এলটিই প্রযুক্তি ব্যবহার হবে মেট্রোরেলের অভ্যন্তরীণ যোগাযোগে
এলটিই প্রযুক্তি ব্যবহার হবে মেট্রোরেলের অভ্যন্তরীণ যোগাযোগে
২০১৬-০৩-২০ ০২:৫২:০৭
প্রিন্টঅ-অ+


রাজধানীর যানজট হ্রাস ও গণপরিবহন ব্যবস্থা উন্নয়নে নির্মাণ করা হবে মেট্রোরেল। এরই মধ্যে প্রকল্পটির কার্যক্রম শুরু হয়েছে। মেট্রোরেল প্রকল্পের অভ্যন্তরীণ বেতার যোগাযোগ ব্যবস্থার জন্য ব্যবহার করা হবে লং টার্ম ইভোলুশন (এলটিই) প্রযুক্তি। এজন্য সম্প্রতি প্রকল্প কর্তৃপক্ষকে তরঙ্গ বরাদ্দ দিয়েছে বাংলাদেশ টেলিযোগাযোগ নিয়ন্ত্রণ কমিশন (বিটিআরসি)।

জানা গেছে, ঢাকা মেট্রোরেল লাইন-৬ এর নিরাপত্তা ও অপারেশনাল কার্যক্রম পরিচালনার জন্য তরঙ্গ বরাদ্দ দিতে কমিশনের কাছে আবেদন করেন প্রকল্প পরিচালক। আবেদনে ৪০০ মেগাহার্টজ ব্যান্ডে ৪ দশমিক ৯ মেগাহার্টজ তরঙ্গ সংরক্ষণের অনুরোধ করা হয়। এলটিই প্রযুক্তি ব্যবহার করে বেতার যোগাযোগ পরিচালনার জন্য এ তরঙ্গ প্রয়োজন বলে আবেদনে উল্লেখ করা হয়।

মেট্রোরেলের জন্য তরঙ্গ বরাদ্দের বিষয়টি তরঙ্গ ব্যবস্থাপনা কমিটির (এসএমসি) কাছে পাঠানো হয়। কমিটির সভায় আলোচনার পর ঢাকা মেট্রোরেল লাইন-৬ এর জন্য ৪ দশমিক ৯ মেগাহার্টজ তরঙ্গ সংরক্ষণের সুপারিশ করা হয়। এ সুপারিশের আলোকে তরঙ্গ সংরক্ষণের বিষয়ে অনুমোদন দিয়েছে কমিশন।

জানতে চাইলে বিটিআরসির ঊর্ধ্বতন এক কর্মকর্তা বলেন, মেট্রোরেলের নির্মাণ কার্যক্রম পরিচালনা ও নিরাপত্তায় বেতার যোগাযোগের ভূমিকা অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। এটি একটি জাতীয় গুরুত্বপূর্ণ প্রকল্প। এসব দিক বিবেচনায় নিয়ে প্রকল্পটিকে তরঙ্গ বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এছাড়া ভবিষ্যতেও মেট্রোরেল পরিচালনার ক্ষেত্রে বেতার যোগাযোগের প্রয়োজন রয়েছে। সেক্ষেত্রেও এ তরঙ্গ ব্যবহার করা যেতে পারে।

এদিকে বাংলাদেশ টেলিকমিউনিকেশন্স কোম্পানি লিমিটেড (বিটিসিএল) মেট্রোরেল প্রকল্পে টেলিযোগাযোগ সেবা দিতে আগ্রহ প্রকাশ করেছে। রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান হিসেবে মেট্রোরেল প্রকল্পে এ সেবা দিতে আগ্রহী বিটিসিএল। এজন্য আনুষ্ঠানিকভাবে মেট্রোরেল কর্তৃপক্ষের কাছে আবেদন করার বিষয়ে বিটিসিএলকে পরামর্শ দিয়েছে এসএমসি। প্রসঙ্গত, ঢাকা গণপরিবহন উন্নয়ন প্রকল্পের আওতায় বাস্তবায়নাধীন ঢাকা মেট্রোরেল লাইন-৬ প্রকল্পটি। প্রায় ২২ হাজার কোটি টাকা ব্যয়ে নির্মাণ করা হচ্ছে এটি। এর আওতায় উত্তরা-মতিঝিল ২০ কিলোমিটার দীর্ঘ মেট্রোরেল স্থাপন করা হবে, যাতে যাত্রী ওঠানামায় স্টেশন থাকবে ১৬টি। মেট্রোরেল নির্মাণে উত্তরা থেকে মতিঝিল পর্যন্ত পুরো প্রকল্প এলাকার সয়েল টেস্ট শেষ হয়েছে। বিস্তারিত নকশা প্রণয়নের কাজও শেষ পর্যায়ে। এরই মধ্যে উত্তরা থেকে আগারগাঁও অংশের ঠিকাদার নিয়োগে দরপত্র আহ্বান করা হয়েছে। পাশাপাশি ইঞ্জিন-কোচ কেনার দরপত্রও প্রক্রিয়াকরণের কাজ চলছে।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

বিজ্ঞান প্রযুক্তি এর অারো খবর