মরহুম দুই প্রকৌশলীর স্মরণে আইইবি’তে দোয়া মাহফিল
মরহুম দুই প্রকৌশলীর স্মরণে আইইবি’তে দোয়া মাহফিল
২০১৬-০৫-১৬ ১৩:৫৪:৫৬
প্রিন্টঅ-অ+


ইঞ্জিনিয়ারিং ইন্সটিটিউশন, বাংলাদেশ(আইইবি) –এর প্রাক্তন সম্মানী সাধারণ সম্পাদক ও ভাইস প্রেসিডেন্ট মরহুম প্রকৌশলী সেরাজুল মজিদ মামুন, পিইঞ্জ এবং ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী ও আইইবি’র কেন্দ্রীয় কাউন্সিল সদস্য মরহুম প্রকৌশলী মোঃ আনোয়ার হোসেন পাটওয়ারি স্মরণে আজ ১৫ মে রবিবার বিকাল ৫ টা ৩০ মিনিটে আইইবি পুরাতন ভবনের সেমিনার কক্ষে আলোচনা ও দোয়া মাহফিলের আয়োজন করা হয়। এতে আইইবি’র বর্তমান ও প্রাক্তন নেতৃবৃন্দসহ মরহুমের পরিবারবর্গ , বন্ধুবান্ধব ও শুভাকাঙ্ক্ষীরাও উপস্থিত ছিলেন।

আছরের নামাজের পর পরই সেমিনার কক্ষে উপস্থিত সকলে সমবেত হতে থাকে এবং স্বল্প সময়ের মধ্যেই পুরো সেমিনার কক্ষ পরিপূর্ণ হয়ে যায়। শুরু হয় আলোচনা সভা। নবীন-প্রবীণ প্রকৌশলীরা সহভাগিতা করেন পৃথিবী থেকে বিদায় নেয়া এই দুই প্রথিতযশা প্রকৌশলীর সাথে কাটানো পুরনো স্মৃতি এবং অভিজ্ঞতা। বিশেষ করে খুব সম্প্রতি প্রকৌশলী আনোয়ার হোসেন পাটওয়ারির এই অকালে চলে যাওয়াই অধিক রক্তক্ষরণ ঘটিয়েছে প্রকৌশলীদের হৃদয়ে। যা স্পষ্টই ফুটে উঠছিল তাদের স্মৃতিচারনায়।

আর সব্যসাচী ব্যক্তিত্ব প্রকৌশলী সেরাজুল মজিদ মামুনের মৃত্যু হতবিহব্বল করে দিয়েছে সমগ্র প্রকৌশল অঙ্গনকে।

তার স্মৃতিচারণা করতে গিয়ে দেশবরেণ্য ব্যক্তিত্ব, অধ্যাপক, সাবেক তত্ত্বাবধায়ক সরকারের মাননীয় উপদেষ্টা এবং আইইবি’র প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট ডঃ জামিলুর রেজা চৌধুরী বলেন, “১৯৫৩ সাল থেকে সেরাজুল মজিদ মামুনের সাথে আমার পরিচয়। সময়ের সাথে সাথে আমাদের ঘনিষ্ঠতা বৃদ্ধি পেয়েছে। এই দীর্ঘ সময়ে মামুন সম্বন্ধে আমার বিশ্লেষণ সে অত্যন্ত মেধাবী একজন মানুষ। পাশাপাশি সে একজন ‘বরন লিডার’। মিডিয়া ব্যক্তিত্ব হিসেবেও সে পাকিস্তান আমল থেকেই সুপ্রতিষ্ঠিত। বিটিভি তে তার ভরাট কণ্ঠের সংবাদ পাঠ শুনে বড় হয়েছে বাংলাদেশের কয়েকটি প্রজন্ম। তাই তার মত একজন মানুষের চলে যাওয়া দেশ ও জাতির জন্য বড় ক্ষতি”।

মরহুম প্রকৌশলী সেরাজুল মজিদ মামুনের আরেক শুভাকাঙ্ক্ষী এবং দীর্ঘদিনের সহকর্মী বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য এবং আইইবি’র প্রাক্তন প্রেসিডেন্ট ডঃ নজরুল ইসলাম স্মৃতিচারনা করতে গিয়ে বলেন, “ছাত্রজীবন থেকে সেরাজুল মজিদ মামুনের সাথে আমার পরিচয়। মানুষ হিসেবে তিনি ছিলেন অতুলনীয়। পরিচয়ের প্রথম থেকেই তার নেতৃত্বের গুণাবলী আমাকে মুগ্ধ করত। কোনো কাজে হাত দেয়ার পর সে কাজ যথাযথভাবে সম্পন্ন না হওয়া পর্যন্ত তিনি লেগে থাকতেন একাগ্র চিত্তে। আর পর্দার আড়ালে থেকে কাজ করতেই তিনি স্বাচ্ছন্দ্যবোধ করতেন”।

অন্যদিকে মরহুম প্রকৌশলী মোঃ আনোয়ার হোসেন পাটওয়ারি স্মৃতিচারনাও চলতে থাকে। আইইবি’র ভাইস প্রেসিডেন্ট মোঃ নুরুজ্জামান বলেন, “মৃত্যু অবধারিত। আল্লাহ যখন যার মৃত্যু লিখে রেখেছেন তার মৃত্যু তখনি। তবুও মোঃ আনোয়ার হোসেন পাটওয়ারির এই অকাল মৃত্যু আমাদের মেনে নিতে কষ্ট হচ্ছে। কারন মৃত্যুর পূর্বে তার কর্মক্ষেত্র ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী পদে চাকরী করা অবস্থা তিনি অনেক মানসিক চাপের মধ্যে ছিলেন। তাই, আমাদের প্রকৌশলীদের দায়িত্ব তার এই মৃত্যুর রহস্য উৎঘাটন করা”।

একইভাবে অন্যান্য প্রকৌশল নেতৃবৃন্দ প্রকৌশলী মোঃ আনোয়ার হোসেন এর এই মৃত্যুর জন্য তার কর্মক্ষেত্রের চাপ এবং বৈষম্যকেই দায়ী করেন।

এছাড়াও আলোচনায় বক্তব্য রাখেন ইঞ্জিঃ আবুল কালাম হাজারী, ইঞ্জিঃ মনির পাঠান, আইইবি’র সম্মানী সহ-সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিঃ মঞ্জুরুল হক মঞ্জু, আইইবি’র সাবেক প্রেসিডেন্ট অধ্যাপক নুরুল হুদাসহ আরও অনেকে।
আলোচনা সভার পর মিলাদ মাহফিলের আয়োজন করা হয়।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

প্রকৌশল সংবাদ এর অারো খবর