স্বয়ংক্রিয় গাড়ি বাঁধা হয়ে দাঁড়াবে শক্তি সঞ্চয়ে
স্বয়ংক্রিয় গাড়ি বাঁধা হয়ে দাঁড়াবে শক্তি সঞ্চয়ে
২০১৬-০৩-০২ ০২:২৮:১৫
প্রিন্টঅ-অ+


যুক্তরাজ্যের ইউনিভার্সিটি অফ লিডস-এর গবেষকরা বলছেন, চালকবিহীন গাড়ির কারণে অধিক যানবাহনের ব্যবহার, সেই সঙ্গে এর ফলে শক্তি সঞ্চয় বা অদূর ভবিষ্যতের প্রত্যাশিত পরিবেশগত সুবিধা পাওয়ার সম্ভাবনা কমে যেতে পারে এমনকি তা বন্ধও হয়ে যেতে পারে।

২০১২ সালে উন্মোচন হয় গুগলের চালকবিহীন গাড়ি। এর পর থেকে দ্রুতগতিতে বাড়তে থাকে স্বয়ংক্রিয় গাড়ির উৎপাদন। কিন্তু নতুন এই গবেষণায় জানা যায়, গাড়ির সঙ্গে আমাদের সম্পর্কের কারণে এই প্রযুক্তির পরিবর্তনের প্রভাবটা জটিল হতে পারে।

“এতে কোন সন্দেহ নেই যে স্বয়ংক্রিয় যানবাহন আমাদের অনেক উপকারে আসবে, কিন্তু তখনই আসবে যদি আপনি আপনার গাড়িতে কাজ করতে, বিশ্রাম নিতে বা কোনো বৈঠক করতে পারবেন, এর মাধ্যমে আমরা যেভাবে এটি ব্যবহার করি তা বদলে যাবে।

এর ফলে, যোগাযোগের হিসাব আর শক্তি ও পরিবেশের উপর এর প্রভাব বদলাতে পারে” এমনটিই জানিয়েছেন এই গবেষণায় অংশগ্রহণকারী গবেষক ইউনিভার্সিটি অফ লিডস-এর সহযোগী অধ্যাপক ড. জিয়া ওয়াদুদ।

এই গবেষণায় স্ব-চালিত গাড়ি প্রযুক্তির সঙ্গে গাড়ি ও ট্রাকের বিভিন্ন তথ্য, ড্রাইভিং লাইসেন্স আর বিভিন্ন যানবাহনের পেছনে কত খরচ হয়, এমন তথ্য ব্যবহার করেছেন গবেষকরা।

এর মাধ্যমে তারা ২০৫০ সালে যুক্তরাষ্ট্রের রাস্তায় বিভিন্ন ধরনের স্বয়ংক্রিয় গাড়ির জন্য শক্তির চাহিদা কেমন হবে তা ধারণা করতে চেয়েছেন বলে জানিয়েছে ভারতীয় বার্তা সংস্থা ইন্দো-এশিয়ান নিউজ সার্ভিস (আইএএনএস)।

এতদিন অন্য কোনো বিকল্প যোগাযোগ ব্যবস্থা ব্যবহার করলেও, সেই জায়গায় মানুষ উন্নতমানের স্বয়ংক্রিয় গাড়ি ব্যবহার শুরু করলে, গাড়ি ব্যবহারে শক্তির খরচ ৫ থেকে ৬০ শতাংশ পর্যন্ত বাড়তে পারে এই গবেষণায় ধারণা করা হয়।

ইউনিভার্সিটি অফ ওয়াশিংটন-এর সহযোগী অধ্যাপক ডন ম্যাক্যাঞ্জি বলেন, “স্ব-চালিত গাড়ি নিয়ে অনেক গুঞ্জন শোনা যায়, কিন্তু এর অধিকাংশই পরিবেশে অবাস্তব। কিন্তু সবকিছুতেই ইতিবাচক ও নেতিবাচক দিক থাকে।”

ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর প্রকাশিত প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, রেখাচিত্র, ভিডিও, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট অাইনে পু্র্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবেনা ।

মন্তব্য

মন্তব্যে প্রকাশিত মত মন্তব্যকারীর একান্তই নিজস্ব। মন্তব্যকারীর বক্তব্যের বিষয়বস্তু নিয়ে ইঞ্জিনিয়রবিডি ডটকম-এর কর্তৃপক্ষ আইনগত বা অন্য কোনো দায় নেবে না।

বিজ্ঞান প্রযুক্তি এর অারো খবর