মিল্কি ওয়ে’র গ্যাস জরিপ শেষ হলো
মিল্কি ওয়ে’র গ্যাস জরিপ শেষ হলো
২০১৬-০৩-০৪ ০০:৫৯:৪০
প্রিন্টঅ-অ+


নক্ষত্র উৎপন্ন হওয়ার দুটি গুরুত্বপূর্ণ উপাদান হল ঘনত্ব ও শীতল গ্যাস। আর এবার জ্যোতির্বিদরা এই উপাদানগুলোর একটি পূর্ণাঙ্গ মানচিত্র বের করেছেন।

বিবিসি জানিয়েছে, অ্যাপেক্স টেলিস্কোপ আটাকামা মরুভূমির প্রায় ৫ কিলোমিটার থেকে মহাকাশে যতদূর পর্যন্ত দেখতে পারে, তার একটি ছবি ধারণ করা হয়েছে। বেতার আর অবলোহিত তরঙ্গের মধ্যকার তেজস্ক্রিয়তা ব্যবহার করে দক্ষিণ আকাশ থেকে এই নমুনা নেওয়া হয়েছে।

‘আটকামা পাথফাইন্ডার এক্সপেরিমেন্ট’ নামের পরীক্ষায় ১২ মিটার দৈর্ঘ্যের অ্যাপেক্স টেলিস্কোপ ব্যবহার করা হচ্ছে। এই টেলিস্কোপের মূল্য যন্ত্রগুলো হচ্ছে- ২৯৫টি সেন্সর আর লার্জ বলোমিটার ক্যামেরা।

১৪০ ডিগ্রী লম্বা এবং তিন ডিগ্রী চওড়া এই নতুন ম্যাপ এর নাম দেওয়া হয়েছে ‘এটলাসগাল’, যার পুরো মানে হচ্ছে- অ্যাপেক্স লার্জ এরিয়া সার্ভে অফ দ্য গ্যালাক্সি।

এই জরিপে অন্যান্য টেলিস্কোপের মাধ্যমে উত্তর মিল্কি ওয়ে’র ডেটাও নেওয়া হয়েছে। কিন্তু গ্যালাকটিক সেন্টার থাকার কারণে দক্ষিণ অংশের প্রতি বিজ্ঞানীদের বিশেষ আগ্রহ জন্মায়।

“অ্যাটলাসগাল আমাদের ছায়াপথে তারার সঙ্গে তারার সম্পর্কের নতুন চেহারা খুঁজে বের করার সুযোগ করে দিল।” বলে জানান ইউরোপিয়ান সাউদার্ন অবসারভেটরি (ইএসও)-এর লিওনার্দো টেস্টি।

তিনি আরও বলেন, “নতুন বৈজ্ঞানিক ব্যাখার ফলে আমরা সে ডেটা পেয়েছি, সেগুলো নতুন উদ্ভাবনীতে বিশেষ অবদান রাখবে।”

অন্যান্য জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা চাইলে ইএসও-এর ওয়েবসাইট থেকে অ্যাটলাসগাল ম্যাপের ডেটা ডাউনলোড করতে পারবেন এবং এই ম্যাপের বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা অ্যাস্ট্রোনমি এবং অ্যাস্ট্রোফিজিক্স জার্নাল এ প্রকাশ করা হয়েছে।

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

বিজ্ঞান প্রযুক্তি এর অারো খবর