মস্তিস্ক বিবর্তনের ফলেই আমাদের ফেসবুক আসক্তি
মস্তিস্ক বিবর্তনের ফলেই আমাদের ফেসবুক আসক্তি
২০১৬-০৩-০৯ ১২:১৯:২২
প্রিন্টঅ-অ+


মানবজাতির জন্মলগ্ন থেকে বছরের পর বছর ধরে বৃদ্ধি পেয়েছে মস্তিস্কের আকার। আর সম্প্রতি এক মনস্তত্ত্ববিদ বলেছেন হাজার বছর ধরে মস্তিষ্কের বিবর্তনের ফলেই মানুষ ফেসবুক ও টুইটারের প্রতি আসক্ত হচ্ছে।

স্কাইনিউজ জানিয়েছে, মানব মস্তিষ্কের এই বিবর্তন ২০ হাজার বছর আগেই তার শেষ প্রান্তে পৌঁছে গেছে। আর তখন থেকেই এটি উল্টো প্যাটার্নে চলা শুরু করেছে। প্রফেসর ব্রুস হুড বিশ্বাস করেন, আমরা ঘরকুনো হওয়ার কারণেই এটি হয়েছে।

হুড বলেন, আমাদের পূর্বসুরীরা সার্বক্ষণিক বেঁচে থাকার লড়াই করে এসেছে। কিন্তু এখন আমাদের মস্তিষ্ক ‘স্বাভাবিক কথাবার্তার মাধ্যমে’ একে অপরের সঙ্গে মেতে থাকার জন্য উৎকৃষ্ট। আর সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলো বড় পরিসরে বিভিন্ন মানুষের সঙ্গে মেতে থাকার সুযোগ দেয় বলে মনে করেন এক মার্কিন শিক্ষাবিদ। তিনি বলেন, “সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলোতে মানুষ যে অন্যান্য মানুষের সঙ্গে যুক্ত হয়ে থাকে এটি তেমন আশ্চর্যের বিষয় নয়। আমদের মস্তিস্ক আমাদেরকে সামাজিক প্রাণীতে পরিণত করতেই বিবর্তিত হয়েছে।”

সামাজিক যোগাযোগের মাধ্যমগুলোর মাধ্যমে মানুষ বিভিন্ন মতধারা দেখে আরও বেশি খোলা মনের হয়ে ওঠে, আর আমাদের এমন ভাবনাকে আশ্চর্যের বিষয় হিসেবে দেখছেন তিনি। “আমরা বাস্তবে যা দেখি সেটি অবশ্যই উল্টো। মানুষকে বাস্তবের চেয়ে অনালইনেই বেশি যথাযথভাবে ভাগ হতে দেখা যায়”, বলেন তিনি।

মানুষ যেহেতু অনলাইনে সংশোধিত সম্প্রদায়ে বসবাস করে তাই তাদের মস্তিস্ক বিশ্রামে থাকে। আর এজন্য তাদের চারপাশের মানুষকে ঠকানোর কোন প্রয়োজন পরে না। আর এটি উচ্চতর চিন্তার সুযোগ সৃষ্টি করে বলেও মনে করেন হুড।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

বিজ্ঞান প্রযুক্তি এর অারো খবর