সৌরবিদ্যুৎ দ্বারা চালিত সোলার সাইকেল
সৌরবিদ্যুৎ দ্বারা চালিত সোলার সাইকেল
২০১৫-১১-১৪ ১৪:৫২:৪৯
প্রিন্টঅ-অ+


সৌরবিদ্যুৎ দ্বারা চালিত বাইসাইকেল! দেখতে ও শুনতে অদ্ভুত মনে হলেও এমন একটি সাইকেল তৈরী করেছে দিনাজপুর পলিটেকনিক ইন্সটিটিউট এর তিনজন ছাত্র। বন্ধুত্বের খাতিরে তিন জন মিলে মেধা খাটিয়ে তৈরী এ ধরনের দ্রুত গতি সম্পন্ন ও সাশ্রয়ী সাইকেল বাংলাদেশে এটাই প্রথম। যার নাম দেয়া হয়েছে-সোলার সাইকেল।

দিনাজপুর পলিটেকনিক ছাত্র ইন্সটিটিউটের স্কিল প্রজেক্ট-এ এই প্রথম সোলার সাইকেল তৈরী করেছে ইন্সটিটিউটের পাওয়ার টেকনোলজির ৬ষ্ঠ পর্বের ২য় শিফট এর ছাত্র শহরের বাসুনিয়াপট্টিস্থ মাধব মল্লিক এর ছেলে বিজয় মল্লিক (১৮), সদর উপজেলার মাসিমপুর গ্রামের আব্দুস সামাদের ছেলে সাব্বির হোসেন(১৮) ও নীলফামারী জেলার বেড়াকুঠি’র হেমন্ত কুমার রায় এর ছেলে শান্ত কুমার রায় (১৮)। তারা তিন বন্ধু মিলে এই সোলার সাইকেলের আবিস্কারক ।

তারা জানায়, এই সোলার সাইকেলে কোন চার্জের খরচ নেই। দিনের বেলায় এটি সুর্যের আলোয় চার্জ হয় এবং যদি রাতে চালানো যায় তাহলে রাস্তায় অন্যান্য যানবাহনের হেড লাইটের আলোতেও এটি চার্জ হবে। আর ১ ঘন্টায় ২০/২৫ কিলোমিটার চলবে।
সাব্বির হোসেন বলেন, স্বাভাবিক সাইকেল যেভাবে প্যাডেল ব্যবহার করে চালাতে হয় ঠিক সেভাবেই চলাতে হবে। তাতে অটোমেটিক ব্যাটারীগুলো চার্জ হতে থাকবে। আর এই সাইকেল বেশি ভারিও নয়। এটি সাধারন সাইকেলের থেকে অনেক দ্রুত গতি সম্পন্ন। মটর লাগানো তবুও বিদ্যুত খরচ করে চার্জ দিতে হয় না। আর তেল খরচ নেই।

শহরেও এটির চাহিদা আছে অনেক। সাইকেল টি শহরে বের করলেই সবাই কেমন যেন অবাক দৃষ্টিতে তাকিয়ে থাকে। আর বর্তমানে মটর সাইকেলের পাশাপাশি আরেকটি বৈদ্যুতিক চার্জে চালিত সাইকেল বাজারে পাওয়া যাচ্ছে। কিন্তু তার দামও অনেক বেশি।

শান্ত কুমার রায় জানান, এ ধরনের একটি সোলার সাইকেল তৈরী করতে প্রয়োজন একটি যে কোন সাইকেল, ২০ ওয়াটের ১টি সোলার প্যানেল, ২৪ ভোল্টের ২টি ব্যাটারী, পিকআপ সেট, ১টি ডিসি মটর ও ১টি আইপিএস। আর এতে খুব জোর হলে খরচ হয় প্রায় ১২ থেকে ১৫ হাজার টাকা।

আমরা মনে করি যেহেতু এটি বাণিজ্যিক ভাবে দেশের জন্য লাভজনক সেহেতু সরকারি কোন সুযোগ সুবিধা পেলে আমরা এটাকে বাজারজাত করতে পারবো। যা আমাদের চলার পথকে ছোট করে দেবে ও দেশের জন্য অনেক লাভজনক হবে।

পাওয়ার টেকনোলজির বিভাগীয় প্রধান বেলায়েত হোসেন জানায়, আমার বিভাগের ছাত্ররা এই সোলার সাইকেল আবিস্কার করায় গর্বিত। কারন বিদ্যুতের অপচয় রোধ করে সোলার সাইকেল আবিস্কার করায় দেশের জন্য অনেক পাওয়া জাতির জন্য অনেক পাওয়া। এই সোলার সাইকেল একদিকে যেমন বিদ্যুতের সাশ্রয় তেমনি পরিবেশ বান্ধবও বটে ।

দিনাজপুর পলিটেকনিক ইন্সটিটিউটের অধ্যক্ষ আমিনুল রহমান সরকার জানায়, এই প্রথম আমার ইন্সটিটিউটের ছাত্ররা দেশের প্রথম সোলার সাইকেল আবিস্কার করায় আমি ও আমার প্রতিষ্ঠান গর্বিত। তিন ছাত্রের তৈরীর অনুপ্রেরনায় আমরা আরোও নতুন নতুন কিছু আবিস্কার করতে পারবো। যা আমাদের দেশের সম্মান বয়ে নিয়ে আসবে । তিনি আরোও বলেন এমন নতুন কিছু আবিস্কারের জন্য ছাত্রদেরকে সকল ধরনের সহযোগিতা প্রতিষ্ঠান করবে ।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

বিশেষ প্রতিবেদন এর অারো খবর