ভেঙে গেল তথ্যমন্ত্রীর জাসদ
ভেঙে গেল তথ্যমন্ত্রীর জাসদ
২০১৬-০৩-১৫ ০১:৫৩:০৯
প্রিন্টঅ-অ+


ভেঙে গেল তথ্যমন্ত্রী হাসানুল হক ইনুর নেতৃত্বাধীন জাতীয় সমাজতান্ত্রিক দল (জাসদ)। শনিবার রাজধানীর মহানগর নাট্যমঞ্চে জাসদের নির্বাচনী অধিবেশন শেষে দলটির সদ্য বিদায়ী সাধারণ সম্পাদক শরীফ নুরুল আম্বিয়াকে সভাপতি ও নাজমুল হক প্রধানকে সাধারণ সম্পাদক করে পাল্টা কমিটি গঠন করা হয়েছে। এই অংশের কার্যকরী সভাপতি করা হয়েছে মাইনুদ্দিন খান বাদলকে। আর অন্য অংশের সভাপতি হয়েছেন হাসানুল হক ইনু ও সাধারণ সম্পাদক হয়েছেন শিরিন আখতার। এই ভাঙ্গন নিয়ে উভয় পক্ষই দায়ী করছে একে অপরকে।

এ নিয়ে গতকাল বিকেলে রাজধানীর বঙ্গবন্ধু অ্যাভিনিউয়ে জাসদের কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলন করেন জাসদের এক অংশের সভাপতি হাসানুল হক ইনু।

তিনি বলেন বিদায়ী কমিটির নেতৃবৃন্দের আচরণ রহস্যজনক। তারা জঙ্গিবাদের সহযোগিতা করার জন্যই এই ন্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটিয়েছে।

ইনু আরও বলেন, তারা কাউন্সিল থেকে বের হয়ে রাস্তায় বসে নিজেদের মত একটা কমিটি করেছে যা গণতন্ত্র পরিপন্থী। এভাবে রাস্তাঘাটে বসে ইচ্ছেমত কমিটি গঠন গঠনতন্ত্র বিরোধী।

তথ্যমন্ত্রী বলেন, বাদল- আম্বিয়ারা সাময়িক উত্তেজনার বশে চক্রান্তকারীদের পক্ষে অবস্থান নিয়েছে। উত্তেজনা কেটে গেলে দেশ ও দলের বৃহত্তর স্বার্থে তারা পুনরায় দলে ফিরে নীতি-নির্ধারণীমূলক ভূমিকা পালন করবেন বলেও আশাবাদ ব্যক্ত করেন তিনি।

ইনুর সংবাদ সম্মেলনে দলটির কার্যকরী সভাপতি অ্যাডভোকেট রবিউল আলম, সাধারণ সম্পাদক শিরিন আখতার, প্রধান নির্বাচন কমিশনার হাবিবুর রহমান শওকত, সাংগঠনিক সম্পাদক ওবায়দুর রহমান চুন্নু, স্থায়ী কমিটির সদস্য মীর হোসাইন আখতার উপস্থিত ছিলেন।

অন্যদিকে গতকাল দুপুরে জাতীয় সংসদ ভবনে জাসদের (একাংশের) কার্যকরী সভাপতি মাইনুদ্দিন খান বাদল এক সংবাদ সম্মেলনে বলেন, জাসদ ভেঙেছে হাসানুল হক ইনুর জন্য। তার স্বেচ্ছাচারিতা, আর্থিক অস্বচ্ছতা ও ব্যক্তিগত অনুরাগের কারণে জাসদে ফের ভাঙন সৃষ্টি হয়েছে।

তিনি বলেন, এই বিস্ফোরণ হওয়ার নেপথ্যে কাজ করেছে মন্ত্রী হওয়ার পর উনার আর্থিক অস্বচ্ছতা। তার আর্থিক আচরণ সম্পর্কে দলে বারবার প্রশ্ন উঠেছে। এ ব্যাপারে অস্পষ্টতা আছে, অস্বচ্ছতা আছে। দলীয় সভাপতি হিসেবে ব্যক্তিগত রাগ-অনুরাগ, ব্যক্তিগত সম্পর্কের ভিত্তিতে কোনো সিদ্ধান্ত নিতে পারেন না। তিনি তাই নিয়েছেন। আমাদের সবচেয়ে বড় অভিযোগ, তিনি ছয় বছর আমাদের সাবেক সাধারণ সম্পাদক শরীফ নুরুল আম্বিয়াকে কোনো কাজ করতে দেননি। বাধা সৃষ্টি করেছেন।

বাদল বলেন, আমরা তাকে বারবার বলেছি সম্মেলনে কাউন্সিলরদের স্বাধীন মতামত ব্যক্ত করতে দিন। কাউন্সিলরদের রায় আমরা নতচিত্তে মেনে নেওয়ার কথাও বলেছি। আপনার হঠকারী, তথাকথিত মন্ত্রিত্বের ঔদ্ধত্যের কারণে সব কিছু ধ্বংস হয়েছে। এর উত্তর উনাকেই দিতে হবে। ভাঙতে চাইনি, ভাঙন কাঁধের ওপর চাপিয়ে দেওয়া হয়েছে।


তিনি বলেন, আমাদের দলের ছয়জন সংসদ সদস্যের চারজন আমাদের সঙ্গে রয়েছেন। তারা হলেন আমি নিজে, সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হক প্রধান, রেজাউল করিম তানসেন ও সংরক্ষিত আসনের সংসদ সদস্য লুত্ফা তাহের। দলের স্ট্যান্ডিং কমিটির ১৪ সদস্যের মধ্যে ১০ জনই আমাদের সঙ্গে আছেন।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে বাদল জানান, আপাতত তাদের দলের কোনো নির্দিষ্ট অফিস নেই। জাসদের যে অফিসটি রয়েছে তা চারজনের নামে। এর মধ্যে একজন কাজী আরেফ আহমেদ মারা গেছেন। বাকি তিনজনের মধ্যে একজন হাসানুল হক ইনু। বাকি দুইজন আমাদের সঙ্গে আছেন। এইটা আইনি বিষয়, এই বিষয়ে পরে সিদ্ধান্ত হবে।

সংবাদ সম্মেলনে নতুন কমিটির সভাপতি শরীফ নুরুল আম্বিয়া, সাধারণ সম্পাদক নাজমুল হক প্রধান ও দলটির একাধিক নেতাকর্মী উপস্থিত ছিলেন।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

রাজনীতি এর অারো খবর