তা সরবরাহ করা যাবে। শুধু মগনামা থেকে সাঙ্গু পর্যন্ত একটি পাইপ লাইন করতে হবে। অবশ্য পিএসসির বিধান অনুযায়ী বাপেক্স এ দেশে কর্মরত কয়েকটি বিদেশি কোম্পানির ১০ থেকে ২০ শতাংশ মুনাফার অংশীদার। এ জন্য বাপেক্সকে কোনো বিনিয়োগ করতে হয় না। আবার বাপেক্সের কোনো জনবল এসব কোম্পানির সঙ্গে কাজ করারও সুযোগ পায় না। স্যান্তোসের সঙ্গে অংশীদারত্ব সে রকম নয়। এ ক্ষেত্রে বাপেক্স বিনিয়োগও করবে। বাপেক্সের জনবলও সরাসরি কাজে অংশ নেবে।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

বিবিধ এর অারো খবর