সংবাদপত্রের প্রিন্ট ভার্সনের দিন কি শেষ হয়ে আসছে!
সংবাদপত্রের প্রিন্ট ভার্সনের দিন কি শেষ হয়ে আসছে!
২০১৬-০৩-২৮ ১৫:৫৮:৫৭
প্রিন্টঅ-অ+


দি ইন্ডিপেনডেন্ট ব্রিটেনের ৩০ বছরের পুরনো এবং বহুলপঠিত সংবাদপত্র। বাজারে এসেছে এ সংবাদপত্রের সবশেষ প্রিন্ট সংস্করণ। প্রিন্ট ভার্সন বন্ধ করে দিয়ে এখন থেকে শুধু অনলাইনেই প্রকাশিত হবে পত্রিকাটি।

ইন্ডিপেনডেন্টই ব্রিটেনের মূলধারার পত্রিকাগুলোর ভেতর প্রথম যেটি ছাপা থেকে অনলাইনে রুপান্তরিত হলো। বলা হচ্ছে, পত্রিকার কাটতি না থাকায় শুধু বিজ্ঞাপন বেচেই টিকে আছে অনেক কাগজ। তাহলে কি পাশ্চাত্যে খবরের কাগজের দিন শেষ হয়ে আসছে?

এ ব্যপারে লন্ডনে গবেষণারত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের গণযোগাযোগ ও সাংবাদিকতা বিষয়ক শিক্ষক শামীম রেজা বলছিলেন এখনই এভাবে মূল্যায়ন করাটা কঠিন,তবে একটা চ্যালেঞ্জ লক্ষ্য করা যাচ্ছে- অধিকাংশ যে সংবাদপত্রগুলো যেগুলোকে আমরা চিনি- যেসব পত্রিকা এখানে প্রভাবশালী, বিশেষ করে সমাজ, রাজনীতি বা সংস্কৃতির ক্ষেত্রে যে পত্রিকাগুলো প্রভাবশালী তাদের পাঠক সংখ্যা কমেছে-মুদ্রিত যে অংশ সে অংশের পাঠক কমছে

কেন মুদ্রিত কাগজের সংখ্যা কমছে? এই প্রশ্নের উত্তরে দি ইন্ডিপেনডেন্ট -এর প্রসঙ্গ উল্লেখ করে শামীম রেজা বলেন, এ পত্রিকাটি খবরের কাগজ থেকে ওইভাবে রাজস্ব তুলতে পারছিল না। আর খবরের কাগজের পাঠক সংখ্যাও কিন্তু ব্যাপক হারে কমে গিয়েছিল- কয়েক লক্ষ থেকে ৩০ হাজারে নেমে এসেছিল।

তিনি আরও বলেন, তিন দশকের পুরনো এই সংবাদপত্রটি ওইভাবে রাজস্ব তুলতে না পারার কারণে এই সিদ্ধান্তে এসেছে-আর তাদের কাগজের সংস্করণের তুলনায় অনলাইনে পাঠকও বেশি। ব্রিটেনের অন্যান্য কাগজগুলোও একই অবস্থার মধ্যে পড়ছে। কাগজের বিক্রি আগের তুলনায় কমেছে। তবে তাদের পাঠক সংখ্যা ইন্ডিপেনডেন্টের মতো এত কমেনি। এটা ঠিক এখন পাঠকেরা ছাপার সংস্করণ থেকে আস্তে আস্তে অনলাইনের দিকে ঝুঁকছেন।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

বিদেশ এর অারো খবর