উত্তরায় লিফটের রশি ছিঁড়ে ৬ জন নিহত
উত্তরায় লিফটের রশি ছিঁড়ে ৬ জন নিহত
২০১৬-০৬-২৫ ০৮:২১:১০
প্রিন্টঅ-অ+


রাজধানীর উত্তরার ৩ নম্বর সেক্টরে আলাউদ্দিন টাওয়ারের লিফটের রশি ছিঁড়ে ছয়জন মারা গেছেন। তবে তাদের পরিচয় নিশ্চিত হওয়া যায়নি। একই ঘটনায় সেখানে আগুন লেগে আহত হয়েছেন অন্তত ২০ জন। আহতদের মধ্যে একই পরিবারের তিনজন গুরুতর দগ্ধ হন। তাদের ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

শুক্রবার সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে এ ঘটনা ঘটে।

ফায়ার সার্ভিস জানায়, সন্ধ্যায় আলাউদ্দিন টাওয়ারের লিফট ছিড়ে পড়ার পর অগ্নিকাণ্ডের সূত্রপাত হয়। এতে ওই মার্কেটে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। ঈদের কেনাকাটার জন্য এ সময় মার্কেটে শতশত ক্রেতা ছিলেন।

ফায়ার সার্ভিসের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল মোহাম্মদ আলী আহম্মেদ খান জানান, লিফটের রশি ছিঁড়ে পড়ে এ হতাহতের ঘটনা ঘটে। ভবনটির বেজমেন্টে একটি নামাজের স্থান ছিল। লিফট ছিঁড়ে নিচে পড়লে নামাজের ঘরের দেয়াল ভেঙে যায়। এতে হতাহতের ঘটনা ঘটেছে। আহতদের বিভিন্ন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। লিফটের পাশের দেয়াল দুর্বল ছিল। তাই লিফট ছিড়ে নিচে পড়ার পর এর আঘাতে দেয়াল ভেঙে যায়।

ফায়ার সার্ভিসের ঢাকা অঞ্চলের উপ-পরিচালক মোজাম্মেল হক ঘটনাস্থল থেকে সমকালকে জানান, লিফটের রশি ছিড়ে পড়ার পর বিস্ফোরণ হয়। এতে লিফটের পাশের দেয়াল ধসে বেজমেন্টে অপেক্ষমান কয়েকজনের ওপর পড়ে। এতে ছয়জন নিহত হয়েছেন।

ফায়ার সার্ভিসের নিয়ন্ত্রণ কক্ষের পরিদর্শক মাহমুদুল হক সমকালকে জানান, সন্ধ্যা সাড়ে ৬টার দিকে আগুন লাগে। পরে ফায়ার সার্ভিসের ১৩টি ইউনিট প্রায় একঘণ্টা চেষ্টা চালিয়ে আগুন নিয়ন্ত্রণে আনে। এই ঘটনায় ছয়জন নিহত হয়েছেন। তারা ১৭ তলা ভবনের বেজমেন্টে বসে ইফতারির প্রস্তুতি নিচ্ছিলেন। ইফতারির ঠিক আগেই ওই দুর্ঘটনা ঘটেছে। উদ্ধার কাজের সময় রিয়াজউদ্দিন নামে একজন দমকলকর্মী আহত হয়েছেন ।

প্রত্যক্ষদর্শী ও পুলিশ জানায়, ইফতারির কিছু আগে হঠাৎ করে বিকট শব্দ হয়। এসময় দেখা যায় ১৭ তলা বিশিষ্ট আলাউদ্দিন টাওয়ারের একটি ক্যাপসুল লিফটে বিস্ফোরণ ঘটে আগুন ধরে গেছে। এসময় পাশের আরেকটি লিফটও ছিঁড়ে পড়ে। এতে কয়েকজন দগ্ধ হন। বিস্ফোরণে ওই ভবনে বেশকিছু কাঁচের দরজা জানালা ভেঙে গেছে। ভবনটির ৬তলা পর্যন্ত বাণিজ্যিক প্রতিষ্ঠান রয়েছে। ওপরের সব তলা আবাসিক হিসেবে ব্যবহৃত হয়। অগ্নিকাণ্ডের পর প্রথমে ফায়ার সার্ভিসের চারটি ইউনিট ঘটনাস্থলে যায়। এরপর আরও ৯টি ইউনিট তাদের সঙ্গে যোগ দেয়।

ঘটনাস্থলে গিয়ে দেখা যায়, হাজার হাজার জনতা ভবনটি ঘিরে জড়ো হয়েছেন। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সদস্যরা আশপাশে অবস্থান নিয়েছেন। ফায়ার সার্ভিসের কর্মীরা উদ্ধার তৎপরতা চালাচ্ছে। গুরুতর দগ্ধ একই পরিবারের তিনজনকে রাতেই ঢাকা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালের বার্ন ইউনিটে ভর্তি করা হয়েছে। তারা হলেন, মাহমুদুল হাসান (৩৫), তার মেয়ে মাইসা(৮ মাস) ও ছেলে মুসতাকিম (১০)।

চিকিৎসক জানিয়েছেন, মাহমুদুলের শরীরের ৮০ শতাংশ দগ্ধ হয়েছে; মাইসার ৫৫ শতাংশ ও মুসতাকিমের ২৩ শতাংশ পুড়ে গেছে।

ঢাকা মহানগর পুলিশের উত্তরা জোনের উপ কমিশনার (ডিসি) বিধান ত্রিপুরা জানান, তারা ছয় জন নিহত হওয়ার খবর পেয়েছেন।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

বিবিধ এর অারো খবর