চিকিৎসাবিজ্ঞানের নতুন বিস্ময় ‘ই-স্কিন’
চিকিৎসাবিজ্ঞানের নতুন বিস্ময় ‘ই-স্কিন’
২০১৬-০৫-২১ ১৬:৫৪:২১
প্রিন্টঅ-অ+


মানুষের শরীরের স্কিন বা চামড়াকে সর্ববৃহৎ অঙ্গ বলা হয়। অার এই স্কিন যদি মানুষের রোগ নির্ণয় করতে সক্ষম হয় তাহলে কেমন হয়? ভাবতেই কেমন জানি চমক লাগছে। জাপানের এক বিজ্ঞানী এমনই এক স্কিন তৈরি করেছেন যা রোগ নির্ণয় করতে সক্ষম হবে। তার আবিষ্কৃত স্কিনকে ‘বায়োনিক’ বা ‘ই-স্কিন’ বলা হচ্ছ।

স্কিনটি আবিষ্কার করেছেন জাপানের টোকিও বিশ্ববিদ্যালয়ের বিজ্ঞানী তাকাও সমেয়া। তার এ অাবিষ্কার চিকিৎসাবিজ্ঞানে নতুন দিগন্ত উন্মুচন করবে বলে আশা করা হচ্ছে। খবর সিএনএন’র তাকাওর বায়োনিক স্কিনটির মাধ্যমে একজন মানুষের শরীরের অভ্যন্তরে কী ঘটছে তা জানা সম্ভব হবে।
এটি একজন চিকিৎসকে কারো অসুস্থতার ব্যাপারে তথ্য সরবরাহ করবে, কারো শরীর কখন অসুস্থ হয়ে পড়বে এ ব্যাপারে সতর্কবার্তা দিতে পারবে। এমনকি এর মাধ্যমে অন্য একজন মানুষের রোগ নির্ণয়ও করা যাবে। আর এসব কিছুই হবে কেবল স্পর্শের মাধ্যমে।

বায়োনিক স্কিনটি পশুপাখির পালকের মতো হালকা। তা সত্ত্বে এর দীর্ঘস্থায়িত্ব রয়েছে। স্কিনটি একদিন চিকিৎসাবিজ্ঞানে বৈপ্লবিক পরিবর্তন আনবে বলে সংশ্লিষ্টদের মত।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

স্বাস্থ্য এর অারো খবর