ইতিহাসের স্মরণীয় লড়াইয়ে বাংলাদেশের ১ রানে পরাজয়
ইতিহাসের স্মরণীয় লড়াইয়ে বাংলাদেশের ১ রানে পরাজয়
২০১৬-০৩-২৪ ০৩:৩৯:৪৮
প্রিন্টঅ-অ+


বেঙ্গালুরুর চিন্নাস্বামী স্টেডিয়ামে বাঁচা-মরার লড়াইয়ে মুখোমুখি হয় বাংলাদেশ ও ভারত। তবে টান টান উত্তেজনায় মাত্র ১ রানে হেরে গেলো বাংলাদেশ।

এ যেন পুরোপুরে এক দুঃস্বপ্ন। নিশ্চিত জয়ের ম্যাচ এভাবে হেরে যেতে হলো! শেষ ওভারের অবিশ্বাস্য নাটকীয়তায় মাত্র ১ রানে হেরে যেতে হলো বাংলাদেশকে। ভারতের করা ১৪৬ রানের জবাব দিতে নেমে ৯ উইকেটে ১৪৫ রানেই থেমে যেতে হলো বাংলাদেশকে।

অথচ জয়ের কত কাছে চলে এসেছিল বাংলাদেশ। শেষ ওভারে ১১ রান প্রয়োজন। মুশফিকুর রহিম পরপর দুটি বাউন্ডারি মেরে জয়টাকে একেবারে হাতের মুঠোয় নিয়ে এসেছিলেন। কিন্তু দুটি সিঙ্গেল না নিয়ে বড় শট খেলতে গিয়ে আউট হলেন মুশফিক এবং মাহমুদুল্লাহর মত সিনিয়র ব্যাটসমানরা। এই দুটি আউটই হারিয়ে দিলো বাংলাদেশকে। শেষ বলে প্রয়োজন দুই রান। কিন্তু শুভাগত হোম ব্যাটেই বল লাগাতে পারেননি।

বাংলাদেশ নিশ্চিত জয় পাচ্ছিল যে ম্যাচে, সেই ম্যাচটিতে টান টান উত্তেজনা তৈরী হয়েছিল শেষ মুহূর্তে। শেষ ২ ওভারে প্রয়োজন ১৭ রান। শেষ ওভারে ১১ রান। বোলার ছিলেন হার্দিক পাণ্ডে। শেষ এই ওভারে নায়কে পরিণত হলেন মুশফিকুর রহিম। প্রথম বলে দিলেন ১ রান। দ্বিতীয় বলে মুশফিক মারলেন বাউন্ডারি। প্রতিটি বলের আগেই তৈরী হলো টান টান উত্তেজনা। ভারতীয় খেলোয়াড়রা বার বার পরামর্শ দিচ্ছিলেন পাণ্ডেকে। কিন্তু তৃতীয় বলে আবারও বাউন্ডারি মারলেন মুশফিক। তিন বলে প্রয়োজন ২ রান। কিন্তু চতুর্থ বলে এসে আবারও বাউন্ডারি মারতে গিয়ে আউট হয়ে গেলেন মুশফিক। ২ বলে প্রয়োজন ২ রান। ৫ম বলে ইজি বল ছক্কা মারতে গেলেন মাহমুদুল্লাহ। কিন্তু এবারও ক্যাচ। আউট হয়ে গেলেন মাহমুদুল্লাহ রিয়াদ। শেষ বলে প্রয়োজন ২ রান। শুভাগত হোমের মত ব্যাটসম্যান। ব্যাটেই বল লাগাতে পারলেন না। দৌড়েছিলেন রানের জন্য। তাও পারলেন না। রানআউট হয়ে গেলেন মুস্তাফিজুর রহমান।

একই সঙ্গে ভারতের কাছে হেরে সেমিতে যাওয়ার স্বপ্ন শেষ হয়ে গেলো বাংলাদেশের। গ্রুপ-২ এ এখন ভারতের পয়েন্ট ৪। বাংলাদেশের কোন পয়েন্ট নেই। অস্ট্রেলিয়া এবং পাকিস্তানের পয়েন্ট সমান ২ করে। টানা তিন ম্যাচ জিতে সবার আগে সেমিফাইনাল নিশ্চিত করে রেখেছে নিউজিল্যান্ড।

ম্যাচটিতে টসে হেরে প্রথমে ব্যাট করে নির্ধারিত ২০ ওভারে ৭ উইকেট হারিয়ে ১৪৬ রান তুলে ভারত। জয়ের জন্য বাংলাদেশের সামনে স্বাগতিকরা ছুড়ে দেয় ১৪৭ রানের লক্ষ্যমাত্রা। সেই লক্ষ্যে ব্যাট করে বাংলাদেশ।

লক্ষ্য তাড়া করতে নেমে আশিষ নেহরার প্রথম বলেই বাউন্ডারি হাঁকান তামিম। কিন্তু বাউন্ডারি হবে কি হবে না, তা নিয়ে ছিলেন শঙ্কায়। তাই অপর ওপেনার মোহাম্মদ মিঠুনের সঙ্গে জায়গা বদল করতে চেয়েছিলেন তিনি। তবে উইকেটের মাঝখানে আসতেই বোলার নেহরার সঙ্গে ধাক্কা খেয়ে মাটিতে লুটিয়ে পড়েন তামিম। মাথায় আঘাত লাগায় অনেকক্ষণ শুয়ে থাকেন বাংলাদেশের এই ওপেনার। শুশ্রূষার পর ফের ব্যাটিং শুরু করেন তিনি। ওই ওভারের পঞ্চম বলেই আউট হওয়ার সম্ভাবনা জাগিয়েছিলেন তামিম। নিজের বলে নিজে ক্যাচ নিতে পারেননি নেহরা। বেঁচে গেলেন তামিম!

দলীয় ১১ রানের মাথায় বাংলাদেশ শিবিরে আঘাত হানেন রবিচন্দ্রন অশ্বিন। ভারতের স্পিনারের বল উড়িয়ে মারতে গিয়ে হার্দিক পান্ডের হাতে ক্যাচ তুলে দেন মোহাম্মদ মিঠুন। ৩ বল খেলে ১ রান করেই সাজঘরে ফেরেন বাংলাদেশের এই ওপেনার। তামিমের সঙ্গে পরিবর্তিত ওপেনিং জুটিতে এসে এ কী করলেন মিঠুন? পারলেন না নামের প্রতি সুবিচার করতে।

bangladesh-fans

পঞ্চম ওভারে ফের জীবন পান তামিম। অশ্বিনের বল শুন্যে ভাসিয়ে দেন তিনি। ক্যাচটি লুফে নিতে ব্যর্থ হন জসপ্রীত বুমরাহ। তবে দুইবার জীবন পেয়েও খুব একটা সুবিধা করতে পারলেন না তামিম।রবিন্দ্র জাদেজার বলে ধোনির কাছে স্টাম্পিংয়ের শিকার হন বাংলাদেশের সেরা এই ওপেনার। বিদায়ের আগে ৩২ বলে পাঁচটি চারে তামিমের ব্যাট থেকে আসে ৩৫ রান।

ভালোই খেলছিলেন সাব্বির রহমান রুম্মান। কিন্তু সামান্য ভুলেই শেষ হয়ে গেল তার পথচলা। ভারতের পার্টটাইম বোলার সুরেশ রায়নার বলে শট নেন সাব্বির। কিন্তু ব্যাটে বলে ঠিকমতো হয়নি তার। একটা পা ভেতরেই ছিল, কিন্তু একটা সেকেন্ডের জন্য মাটি থেকে তার ওপরে উঠে যায়। ওই সময়েই স্টাম্প ভেঙে দিলেন ধোনি। মুখ ভার করে সাব্বির বেছে নিলেন সাব্বির। ১৫ বলে তিনটি চার ও একটি ছক্কায় ২৬ রান করেন তিনি।

সাব্বিরের বিদায় পর ব্যাট হাতে নেমে পড়েন অধিনায়ক মাশরাফি। কিন্তু দ্রুতই ক্রিজ ছাড়লেন তিনি। জাদেজার বল খেলতে গিয়ে সামনে এগিয়ে আসেন। কিন্তু বলের লাইন মিস করে বোল্ড হন টাইগার দলপতি। পাঁচ বলে ৬ রানেই বিদায় নেন তিনি। আশা জাগিয়েছিলেন সাকিব আল হাসানও। কিন্তু ২২ রানেই থামে তার ইনিংস। হার্দিক পান্ডের বলে সুরেশ রায়নার হাতে ক্যাচ দেয়ার আগে ১৫ বলে দুটি ছক্কায় ইনিংসটি সাজান তিনি।

বাংলাদেশ দলে আজ একটি পরিবর্তন ছিলো । সাকলাইন সজীবের পরিবর্তে দলে ঢুকছেন তামিম ইকবাল। ভারত দলে আজ কোনো পরিবর্তন নেই। পাকিস্তানের বিপক্ষে ইডেন গার্ডেনে যে দল নিয়ে মাঠে নেমেছিল সেই অপরিবর্তিত দল নিয়েই আজ খেলছে তারা।
বাংলাদেশ দল: মাশরাফি বিন মুর্তজা, তামিম ইকবাল, মোহাম্মদ মিথুন, সাব্বির রহমান, সাকিব আল হাসান, মুশফিকুর রহিম, সৌম্য সরকার, শুভাগত হোম চৌধুরী, মাহমুদউল্লাহ রিয়াদ, আল-আমিন হোসেন, মুস্তাফিজুর রহমান।

ভারতীয় দল: রোহিত শর্মা, শেখর ধাওয়ান, বিরাট কোহলি, সুরেশ রায়না, যুবরাজ সিং, মহেন্দ্র সিং ধোনী, হার্দিক পান্ডিয়ে, রবিন্দ্রর জাদেজা, রবিচন্দ্রন অশ্বিন, আশিষ নেহরা, জাসপ্রিত বুমরাহ।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

ক্রীড়া এর অারো খবর